ইরাক ফেরত ২২ জনের অবস্থান কর্মসূচি

0
73
Print Friendly, PDF & Email

বিচার ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে আজ রোববার সকাল থেকে রাজধানীর প্রবাসীকল্যাণ ভবনের সামনে অবস্থান নিয়েছেন ইরাক ফেরত ২২ বাংলাদেশি। রাত নয়টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাঁদের কর্মসূচি চলছিল।

তাঁদের অভিযোগ, ইরাকে চাকরি দেওয়ার নাম করে চারটি জনশক্তি রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান তাঁদের সঙ্গে প্রতারণা করেছে।

তাঁরা অভিযোগ করেন, ২০১৩ সালের শুরুতে চারটি জনশক্তি রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান মেঘনা ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল, মর্নিং সান এন্টারপ্রাইজ, ইস্ট বেঙ্গল ওভারসিজ ও আইডিয়া ইন্টারন্যাশনাল এবং বেসরকারি সংস্থা বাংলাদেশ মাইগ্রেন্ট ফাউন্ডেশন (বিএমএফ) ২৭ জন বাংলাদেশিকে ইরাকে পাঠায়। তাঁরা ভালো চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে একেকজনের কাছ থেকে তিন থেকে চার লাখ টাকা নেয়। কিন্তু ইরাকে গিয়ে কেউ কোনো কাজ পাননি। উল্টো নানাভাবে নির্যাতনের শিকার হন। পরে তাঁরা দেশে ফিরে আসতে বাধ্য হন।

ইরাক ফেরত ব্যক্তিরা জানান, দেশে ফেরার পর মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন-২০১২-এর অধীনে মামলা দায়ের করেন তাঁরা। কিন্তু এখনো ক্ষতিপূরণ পাননি। এর মধ্যে মন্ত্রণালয় তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় ১৭ ফেব্রুয়ারি জনশক্তি রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানগুলোর লাইসেন্স বাতিল ও জামানত বাজেয়াপ্তসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা কেন গ্রহণ করা হবে না, মর্মে নোটিশ দেয়। কিন্তু পাঁচ মাস পার হলেও আর কোনো অগ্রগতি নেই।

‘প্রতারিত’ ২২ জনের পক্ষে মোজাম্মেল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘ন্যায়বিচার ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে আমরা এর আগে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছি। সবার কাছে আবেদন দিয়েছি। মন্ত্রী দ্রুত ন্যায়বিচার ও ক্ষতিপূরণ প্রদানে আশ্বাস দিলেও আজ পর্যন্ত বিচার পাইনি। তাই বাধ্য হয়ে আমরা অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেছি।

শেয়ার করুন