বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্ক সহযোগিতার : মার্কিন দূতাবাস

0
34
Print Friendly, PDF & Email

ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস জানিয়েছে, বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্ক সহযোগিতার। দুই দেশের সম্পর্ক অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে সুদৃঢ় হয়েছে। প্রসঙ্গত, দৈনিক ইনকিলাবে আজ রবিবার ‘প্রধানমন্ত্রীর অভিযোগ মার্কিন দূতাবাসের অস্বীকার-বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কে গুরুতর টানাপড়েন’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রথম প্যারায় একস্থানে ‘একই দিন রাতে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস থেকে জারিকৃত এক তথ্য বিবরণীতে প্রধানমন্ত্রীর অভিযোগ নাকচ করা হয়’ বলে প্রকাশিত হয়েছে। এ ব্যাপারে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস জানিয়েছে, ‘এ বিষয়ে দূতাবাসের পক্ষ থেকে কোন তথ্য বিবরণী দেয়া হয়নি। তবে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাসের মুখপাত্র মনিকা এল শাই কথা বলেন।’উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সাম্প্রতিক মালয়েশিয়া সফর সম্পর্কে অবহিত করতে গত শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে আলোকপাত করেন। এসময় যুক্তরাষ্ট্রের ওই সময়ের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্দেশে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট বোর্ডের অনুমোদন ছাড়াই পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করে দিয়েছিলেন বলেও অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। এর প্রেক্ষিতে গত ৬ ডিসেম্বর দৈনিক যুগান্তরে ‘প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য নাকচ করেছে যুক্তরাষ্ট্র’ শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধ করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাব খাটানোর অভিযোগ নাকচ করেছে ঢাকায় মার্কিন দূতাবাস। ঢাকায় মার্কিন দূতাবাসের মুখপাত্র মনিকা এল শাই শুক্রবার রাতে যুগান্তরকে বলেন, সত্যিকার ঘটনা হল- বাংলাদেশের উন্নয়ন এবং আঞ্চলিক কানেকটিভিটির গুরুত্ব অনুধাবন করে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পকে সামনে এগিয়ে নিতে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে বিশ্বব্যাংকের কাজ করার একটা উপায় খুঁজে পাওয়ার জোরালো প্রবক্তা ছিল যুক্তরাষ্ট্র। মনিকা অবশ্য যুক্তরাষ্ট্র কীভাবে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে পদ্মা সেতু প্রকল্প নিয়ে এগিয়ে যেতে চেষ্টা করেছে সে বিষয়ে বিস্তারিত কোনো বর্ণনা দেননি।এদিকে গতকাল দৈনিক প্রথম আলোতে ‘প্রধানমন্ত্রীর অভিযোগ : সরাসরি প্রতিক্রিয়া নেই যুক্তরাষ্ট্রের’ এবং ডেইলি স্টারে ‘টাইজ স্ট্রঙ্গার উইথ ঢাকা : সেইজ ইউএস আফটার পিএম রিমার্কস’ শিরোনামে প্রকাশিত পৃথক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ও পদ্মা সেতুর অর্থায়নে যুক্তরাষ্ট্রের নেতিবাচক ভূমিকা ছিল বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে অভিযোগ করেছেন, সে সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি ঢাকার মার্কিন দূতাবাস। তবে দুই দেশের সম্পর্ক অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে সুদৃঢ় হয়েছে বলে তারা দাবি করেছে। এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে মার্কিন দূতাবাসের মুখপাত্র মনিকা সাই গতকাল শনিবার ই-মেইলে প্রথম আলো এবং ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘দুই দেশের জনগণের স্বার্থে বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের অংশীদারিত্ব অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় এখন আরও সম্প্রসারিত, নিবিড় ও শক্তিশালী।’ তবে প্রধানমন্ত্রীর করা অভিযোগের বিষয়ে মার্কিন মুখপাত্র প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সঙ্গেই যোগাযোগের পরামর্শ দেন।

শেয়ার করুন