পথে পথে বাধা সড়কে ব্যারিকেড গ্রেফতার

0
137
Print Friendly, PDF & Email

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় আসতে পথে পথে বাধা। পুলিশি চেকপোস্ট বসিয়ে ঢাকাগামী যাত্রীদের তল্লাশির নামে হয়রানি। এতে করে ভোগান্তিতে পড়তে হয় স্কুল-কলেজের শিার্থী, অফিসগামী কর্মজীবীসহ সাধারণ যাত্রীদের। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শাহবাগ, রমনা, মালিবাগ, গাবতলি, কেরাণীগঞ্জ, হাজারীবাগ, যাত্রবাড়ি, সায়দাবাদ, ডেমরা, চকবাজার, লালবাগ ও কামরাঙ্গীরচরে গ্রেফতার করা হয়েছে প্রায় দুই শতধিক। ঢাকার বাইরে থেকে আসা বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীদের গাজীপুরে ৪০ জনসহ সাভার, আরিচা, মানিকগঞ্জ এলাকায় গ্রেফতার করা হয়েছে প্রায় আড়াইশ। এদিকে নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া সকল গণপরিবহন গতকাল সকাল থেকেই ছিল বন্ধ। কোনো প্রকার পূর্ব ঘোষণা ছাড়া হঠাৎ করে এভাবে গাড়ি বন্ধ থাকায় যাত্রীরা ক্ষুব্ধ। তবে কেন গাড়ি বন্ধ রাখা হয় সেই বিষয়ে কোনো কিছু বলতে নারাজ পরিবহনের নেতারা। : এদিকে সমাবেশ থেকে ফেরার পথেও গাড়ি থামিয়ে থামিয়ে গণগ্রেফতার করা হয়। এছাড়াও ফেরার পথে রাস্তায় রাস্তায় বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে পুলিশ। : রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের জনসভা শেষে ফেরার পথে অর্ধশতাধিক বিএনপি নেতাকর্মীকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে রমনাপার্কের আশপাশ এলাকা থেকে তাদের আটক করে। বিএনপির কেন্দ্রীয় দফতর সূত্রে জানা যায়, ঐক্যফ্রন্টের জনসভা শেষে বিএনপির শিশু বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক এমপি আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী ও মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিপাড়া থানা বিএনপির সভাপতি আমির হোসেন দোলনসহ বিএনপি ও অঙ্গ দলের অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী ও সমর্থককে সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশ আটক করেছে। : প্রত্যদর্শীরা জানিয়েছেন, ঢাকার কেরাণীগঞ্জ, হাজারীবাগ, চকবাজার, লালবাগ ও কামরাঙ্গীরচরের বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ ও সরকার সমর্থকরা। ঢাকা কলেজের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জহির হোসেন মোহন নামে এক ছাত্র জানান, পুলিশ কাউকে সন্দেহ হলে মোবাইল, ব্যাগ, তলাশি করছে। আর জনসভায় আসতে পারেন এমন কাউকে সন্দেহ হলেই পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাচ্ছে। নবাবগঞ্জ এলাকা থেকে এভাবে অর্ধশতাধিক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে বলে জানা গেছে। ছাত্রদলের এক কর্মী জানায়, বেড়িবাঁধের কামরাঙ্গীরচর থানা পুলিশও অর্ধশত ছাত্রদল, যুবদল, সেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীদের আটক করেছে বলে জানায়। সরকারি বাহিনী দ্বারা বিভিন্ন ভয় দেখানো হচ্ছে। যাত্রাবাড়ি এলাকায় পুলিশ ও সরকার সমর্থকরা রাস্তায় পাহারা বসিয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যদর্শীরা। কাউকে সন্দেহ হলেই তাকে জেরা করা হচ্ছে। : ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশকে কেন্দ্র করে ঢাকার প্রবেশ পথ গাবতলী পর্বতা সিনেমা হলের সামনে সকাল থেকে পুলিশ চেকপোস্ট বসানো হয়। এতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকেই তীব্র যানজট দেখা গেছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষ। গন্তব্যে আসতে সাধারণ মানুষ অনেককে পায়ে হেঁটে আসতে দেখা যায়। সেখানে সরকার সমর্থকদের সকাল থেকেই মহড়া দিতে দেখা গেছে। সাধারণ পথচারীদেরকেও পুলিশ তল্লাশি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পলাশী মোড় ও ঢাকেশ্বরী মন্দির মোড়ে কয়েকজনের কাছ থেকে পুলিশ মোবাইল ফোন রেখে দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মাহিন আহমেদ নামে এক ব্যক্তি জানান, যাদের মোবাইলে বিএনপি রিলেটেড কারো ছবি পাওয়া যাচ্ছে তাদের মোবাইল রেখে দেয়া হচ্ছে বলে তিনি আভিযোগ করেন। : তিনি বলেন, মামুন নামের একজন ব্যক্তির রেখে দেয়া মোবাইলসহ অন্যান্য জিনিসপত্র ফেরত নেয়ার জন্য সেখানে কয়েকজনকে তিনি পুলিশ কনস্টেবলদের পা ধরতে দেখেছেন। জামাল আহমেদ নামে বিএনপির এক সমর্থক জানায়, কেরাণীগঞ্জ থেকে বুড়িগঙ্গা পার হতে যেসব নৌকা চলাচল করে তা চলতে বাধা দেয়া হচ্ছে । যাতে এপাড়ে কেউ আসতে না পারে। ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে, কেউ গেলে পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দেয়া হবে বলে জানান তিনি । জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় আসার পথে বাংলাদেশ লেবার পার্টির দুই নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মতিঝিল জনতা টাওয়ার এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে বলে জানান লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান। তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃত নেতারা হলেন- মুগদা থানা লেবার পার্টি নেতা ওমর ফারুক ও পিরোজপুর জেলা লেবার পার্টি নেতা সুশান্ত কুমার। রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ ঠেকাতে টঙ্গীতে ঢাকামুখী বাস-ট্রেন থামিয়ে যাত্রীদের নামিয়ে দিচ্ছে আইনশৃংখলা বাহিনী ও সরকারি দলের কর্মীরা। টঙ্গী রেলওয়ে জংশনে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে ট্রেনের প্রত্যেক যাত্রীকে তল্লাশি করা হচ্ছে। প্রতিটি ট্রেন আধা ঘণ্টা থেকে দুই ঘণ্টা পর্যন্ত বিনা কারণে টঙ্গী জংশনে আটকে রাখা হচ্ছে। ভৈরব থেকে আসা সুরমা ট্রেনের কয়েকজন যাত্রীকে স্টেশন মাস্টারের কে আটকে রাখার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিনা টিকেটে ভ্রমণ করায় আমি তাদেরকে আটক করেছি। আটককৃতরা ছাত্র হওয়ায় আমি এখনো তাদের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নেইনি। স্টেশন মাস্টার আব্দুল হালিম জানান, সুরমা ট্রেনটি সকাল ৯টা ৩৩ মিনিটে টঙ্গী স্টেশনে প্রবেশ করে। সকাল পৌনে ১১টায় স্টেশন মাস্টারের সাথে কথা বলার সময় সুরমা ট্রেন প্লাটফর্মে অবস্থান করছিল। দীর্ঘণ ট্রেনটিকে স্টেশনে দাঁড় করিয়ে রাখার কারণ জানতে চাইলে স্টেশন মাস্টার আব্দুল হালিম বলেন, আমার কিছু করার নেই। ওপরের নির্দেশে ট্রেন থামিয়ে রেখেছি। কনট্রোল রুমের নির্দেশ ছাড়া ট্রেন ছাড়ার মতা আমার নেই। যাত্রীরা ােভ প্রকাশ করে জানান, সকাল থেকেই প্রত্যেকটি ট্রেনের যাত্রীদের এভাবে হয়রানি করা হচ্ছে। সকাল থেকে টিকিট বিক্রিও বন্ধ রাখা হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি সরকারি দলের লোকজন ট্রেন থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিচ্ছে। দীর্ঘণ ট্রেন থামিয়ে রাখায় অনেকে বিকল্প পথে গন্তব্যে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। : এদিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কেও যাত্রীবাহী বাস চলাচলে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করছে পুলিশ। গাজীপুর-চান্দনা চৌরাস্তা থেকে আব্দুল্লাহপুর ব্রিজ পর্যন্ত বিভিন্ন পয়েন্টে যাত্রীদের নামিয়ে তল্লাশির নামে কৃত্রিম যানজট সৃষ্টি করা হচ্ছে। সন্দেহজনক যাত্রীদের বাস থেকে নামিয়ে দেয়া হচ্ছে। বোর্ড বাজার এলাকায় ৩৫ জন যাত্রীসহ একটি বাস আটক করে স্থানীয় গাছা থানায় হস্তান্তর করেছে ডিবি পুলিশ। আটককৃতদের মধ্যে গাজীপুর মহানগরীর গাছা থানা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন ভূইয়াও রয়েছেন। এর আগে এদিকে আইনশৃংখলা বাহিনী ও সরকারি দল কর্তৃক পথে পথে পরিবহনে বাধা সৃষ্টি এবং বিরোধী দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ যাত্রীদের হয়রানির তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন গাজীপুর মহানগর বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকার। : তিনি জানান, সকালে মহাসড়কে তার গাড়িও আটকে দেয়া হয়েছিল। অবশেষে তিনি বিকল্প পথে সমাবেশে যেতে বাধ্য হন। তিনি এসব ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, সরকারের এমন আচরণ স্পষ্টভাবে প্রমাণ করে, তারা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া নস্যাৎ করে আবারো একতরফা পাতানো নির্বাচন করার ষড়যন্ত্র করছে। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার সোহরাওয়ার্দীতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ থাকায় ধামরাইয়ের ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বাথুলী স্কেলে ও ইসলামপুর বাসস্ট্যান্ডের হাইওয়েতে পুলিশ ব্যাড়িকেড দিয়ে তল্লাশির নামে বিএনপির নেতাকর্মীদের বাস থেকে নামিয়ে গাড়িগুলো চলাচল বন্ধ করে দেন। পুলিশের এই তল্লাশিতে সংবাদপত্রের গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স ও কাঁচা মালের গাড়িও ছাড় দেয়নি ধামরাই থানার পুলিশ। গাড়ি তল্লাশির পাশাপাশি পুলিশ যানবাহনের স্টাফদের কাছ থেকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। তল্লাশির সময় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ৬ কিলোমিটার জুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। : এদিকে বিএনপির নেতাকর্মীরা ভোর বেলা থেকে পায়ে হেঁটে সমাবেশের উদ্দেশে রওনা হয়। অনেক যাত্রী গন্তব্যস্থলে সময়মত পৌঁছাতে না পারায় হতাশাগ্রস্ত । : গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে ১২টা পর্যন্ত ঢাকাগামী বন্ধন, উৎসব, আনন্দ পরিবহনসহ কোনো বাস টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যায়নি। ঢাকায় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে যাতে যোগ দিতে না পারে সেজন্য গণপরিবহন ও ট্রেন সার্ভিস বন্ধ রাখা হয়। তবে চাকরিজীবী ও শিক্ষার্থীদের বিকল্প যান হিসেবে সিএনজি, অটোরিকশা ও লেগুনা দিয়ে অতিরিক্ত ভাড়ায় গন্তব্যে ছুটতে হয়েছে। বেলা ১২টায় ঢাকাগামী গণপরিবহন চলতে শুরু করলেও ছিল সংখ্যায় খুবই কম। আর তাতে ছিল যাত্রীদের উপচে পরা ভিড়। পরিবহন কম থাকার বিষয়ে চালক ও শ্রমিকরা কোনো কথা বলতে রাজি হয়নি। চাষাঢ়া বাস কাউন্টারে দাঁড়িয়ে থাকা হাসান মাহমুদ জানান, সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত সব বাস বন্ধ ছিল। পৌঁনে ১২টা থেকে বাস আবার চলতে শুরু করছে। তবে যে ভিড় তাতে দুটি বাসে উঠতে পারি নাই। : এদিকে সকাল ১০টা ২০ মিনিটের নারায়ণগঞ্জ থেকে কমলাপুরগামী ট্রেন বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে ট্রেন যাত্রীদের। বাস ট্রেন বন্ধ থাকায় ঢাকার সঙ্গে সকল ধরনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ট্রেন সার্ভিস বন্ধ রাখার পাশাপাশি বন্ধ রাখা হয়েছে টিকেট কাউন্টারগুলোও। কারণ হিসেবে চাষাঢ়া স্টেশনের টিকেট কাউন্টারে একটি নোটিশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। যেখানে লেখা আছে- ইঞ্জিনে সমস্যার কারণে ট্রেন চলাচল বন্ধ আছে। সমস্যার সমাধান হলে কাউন্টার খোলা হবে। দুর্ভোগের শিকার ট্রেন যাত্রী আলমগীর হোসেন জানান, সকাল থেকে ট্রেন স্বাভাবিকভাবেই চলছিলো। আমি ফতুল্লা থেকে সকালে নারায়ণগঞ্জে একটি কাজের জন্য আসি। এরপর এখানে কাজ শেষ করে আমার ঢাকায় যাওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু ফেরার সময় আবারো স্টেশনে এসে দেখতে পাই ট্রেন বন্ধ। : এদিকে বাসও চলাচল করছে না। এখন সিএনজি নিয়ে যেতে হবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রেল কর্মচারী জানান, মূলত ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশের কারণেই এই সময়ে রেল সার্ভিস বন্ধ রাখা হয়েছে। কারণ নারায়ণগঞ্জ ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলা হওয়ায় এখান থেকে অনেক নেতাকর্মী সেই সমাবেশে যোগদানের ল্েয রেল ব্যবহার করে থাকে। তাই হয়তো ট্রেন বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তবে আমাদের কোনো ট্রেনেরই ইঞ্জিনে সমস্যা নেই। : চাষাঢ়া স্টেশনের স্টেশন মাস্টার মো. ইব্রাহিম জানান, আমাদের কোনো ট্রেনের ইঞ্জিনে সমস্যা নেই। ওপরের নির্দেশনায় রেল সার্ভিস বন্ধ রাখা হয়েছে। ওপর থেকে নির্দেশনা এলেই আবার চালু করা হবে। কিন্তু রেল সার্ভিস বন্ধ রাখার কোনো কারণ তিনি জানাতে পারেননি। এবং কয়টা থেকে আবার ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হবে সে বিষয়টিও নিশ্চিত করে বলতে পারেননি। তবে ওপরের নির্দেশনা আসা মাত্রই ট্রেন সার্ভিস পুনরায় স্বাভাবিক হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। অন্যদিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকায় ঢাকাগামী সকল বাসে ব্যাপক তল্লাশির নামে সাধারণ যাত্রীদের হয়রানি করেছে পুলিশ। এ সময় রাস্তায় তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ মানুষ। নিরাপত্তার স্বার্থে তল্লাশি চলছে বলে জানায় পুলিশ। হয়রানির শিকার বাসের যাত্রীরা জানান, ঐক্যফ্রন্টের জনসভায় লোক সমাগমে বাধা দিতেই এভাবে তল্লাশি চালানো হয়েছে। জনসভায় লোক ঠিকই যাবে। তবে আমাদের সাধারণ মানুষদের অহেতুক কষ্ট দেয়া হচ্ছে। এভাবে তল্লশি করে মানুষের সমর্থন পাওয়া যায় না। ঢাকায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে যাওয়ার পথে নারায়ণগঞ্জে দুটি যাত্রীবাহী বাস থেকে ৭৭ জনকে আটক করা হয়েছে। পুলিশ বলছে আটক সকলেই বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী। গতকাল মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ফতুল্লার মুন্সিখোলায় ঢাকা-পাগলা-নারায়ণগঞ্জ সড়কে চেকপোস্ট এলাকা হতে ২৯ জনকে আটক করা হয়। এছাড়া নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের ৪৮ জন নেতাকর্মীসহ একটি বোরাক পরিবহনের বাস আটক করেছে পুলিশ। : ফতুল্লা মডেল থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইলিয়াস আলী জানান, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ঢাকায় সমাবেশে যাওয়ার পথে ফতুল্লার মুন্সিখোলা চেকপোস্ট এলাকায় দিঘীরপাড় নামক একটি পরিবহনের যাত্রী দেখে সন্দেহ হলে গাড়িটি গতিরোধ করে আটক করা হয়। পরে বাসে থাকা ২৯ জন যাত্রীকে জিজ্ঞেস করে আটক করা হয়। তবে তারা বরযাত্রী অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা বললেও তাদের পোশাকে বলে না তারা কোনো অনুষ্ঠানে যাচ্ছিল। তারা প্রকৃতভাবে সমাবেশে যাওয়ার উদ্দেশে দিঘীরপাড় নামক একটি পরিবহন রিজার্ভ নিয়ে আসে। তারা বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ও তাদের সকলের বাড়ি মুন্সিগঞ্জ সদর থানা এলাকায়। আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপরে সাথে আলোচনা করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। যদিও আটককৃতরা দাবি করেন তারা মুন্সিগঞ্জ হতে ঢাকার খিলগাঁও বিয়ের বরযাত্রীর অনুষ্ঠানে যাওয়ার সময় তাদেরকে বাসসহ আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো বাদল মিয়া (৪৩), আবু তাহের (৪২), জাহাঙ্গীর হোসেন (২৪), আশরাফুল ইসলাম, শামীম, সালামত গাজী, সানাউল্লাহ (৩২), রবিউল আউয়াল (২৬), অ্যাড. শিবলী আহম্মেদ (৪৬), জসিম উদ্দিন (৩৫), হাবিব (২২), শানু মিয়া (৫০), সাহেব আলী (৩৫), মিজানুর রহমান, সুলতান আহম্মেদ, উজ্জল, মামুন আহম্মেদ, সাগর, মিজানুর রহমান, নিজাম উদ্দিন, ওসমান গনি, বজলুর রহমান, রিপন শেখ, ওয়াজ করুনী, কামাল হোসেন, আমিনুল ইসলাম, হাসানুল ইসলাম বাপ্পী, ফয়সাল, মিন্টু। তারা সকলেই মুন্সিগঞ্জ সদর থানা এলাকার বাসিন্দা। : অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের ৪৮ জন নেতাকর্মীসহ একটি বোরাক পরিবহনের বাস আটক করেছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকায় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে যোগ দিতে যাবার জন্য বাসটিতে করে নেতাকর্মীরা ঢাকায় যাচ্ছিল। সেখান থেকে তল্লাশি করে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে বাসটি আটক করে জেলা পুলিশ লাইনসে নিয়ে যাওয়া হয়। আটককৃতরা হলেন, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা রাব্বানী, হুমায়ূন কবির, রনি, মাহফুজ মাতবর, রাব্বি, রাজু, ইমরান হোসেন, আসাদুল ইসলাম, আবু হানিফ, বিল্লাল হোসেন, আনিছ আনসার, শরীফ, আলমগীর, মোঃ হোসেন মিয়া, রুহুল আমিন, হাসান, বসার, মাহফুজ, চঞ্চল, হৃদয়, রাসেল, বাবু, রিয়াজ, কাউসার মীর, আজাদ, সোহাগ, আনোয়ার, রনি, মঞ্জুর, হাবিব, রানা, লিটন, রাসেল মাহমুদ, হযরত আলী, রুবেল, আনোয়ার, রনি, কামরুল ইসলাম, আবীর, ইমদাদুল হক, সহীব মিয়া এবং বাসের ড্রাইভার ও হেলপারসহ ৬ জন। : ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর কাদের জানান, বাসসহ ৪৮ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে, পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। : রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত সমাবেশে রূপগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতাকর্মীরা যাতে যোগ দিতে না পারে সে লক্ষ্যে বাড়তি তৎপরতা চালায় রূপগঞ্জ থানা পুলিশ। সোমবার রাত থেকেই ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক, ঢাকা বাইপাস, চনপাড়া ও পূর্বাচল ৩শ ফিট সড়কের রাজধানীতে প্রবেশের ৬ পয়েন্টে বসানো হয় পুলিশের বিশেষ তল্লাশি চৌকি। এসব চেক পয়েন্টে প্রতিটি গণপরিবহন থামিয়ে যাত্রীদের তল্লাশি করা হয়। সন্দেহভাজন ব্যক্তিগণকে রাজধানী প্রবেশে বাধা দিয়ে বাড়ি ফিরিয়ে দেন তারা। এছাড়া গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকেই রূপগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী গণপরিবহন অজ্ঞাত কারণ দেখিয়ে বন্ধ ছিল। রাস্তায় চলেনি মেঘলা, গ্লোরি ও আশিয়ান পরিবহনের বাস। মেঘলা পরিবহনের পরিচালক শাহ আলম দাবি করেন, জনসভায় রিজার্ভ থাকায় তারা রাস্তার গাড়ি চালাতে পারেননি। অন্যদিকে গত সোমবার রাতে উপজেলার বেলাব ইউনিয়ন যুবদল নেতা কাজী নাজিমুদ্দিন ও ভুলতা ইউনিয়ন যুবদল নেতা রফিকুল ইসলামকে আটক করে নাশকতার মামলায় আদালতে পাঠানো হয়। : এ ব্যাপারে উপজেলা বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু বলেন, ঐক্যফ্রন্টের ডাকে গণস্রোত তৈরি হয়েছে। বাধা আর মামলা হামলা দিয়ে স্রোত ঠেকানো যায় না। পুলিশের বাধা-নির্যাতন সহ্য করে বিকল্প রুটে আমার নেতৃত্বে উপজেলা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের হাজার হাজার নেতাকর্মী সমাবেশে যোগ দেন। : রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান বলেন, সমাবেশে যেতে কাউকে বাধা কিংবা কোনো ধরনের পুলিশি তৎপরতা চালানো হয়নি। নিয়মিত ডিউটির অংশ হিসেবে পুলিশ চৌকি বসানো হয়েছে দাবি করে ওসি বলেন, যাদের আটক করা হয়েছে তারা নাশকতা মামলার আসামি। : কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার ছাত্রদল ও যুবদলের ৬ নেতা গতকাল মঙ্গলবার ঢাকায় ঐক্যফ্রন্টের সামাবেশে যোগদানের জন্য যাওয়ার সময় ঢাকা কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছেন কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্র দলের সহ-সভাপতি তাইফুর রহমান হাসিব, কটিয়াদী উপজেলা ছাত্র দলের সহ-সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম সেতু, মো. আজাদ রহমান মিশর, মো. আনোয়ার হোসেন, উপজেলা ছাত্রদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক মো. আরিফুল ইসলাম, বনগ্রাম ইউনিয়ন যুবদলে সাংগঠনিক সম্পাদক মো. লাল মিয়া। : কটিয়াদী উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আরিফুর রহমান কাঞ্চন জানান, ঢাকায় সমাবেশে যাওয়ার সময় কমলাপুর রেল স্টেশনে ট্রেন হতে নামার পর পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করে শাজাহানপুর থানায় নিয়ে যায়।দিনকাল রিপোর্ট :

শেয়ার করুন