রাবি ছাত্রদল সভাপতি-সম্পাদকসহ আটক ১৭

0
60
Print Friendly, PDF & Email

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্রদলের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতিসহ সংগঠনটির ১৭ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। রোববার রাত সাড়ে আটটার দিকে নগরের মির্জাপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে তাদের আটক করা হয়। গোপন বৈঠকে নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগে তাদের আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। অপরদিকে ছাত্রদলের দাবি, একটি সাংগঠনিক বৈঠকের সময় আওয়ামী লীগের-ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ঘিরে ধরলে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। আটককৃদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের সভাপতি ইমতিয়াজ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুলতান আহমেদ রাহী ও ৩০ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি নাজমুল হক, আইন অনুষদের আহ্বায়ক আল-আমিন আজাদ, কর্মী জাকারিয়া আহমেদ জনি রয়েছেন। পুলিশ ও ছাত্রদল সূত্রে জানা যায়, রোববার রাত সাড়ে আটটার সময় নগরের মির্জাপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা বৈঠক করছিলেন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কর্মী বনি, রাসেলসহ বেশ কয়েকজন তাদের ঘিরে ফেলে। খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আরও কয়েকজন নেতাকর্মী ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও তাদের সঙ্গে যোগ দেয়। এ সময় ছাত্রদলের কয়েকজন নেতাকর্মীকে চর-থাপ্পরও মারেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ছাত্রদলের ১৬ জন নেতাকর্মী ও এক বিএনপি নেতাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এ প্রসঙ্গে নগরীর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন বাংলামেইলকে বলেন, ‘ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা গোপন বৈঠকে বসে নাশকতার পরিকল্পনা করছিলেন। এলাকাবাসী টের পেয়ে তাদের ঘিরে রাখে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গিয়ে তাদের আটক করে নিয়ে আসে।’ এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের সভাপতি ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘আমরা ওই স্কুলে একটি সাংগঠনিক বৈঠক করছিলাম। সেখানে ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আমাদের ঘিরে ফেলে। পরে পুলিশ সেখানে এসে আমাদের ‘মুচলেকা’ দিয়ে ছেড়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে থানায় এনে আটকে রেখেছে।’ ছাত্রলীগ কর্মী বনি জানান, ‘ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা সেখানে গোপন বৈঠকে নাশকতার পরিকল্পনা করছিল। আমরা বিয়ষটি টের পেয়ে পুলিশকে খবর দেই।’

শেয়ার করুন