ভেঙে খান খান

0
44
Print Friendly, PDF & Email

রেকর্ড তো ভাঙার জন্যই৷ আর সেটাই করে চলেছেন বলিউড টিনসেল টাউনের নায়করা৷ একদিকে যেমন একশো কোটির ক্লাবের পৌঁছানোর জন্য দৌড়, পাশাপাশি সেরার শিরোপার জন্য খান ক্ল্যান-এর সঙ্গে যুদ্ধ রোশন, কাপুরদের৷ নয়া যুদ্ধের নয়া স্ট্র্যাটেজির খবরাখবর।

লড়াইটা এখন হিরো বনাম ভিলেন নয়৷ বরং নায়ক বনাম নায়ক৷ আসলে সেরা হওয়ার দৌড়ে স্পষ্টতই টিনসেল টাউন ভাগ হয়ে গিয়েছে উত্তর আর দক্ষিণ মেরুতে৷ একদিকে খানেদের থ্রি মাস্কেটিয়ারস৷ অর্থাৎ আমির, সালমান আর শাহরুখ৷ আর সেই ‘খানদান’-এ থাবা বসাচ্ছেন কাপুর, সিং আর রোশন৷

বক্স অফিসে ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’ আর ‘কৃষ-৩’ সাফল্য নতুন করে উসকে দিল নায়ক যুদ্ধের এই নতুন পর্ব৷

এক সময় ‘গজনি’ দিয়ে সিনেমায় লক্ষ্মীলাভের হিসাব নিকাশ ওলট-পালট করে দিয়েছিলেন আমির খান৷ একই তালিকায় রাখতে হয় তার ‘থ্রি ইডিয়টস’-কেও৷ কিন্ত্ত আমিরের অশ্বমেধ ঘোড়া ভালোরকমই মুখ থুবড়ে পড়ে ‘তালাস’-এ৷ একই ঘটনার পুরাবৃত্তি সালমান খানের ক্ষেত্রে৷ পর্দাজুড়ে যেমন ধুন্ধুমার মারপিট ‘দাবাং’-এ, বক্স অফিসে তেমনই মারকাটারি বাণিজ্য করেছিলেন সালমান৷ ‘দাবাং ২’-এ পর্দায় সালমানের অ্যাকশন বিন্দুমাত্র না কমলেও, বাণিজ্যে রেকর্ড ধরে রাখতে পারেনি সিক্যুয়েলটি৷ খান ক্ল্যান-এর জয়ধ্বজ্জা আপাতত শাহরুখ খানের হাতে৷ তার ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’ ননস্টপ দৌড় লাগিয়ে পৌঁছে গিয়েছিল ১০০ কোটির স্টেশনে৷

খানেদের এই দাবার চাল আবার ঘুরিয়ে দিয়েছেন ঋত্বিক রোশন৷ তার ‘কৃষ ৩’ মুক্তি পাওয়ার দিন কয়েকের মধ্যে যা বাণিজ্য এনেছে তা পেছনে ফেলে দিয়েছে খানেদের রেকর্ড৷ শুধু ঋত্বিকই নন, ‘ইয়ে জওয়ানি হ্যায় দিওয়ানি’ রণবীর কাপুরকে পৌঁছে দিয়েছে বলিউডের টপ ক্লাবে৷ আর সামনের শুক্রবার থেকে ‘রামলীলা’-র রণবীর সিং রোশন আর কাপুরদের থেকে ব্যটন নিয়ে লম্বা দৌড় দেবেন, সেই ব্যাপারে ইন্ডাস্ট্রি প্রায় নিশ্চিত৷

রেকর্ডভঙ্গ
সমস্ত বক্স-অফিস রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে রাকেশ রোশনের ‘কৃষ ৩’৷ শুধুমাত্র হিন্দি ভাষাতেই ছবিটা রিলিজ করেছিল ৩ হাজার ৭০০টা হলে৷ তামিল, তেলুগু ধরলে আরো ৫০০ হল৷ ধনতেরসে ছবিটার বক্স-অফিস কালেকশন ২১.৫ কোটি৷ এই সময়ে এই পরিমাণ কালেকশনে অভিভূত ছবির পরিবেশকরা৷ কারণ, সাধারণত, দিওয়ালির আগে এত বড় বাজেটের ছবি কেউ রিলিজ করাতে চান না৷ শুক্রবারের চিত্রটা যদি এমনটা হয় তো সোমবারের ছবি আরো মারাত্মক৷ দিওয়ালিতে ছবিটা আনার জন্য চাপ এসেছে বিশেষ করে দেশের উত্তর প্রান্ত থেকে৷ রিলিজ করেছে আরও ১৫০টি হলে৷ প্রথম তিন দিনে ছবিটার কালেকশন হয়েছিল ৬৫ কোটি৷ আঞ্চলিক ভাষা ধরলে আরো পাঁচ কোটি৷ কিন্ত্ত শুধুমাত্র ৪ নভেম্বর, সোমবারে ছবির কালেকশন হলো ৩৫ কোটি ১০ লক্ষ টাকা৷ সোমবারের কালেকশন এবং কোনো ছবির একদিনের কালেকশন দুটোতেই এই অঙ্ক সর্বকালীন রেকর্ড৷ এর আগে সালমান খানের ‘এক থা টাইগার’-এর একদিনের কালেকশন ছিল ৩০ কোটি ৭২ লক্ষ টাকা৷ আর ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’ কিছুদিন আগে তার কাছাকাছি গিয়েছিল৷ একদিনে কালেকশন ছিল ২৯ কোটি ৩৭ লক্ষ টাকা৷

ইন্ডাস্ট্রি-চর্চা
‘কৃষ’-এর সাফল্য দুটো ব্যাপার সামনে নিয়ে আসছে৷ এক, বলিউড টেকনো-সিনেমা পথে সফলভাবে হাঁটা শুরু করেছে৷ আর দুই, নায়কের প্রথম স্থানটা দখলের লড়াইয়ে রণবীর কাপুরের সামনে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন হূতিক রোশন৷ দ্বিতীয় ব্যাপারটা নিয়ে জোরদার শোরগোল শুরু হয়ে গিয়েছে৷ খানরা যেমন ছবি রিলিজের জন্য ঈদ বেছে নেন, এবার কাপুর-রোশনরা পছন্দ করতে শুরু করেছেন দিওয়ালি৷ এদিকে আবার আমির খানের ‘ধুম’-ও যে আসতে চলল৷ তাহলে কোন সময়ে রিলিজে সবচেয়ে বেশি সাফল্য মিলবে? কোটি টাকার প্রশ্ন উড়ে চলেছে ইন্ডাস্ট্রির হাওয়ায়৷ মজাটা হলো, উৎসবের মওকা বুঝে ছবি রিলিজের ব্যাপারটা নিয়ে খানরাই এতদিন বেশি-বেশি করে ভাবতেন৷ কিন্ত্ত সে ভাবনায় শামিল হয়ে গিয়েছেন কাপুর-রোশনরাও৷ কী বলা যায়? এক কথায়, জমে গিয়েছে! সূত্র: ওয়েবসাইট।

শেয়ার করুন