‘আগে তো আলোচনা হোক’…

0
30
Print Friendly, PDF & Email

৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পশ্চিমা রাষ্ট্রগুলো এক রকম সমালোচনামুখরই ছিল। নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যুক্তরাজ্য সফরে আবারও কি উঠবে একই প্রসঙ্গ—এ নিয়ে বিভিন্ন স্তরে আলোচনা আছে। আজ রোববার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীও সংবাদ সম্মেলনে একই প্রশ্নের মুখোমুখি হয়েছেন। উত্তরে বলেছেন, ‘আগে তো আলোচনা হোক’।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল সোমবার ২০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল নিয়ে যুক্তরাজ্য সফরে যাচ্ছেন। সেখানে তিনি আগামী ২২ জুলাই থেকে শুরু হওয়া ‘গার্ল সামিট’ শীর্ষক সম্মেলনে যোগ দিবেন। এর আয়োজক যুক্তরাজ্য ও ইউনিসেফ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী আজ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন,  বাংলাদেশে কন্যাশিশুদের উন্নয়নে সরকারের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব নেতৃত্বকে অবহিত করবেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ মুহূর্তে ১৫-১৮ বছর বয়সী কন্যাশিশুদের ৩২ শতাংশের বিয়ে হয়ে যাচ্ছে। এতে করে তারা নানা সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে।

তবে সংবাদ সম্মেলনে বাল্যবিবাহ নিয়ে সরকারের বক্তব্য ও ইউনিসেফের তথ্যে গরমিল রয়েছে। ইউনিসেফ বলছে, ১৮ বছরের আগে বাংলাদেশের প্রায় ৬২ শতাংশ মেয়ের বিয়ে হয়ে যাচ্ছে। ইউনিসেফ, ইউএনএফপিএসহ জাতিসংঘ পরিবারভুক্ত প্রতিষ্ঠান, সরকার ও বেসরকারি সংস্থাগুলো বাল্যবিবাহ রোধ করাকে বাংলাদেশের জন্য বিরাট চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছে।

এ দিকে কন্যাশিশু বিষয়ে সম্মেলনটির আয়োজন হলেও এই সফর অন্য কারণেও গুরুত্বপূর্ণ। সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এটিই প্রথম পশ্চিমা কোনো দেশে সফর। সাংবাদিকেরা এ সময় প্রশ্ন তোলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে যুক্তরাজ্য নির্বাচনের সমালোচনা করেছে। এখন এই সফর ও ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়টিকে সরকার কীভাবে দেখে? উত্তরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আগে তো আলোচনা হোক। নির্বাচনের পর ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে এটিই প্রথম বৈঠক।’

এর আগে শেখ হাসিনার সঙ্গে যেন ডেভিড ক্যামেরন দেখা না করেন, সে অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছিল লন্ডন বিএনপি। এ ব্যাপারে তাঁর প্রতিক্রিয়া কী—জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘তাঁরা চিঠি দিয়েছেন, এটুকু আপনারা জানেন। সংসদে তাঁদের প্রতিনিধিত্ব নেই। বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেয়নি। কী উত্তর পেয়েছে, সে ব্যাপারে কি আমরা জানি?’

বিএনপি কালো পতাকা ও বিক্ষোভ প্রদর্শন করার যে হুমকি দিয়েছে, সে ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, গণতান্ত্রিক দেশে গণতান্ত্রিক পন্থায় যে কেউ বিক্ষোভ করতেই পারে। কিন্তু এ দেশে তারা যেভাবে জ্বালাও-পোড়াও করেছে, ওখানে সেসব কিছু করতে পারবে না।

ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় কোন বিষয়গুলো উঠে আসবে—জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী জানান, সহযোগিতামূলক সব বিষয়ই আলোচনা হতে পারে। ভিসা প্রক্রিয়ার জটিলতা, কাজে নিয়োগ পাওয়া ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আলোচনা হতে পারে।

এ দিকে লেবাননের রাষ্ট্রদূতকে তলব প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, তাঁকে আগেও সতর্ক করা হয়েছিল। শৃঙ্খলা আনতে পারেননি বলেই ফেরত আনা হচ্ছে। তাঁর ব্যাপারে বিভাগীয় তদন্তও শুরু হয়েছে।

শেয়ার করুন