দিনে দুপুরে কলেজছাত্র খুন, মা গুলিবিদ্ধ

0
456
Print Friendly, PDF & Email

কালীগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের দিনে দুপুরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মো. নয়ন মিয়া (২২) নামে এক কলেজছাত্র খুন হয়েছেন। এ সময় তার মা ইয়াসমিন (৪৩) গুলিবিদ্ধ হন।

বুধবার ১১টার দিকে উপজেলার নাগরী ইউনিয়নের কালীকোটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মো. নয়ন মিয়া একই এলাকার ঠিকাদার মো. নবী হোসেনের ছেলে। তিনি ঢাকার তিতুমীর সরকারী কলেজের স্নাতক (পাস কোর্সের) প্রথম বর্ষের মানবিক বিভাগের ছাত্র ছিলেন।

নিহতের বাবা নবী হোসেন বাংলামেইলকে জানান, বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তারা বাবা-ছেলে একসঙ্গে সকালের খাবার খেয়ে তিনি কাজের উদ্দেশে বের হয়ে যান। কিছুক্ষণ পর খবর আসে স্থানীয় ইমান আলী ও সালাউদ্দিনের নেতৃত্বে ১৪-১৫ জন সশস্ত্র লোক তাদের বাড়িতে গিয়ে ছেলে নয়ন ও তার মা ইয়াসমিনকে রামদা-চাপাতি দিয়ে কোপায়। এ সময় হামলাকারীরা পিস্তলের গুলি ছুঁড়লে ইয়াসমিন গুলিবিদ্ধ হন এবং আহতাবস্থায় নয়ন দৌড়ে পাশে তার নিকটাত্মীয় মো. শহিদুল্লাহর বাড়ি আশ্রয় নেয়।

তিনি আরও জানান, এ সময় সন্ত্রাসীরা তার পিছু ছুটে এবং ওই বাড়িতে গিয়ে আবারও নয়নের মাথায় দুই রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসি তাদের উদ্ধার করে ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক নয়নকে মৃত ঘোষণা করেন। তার মা সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন। নয়নের মায়ের শরীরে বিভিন্ন অংশে জখমের চিহ্ন ছাড়াও তার বাম হাতের অধিকাংশ অংশ কেটে ফেলেছে সন্ত্রাসীরা।

নবী হোসেন জানান, দীর্ঘদিন ধরে কারীকুটি এলাকায় তার শ্বশুরের দেয়া জায়গায় বাড়ি করে তারা বসবাস করছেন। ৬-৭ মাস আগে তার চাচাতো শ্বশুরের ছেলে ইমান আলী তাদেরকে ওই জায়গা ছেড়ে দেয়ার জন্য একাধিকবার হুমকি দিয়েছিলেন। এ নিয়ে স্থানীয় গণ্যমান্যরা একাধিকবার সালিস করে মিমাংসাও করে দিয়েছিলেন। কিন্তু তারপরও ইমান আলী ও তার লোকজন তার স্ত্রী-সন্তানের ওপর হামালা চালায়।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বাংলামেইলকে জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ ঘটনাটি ঘটছে বলে প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে এ ঘটনায় এখনও কাউকে আটক করা হয়নি বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন