২ দিনে গ্রেফতার দুই হাজার ছাড়িয়েছে

0
53
Print Friendly, PDF & Email

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে সংলাপে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন কোনো নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হবে না। অথচ গত দুই দিনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ২ হাজারের বেশি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এদের বেশির ভাগই বিএনপির নেতাকর্মী। গতকাল চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন, নরসিংদী জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন মাস্টারসহ অসংখ্য নেতাকর্মীকে গ্রেফতারের খবর পাওয়া গেছে। সিলেট জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমনসহ ২৪ জনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গতকাল বুধবার নাশকতার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আদালতে হাজিরা দিতে গেলে তাদের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। ওই মামলায় তারা উচ্চ আদালত থেকে জামিনে ছিলেন। আইনজীবীরা জানান, জালালাবাদ থানায় দায়ের করা ওই মামলায় নির্ধারিত তারিখে সিলেট আদালতে হাজিরা দিতে গেলে বিজ্ঞ আদালত তাদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। এরা হলেন- সিলেট জেলা বিএনপির স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক আফম কামাল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মুরাদ হোসেন, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমন, সদর উপজেলা বিএনপির ১ম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমদ, জেলা বিএনপির সদস্য ওয়ারিছ আলী, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দুলাল রেজা, রুস্তম আলী, ইসলাম উদ্দিন, মোহাম্মদ আলী, জাকারিয়া, পাকি মিয়া, হায়াত উল্লাহ, এবি সিহাব, মিনহাজ পাঠান, আলীবুর রহমান, আব্দুল হাফিজ, মো. আবুল হাসনাত, এস কে শাহিন, মাসুদ আহমদ হেলাল, বাদশাহ মিয়া, আব্দুর রহমান, এনামুল হক, মাহবুবুর রহমান জুবায়ের, জৈন উদ্দিন। : এদিকে সিলেটের গোলাপগঞ্জে বিশেষ অভিযান চালিয়ে পুলিশ উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি মনিরুজ্জামান উজ্জলকে (৪৩) আটক করেছে। গতকাল সকালে পৌর চৌমুহনী থেকে এসআই শংকর দেব ফোর্স নিয়ে তাকে নাশকতার মামলায় আটক করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয় বলে ওসি শিবলী নিশ্চিত করেন। : এছাড়া ঢাকায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে যাওয়ার পথে গত মঙ্গলবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া লিংকরোড ও ফতুল্লার মুন্সিখোলা এলাকা থেকে দুটি যাত্রীবাহী বাসসহ আটকের ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জ জেলা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের ১৫৪ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা ও ফতুল্লা মডেল থানায় তাদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে আরও তিনটি মামলা দায়ের করে পুলিশ। সদর মডেল থানায় নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সভাপতি কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, যুবদল নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন মন্টিসহ ২৯ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৩৫ জনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন পুলিশের জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) শাখার এসআই মো. মুজিবুর রহমান। ফতুল্লা মডেল থানায় স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা রাব্বানীসহ ৩৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৩৫ জনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন পুলিশের জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) শাখার এসআই মো. মনিরুজ্জামান। অপরদিকে ফতুল্লা মডেল থানায় মুন্সিগঞ্জ জেলা যুবদলের সভাপতি হাজী সুলতান আহম্মেদসহ ২১ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন ফতুল্লা মডেল থানার এএসআই তাজুল ইসলাম। তিনটি মামলাতেই ককটেলের অংশবিশেষ ও ককটেল তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার দেখানো হয়েছে। : সূত্রমতে, ঢাকায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে যাওয়ার পথে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ফতুল্লার মুন্সিখোলায় ঢাকা-পাগলা-নারায়ণগঞ্জ সড়কে চেকপোস্ট এলাকা থেকে মুন্সিগঞ্জের দিঘীরপাড় নামক একটি পরিবহনসহ ২৯ জনকে আটক করে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। অপরদিকে, শহরের চাষাঢ়া লিংক রোড এলাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের ৪৮ জন নেতাকর্মীসহ একটি বোরাক পরিবহনের বাস আটক করে ডিবি পুলিশ। ওই ঘটনায় সদর মডেল থানা ও ফতুল্লা মডেল থানায় বিস্ফোরক আইনে পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। সদর মডেল থানায় ডিবি পুলিশের দায়েরকৃত মামলায় ঘটনাস্থল দেখানো হয়েছে শহরের চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকা। মামলার আসামিরা হলেন, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সভাপতি কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, যুবদল নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন মন্টি, রাসেল মাহমুদ, হযরত আলী, মোঃ রুবেল, আনোয়ার হোসেন, মো. রাব্বী, মো. রাজু, মো. ইমরান হোসেন, মো. আসাদুল ইসলাম, মো. আবু হানিফ, মো. বিল্লাল হোসেন, মো. মিঠু, মো. শান্ত, মো. মিজানুর রহমান, মো. রাজু, মো. ইয়াসিন মুন্সি, মো. মাহবুবুর রহমান, মো. সোহেল রানা, মো. রানা, মিজানুর রহমান, মো. হাসান, মো. বসার, মো. মাহফুজ, মো. চঞ্চল, মো. ইমদাদুল হক, মোশারফ হোসেন রুবেল, মো. রনি, বোরাক বাসের বাসের মালিক কাশেম মিয়াসহ অজ্ঞাত ৩৫ জন। ফতুল্লা মডেল থানায় ডিবি পুলিশের দায়েরকৃত মামলার ঘটনাস্থল দেখানো হয়েছে শিবুমার্কেট এলাকা। এ মামলার আসামিরা হলেন, মো. রানা, মো. হোসেন মিয়া, আনিছ আনসারী, মো. শরীফ, মো. আলমগীর, মো. আনোয়ার, মো. রনি, মো. মঞ্জুর, মো. হাবিব, সজিব মিয়া, মো. লিটন, মো. হৃদয়, মো. রাসেল, মো. বাবু, মো. রনি, মো. কামরুল ইসলাম, মো. আবীর, মো. রিয়াজ, মো. কাওছার মীর, মো. আজাদ, সোহাগ, মো. রব্বানী, হুমায়ন কবির, রকিবুর রহমান সাগর, অখিলউদ্দিন, জুয়েল রানা, আশিকুর রহমান অনি, ইয়াসিন, মো. শাহজালাল ভূইয়া, বাবু ভূইয়া, মোমেন ভূইয়া, বাদল ভূইয়াসহ অজ্ঞাত ৩৫ জন। ফতুল্লা মডেল থানায় পুলিশের দায়েরকৃত মামলার ঘটনাস্থল দেখানো হয়েছে ফতুল্লার মুন্সিখোলা এলাকা। আসামিরা হলেন, মুন্সিগঞ্জ জেলা যুবদলের সভাপতি হাজী সুলতান আহম্মেদ, বাদল মিয়া, আবু তাহের, জাহাঙ্গীর হোসেন, আশরাফুল ইসলাম, শামীম, সালামত গাজী, সানাউল্লাহ, রবিউল আউয়াল, জসিম উদ্দিন, হাবিব, শানু মিয়া, সাহেব আলী, মিজানুর রহমানসহ ২১ জন। তাদের সকলের বাড়ি মুন্সিগঞ্জ সদর থানা এলাকায়। সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম ও ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর কাদের পৃথক তিনটি মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। : বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এক বিবৃতিতে সমাবেশের আগে পরে এ পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্যমতে গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের তালিকা তুলে ধরেন। : নারায়ণগঞ্জ জেলা : বিএনপির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা শাখার যুবদল নেতা রিয়াদ হোসেন ও আতাউর রহমান গ্রেফতার। ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) ঃ জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল সভাপতি এস এম জিলানী গ্রেফতার, বংশাল থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মামুনকে গ্রেফতার করে প্রচন্ড মারধর করে পা ভেঙ্গে দিয়েছে পুলিশ। বিএনপি নেতা আব্দুল আজিজ স্বপন গ্রেফতার। কলাবাগান থানা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক মো: রনি গ্রেফতার। গাজীপুর মহানগর ঃ স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি গাজী সালাহ উদ্দিন। গাজীপুর জেলা ঃ কালিগঞ্জের ছাত্রদল ও যুবদলের কয়েকজন নেতা যথাক্রমে আব্দুল্লাহ, বায়েজিদ এবং মোঃ জাকির হোসেনসহ ৪ জন নেতাকর্মী। চট্টগ্রাম মহানগর ঃ মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জমির উদ্দিন নাহিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া। ফেনী জেলা ঃ দাগনভূঁইয়া থানা ছাত্রদলের সদস্য সচিব কাজী ফটিক। নাটোর জেলা ঃ জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি মোঃ আফজাল হোসেন এবং বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান। রংপুর মহানগর ঃ মহানগর যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আক্কাস আলী, যুবদল সদস্য মোঃ আলম, ইয়াসিন, মহানগর ছাত্রদলের সহ-সভাপতি সুমনসহ ৬ জন নেতাকর্মী। টাঙ্গাইল জেলা ঃ টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুর রহমান খান শফিক এবং মির্জাপুর উপজেলা যুবদল নেতা মিয়াজ উদ্দিনসহ শতাধিক নেতাকর্মী। কুষ্টিয়া জেলা ঃ বিএনপি নেতা খোকন, পৌর বিএনপির সভাপতি কুতুব উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি জিল্লুর রহমান, ছাত্রদলের সদস্য রবিউল, রাব্বি, বাগেরহাট জেলা ঃ চিতলমারী উপজেলা বিএনপির সভাপতি দুলু বিশ^াস, সিনিয়র সহ-সভাপতি জাহিদুর রহমান। মেহেরপুর জেলা ঃ যুবদল নেতা রাশেদুজ্জামান বাপ্পী। ঢাকা মহানগর (উত্তর) ঃ আদাবর থানা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, খিলক্ষেত থানাধীন ডুমনী ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক নজরুল ইসলাম মেম্বার। নারায়ণগঞ্জ মহানগর ঃ পাইকপাড়া ১৭ নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি আবু হোসেন সরদার, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হোসেন কাজল, যুবদল নেত ফারুক আহমেদ, নারায়ণগঞ্জের রুপগঞ্জ উপজেলা যুবদল নেতা শাহীন, আশরাফুল, মোশারফ, আশিক ও আউয়ালকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ছাত্রদল নেতা আজাদ, মামুন, সাগরসহ ৩৭ জনের অধিক নেতাকর্মী গ্রেফতার। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ঃ রামনাইল ইউনিয়ন বিএনপি সভাপতি মো: আবু হানিফ অলি, ১নং ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন, জেলা বিএনপির সম্পাদক মো: শাহ আলম, নাটাই ইউনিয়ন ছাত্রদল সভাপতি মো: আরিফ, সুলতানপুর ইউনিয়ন ছাত্রদল সভাপতি মো: লিটন, জেলা যুবদলের সহ-সম্পাদক বায়েজিদ আহম্মেদ হেলাল, নাটাই ইউনিয়ন ছাত্রদল সহ-সভাপতি আল আমিন, নাটাই (দক্ষিণ) ইউনিয়ন ছাত্রদল সভাপতি মো: আনোয়ার, সহ-সভাপতি ফরিদ আহমেদ, সরাইল উপজেলা বিএনপির যুব বিষয়ক সম্পাদক জিল্লু মাষ্টার, সরাইল উপজেলা যুবদল সহ-সভাপতি শাহেদ আলম, যুগ্ম সম্পাদক আহাদ মিয়া, : সরাইল উপজেলা ছাত্রদল সহ-সভপতি মনির হোসেন, আখাউড়া উপজেলা শ্রমিক দল সাধারণ সম্পাদক মো: মামুন মিয়া, পৌর বিএনপি নেতা মো: এলাহী মিয়া। মুন্সীগঞ্জ জেলা ঃ সিরাজদিখান উপজেলা উপজেলা বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মো: ওয়াসিম শেখ এবং যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুর রহমান রানাসহ সমগ্র জেলা থেকে ২০/২৫ জন নেতাকর্মী। ময়মনসিংহ জেলা ঃ গফরগাঁও উপজেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক মোঃ শাহজাহানসহ ৫ জন নেতাকর্মী, পাগলা থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা মনির, যুবদল নেতা রুবেল, জসিম, শ্রমিক দল নেতা পারভেজসহ ২০ জন গতকাল সকালে কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে গ্রেফতার। গৌরীপুর উপজেলা বুগাইনগর ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান, ময়মনসিংহ উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সম্পাদক এমরান হোসেন, পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোতালেব এবং সদস্য এমদাদ ও বুলবুল ১০ জনের অধিক নেতাকর্মীকে গতকাল গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এছাড়া বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আফজাল এইচ খানসহ ৪৩ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে এবং বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্সসহ ৪৪ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। বাড়িতে বাড়িতে তল্লাশির নামে পুলিশি তান্ডব চালানো হচ্ছে। জামালপুর জেলা ঃ স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা একরাম হোসেন মানিক, মেলান্দহ উপজেলা যুবদল নেতা মঞ্জুরুল আলম এবং জামালপুর পৌর ছাত্রদল নেতা বিপ্লব, রোকন ও লিমনকে আজ সকালে কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে গ্রেফতার। মানিকগঞ্জ জেলা ঃ জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তোজাম্মেল হোসেন তোজাসহ ৪ জন গ্রেফতার। কিশোরগঞ্জ জেলা ঃ জেলা শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক দিদারুল হক গ্রেফতার। টাঙ্গাইল জেলা ঃ সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির শিশু বিষয়ক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, ভুয়াপুর কলেজ ছাত্রদল নেতা রনি, জুয়েল, ভুয়াপুর পৌর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মো: আলমগীর, ছাত্রনেতা জুলমান, ইকবালসহ ২০ জন নেতাকর্মীকে গতকাল গ্রেফতার করেছে পুলিশ। : ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) ঃ বিএনপি নেতা আব্দুল আজিজ স্বপন, পল্টন যুবদল নেতা ফজলুল হক মনি গ্রেফতার। গাজীপুর জেলা ঃ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও কালিকাকৈর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো: হেলাল উদ্দিন, জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি সাধন মাহমুদ তমিজ ও মো: আবু রায়হান, যুবনেতা রিয়াজ উদ্দিন, এস এম শাহীন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি শিবলু বকশী, কালিয়াকৈর পৌর বিএনপির সদস্য হাজী আকরাম, ছাত্রদল নেতা ফিরোজ, ফারুককে গতকাল সমাবেশ থেকে ফেরার পথে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। বাগেরহাট জেলা ঃ জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি লিয়াকত সর্দার এবং সদর উপজেলা শ্রমিক দলের যুগ্ম আহবায়ক মো: আবদুস সালামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নরসিংদী জেলা ঃ যুবদল ইউনিয়ন সভাপতি হারুন অর রশীদ, সদস্য নাসির উদ্দিন, রাজিবসহ ২৫ জন নেতাকর্মী গ্রেফতার। জাসাস ঃ মিরপুর থানা শাখার সভাপতি আনোয়ার হোসেন আনু, শিল্পাঞ্চল থানা শাখার সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বিটু, মুগদা থানা শাখার সভাপতি নিয়ামত উল্লাহ গ্রেফতার। ঢাকা জেলা ঃ দোহার উপজেলা যুবদল নেতা আলমাস, ফারুক, নুর আলম, রিপন, আলামিন, খলিলসহ ১৩ জনকে মাইক্রোবাসসহ গ্রেফতার করে। কেরানীগঞ্জ দক্ষিণ যুবদলের নেতা হাবিব, আরিফ, কামরুলসহ ৫ জন, সাভার পৌর যুবদলের নেতা আজাহার ইসলাম, ধামরাই যুবদলের নেতা টুটুল, ইমরান, হাসান, মেহেদী, ফয়সাল, তন্ময়, হারুন, বাবুল, ফারুক, আবুল, মোস্তফা, মিলন ও সজলসহ ১৫ জন নেতাকর্মী গ্রেফতার। নারায়ণগঞ্জ মহানগর ঃ বিএনপি নেতা মিজানুর রহমান গ্রেফতার আড়াইহাজার উপজেলা ছাত্রদল নেতা জাকির হোসেন শামীম গ্রেফতার। ঢাকা মহানগর ঃ তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল শ্রমিক দলের নেতা জসিম, হৃদয়, মোস্তফা, হাসানসহ ২৩ জন নেতাকর্মী গ্রেফতার। চাঁদপুর জেলা ঃ হাজিগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতা মানিক ও রেফায়েত উল্লাহ গ্রেফতার। বরিশাল জেলা ঃ গৌরনদী পৌর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হোসেন মো: তুষার, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি তাইফুর রহমান কচি, বরিশাল জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শোনান মাহমুদ, খালিদ মাহমুদসহ ১০ জনের অধিক নেতাকর্মী গ্রেফতার। যুবদল ঃ কেন্দ্রীয় কমিটির দফতর সম্পাদক কামরুজ্জামান দুলালকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। যুবদল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের শ্যামপুর থানা শাখার যুগ্ম আহবায়ক মো: হাফিজুর রহমান গ্রেফতার। ওলামা দল ঃ ওলামা দল নেতা মাওলানা নজরুল ইসলামকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। উপরোল্লিখিত নেতাকর্মীসহ গত দুদিনে দেশব্যাপী ৮০০ জনের অধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। : : দিনকাল রিপোর্ট :

শেয়ার করুন