বরেন্দ্র অঞ্চলের কৃষিতে নতুন সংযোজন নওগাঁর সাপাহারে পতিত জমিতে মুগডাল চাষ

0
259
Print Friendly, PDF & Email

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর সাপাহার উপজেলায় চলতি মৌসুমে পরীক্ষা মূলক ভাবে প্রায় ৭০ হেক্টর অনাবাদী পতিত জমিতে মুগডাল চাষাবাদ করা হয়েছে৷
নওগাঁ জেলার ঠাঁঠা বরেন্দ্র এলাকা হিসেবে সীমান্তবর্তী সাপাহার উপজেলা দেশবাসীর নিকট বেশ পরিচিত৷ এ উপজেলার শুস্ক এটেঁল অনাবাদী পতিত মাটিতে খরা মৌসুমে গভীর নলকুপ সহ পানির বিভিন্ন উত্‍স থেকে সেচ দিয়ে অল্প খরচে গম ফসলের চাষাবাদ করে আসছে৷ বিগত দিনে চাষিরা অধিক লাভের আশায় আমন ধান কাটার পর ওই জমিতে তরমুজের চাষাবাদ করে আসছিল৷ পর পর কয়েক বছর ধরে আবহাওয়া জনিত কারনে তরমুজের ফলন বিপর্যয় হয় ফলে উপজেলার কৃষকগণ অর্থনৈতিক ভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়ে৷ পরবর্তী সময়ে ক্ষতি পুশিয়ে নিতে চাষিরা তরমুজ চাষাবাদ বাদ দিয়ে অল্প খরচে গম চাষাবাদে ঝুঁকে পড়ে৷ ফলে এ উপজেলায় ব্যপক হারে গমের চাষাবাদ শুরু হয়৷ গম কেটে নেওয়ার পর ওই জমি গুলো প্রায় ৩-৪ মাস ধরে পতিত পড়ে থাকে৷ বিপুল পরিমানের এ পতিত জমি গুলো হতে কৃষকগণ কি ভাবে অল্প সময়ে আবার ফসল উত্‍পাদন করে অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হতে পারে এমন সময় উপযোগী উদ্যেগ গ্রহণ করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: রুহুল আমিন মিঞা ও উপজেলা কৃষি অফিসার এএফএম গোলাম ফারুক হোসেন৷ বরেন্দ্র এলাকার পতিত জমি গুলোতে মুগডাল চাষাবাদ করার লক্ষে বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষনা ইনিষ্টিটিউট হতে উন্নত জাতের বিণা মুগ-৮ ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষনা ইনিষ্টিটিউট হতে বারি মুগ-৬ জাতের মুগ ডালের বীজ সংগ্রহ করেন৷ চলতি মৌসুমে উপজেলায় প্রাথমিকভাবে চাষিদের মাঝে বিনা মুল্যে এ বীজ গুলো সরবরাহ দেওয়া হয়৷ এ উপজেলার পতিত ৭০ হেক্টর জমিতে এবার মুগডালের চাষাবাদ করা হয়েছে যার উত্‍পাদন লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় ৮৪ মেঃ টন৷ উপজেলা কৃষি অফিসার এএফএম গোলাম ফারুক হোসেন জানান, এ বছর উত্‍পাদিত মুগডাল ৰীজ হিসেবে কৃষক পর্যায়ে সংরক্ষন করা হবে৷ আগামী বছর তা বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে বিতরণ করে মুগডাল চাষাবাদ সমপ্রসারণ করা হবে৷ বর্তমান আষাঢ় মাস আমন ধান চাষাবাদের জন্য জমি তৈরীর উপযুক্ত সময় এখন তাই উপজেলার মুগডাল চাষিরা জমি থেকে মুগডাল ফসল সংগ্রহে খুব ব্যস্ত সময় পার করছে৷

শেয়ার করুন