শিল্পের স্বার্থে জমি আইন বদলের চিন্তা মোদির

0
66
Print Friendly, PDF & Email

ভারতে সরকার গঠন করেছেন সবে এক মাস হয়েছে। এর মধ্যেই শিল্পের জন্য জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া সহজ করতে ইউপিএ জমানায় তৈরি জমি আইন বদলের চিন্তা করছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

শুক্রবার কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী নিতিন গডকড়ীর সঙ্গে বিভিন্ন রাজ্যের রাজস্বমন্ত্রীদের বৈঠক হয়। সেখানেই সুনির্দিষ্ট ভাবে প্রস্তাবনাগুলো উঠে আসে। গডকড়ী বলেন, রাজ্যগুলির মনোভাব জানার পর দশ দিনের মধ্যে সংশোধন বিলের খসড়া তৈরি করবে সরকার। আসন্ন বাজেট অধিবেশনে তা পেশ করা হবে।

জমি প্রশ্নে শিল্পমহলের মনোভাব মাথায় রেখেই নতুন জমি আইনটি বদলাতে উদ্যোগী হয়েছেন মোদি। এই পরিবর্তনের ফলে শিল্পের জন্য জমি অধিগ্রহণে সরকারের এখতিয়ারের কথা ভাবা হচ্ছে। এছাড়া সামাজিক সুরক্ষার দিকটিও সংশোধন করে বাস্তবমুখী করতে চাইছে কেন্দ্রীয় সরকার।

সরকারি সূত্র জানায়, অধিগ্রহণের আগে যে ‘সামাজিক প্রভাব’ সমীক্ষা করার কথা ইউপিএ-র তৈরি আইনে বলা হয়েছে, তার ধারাগুলি শিথিল করা হবে। রেট্রোস্পেকটিভ ধারা বিলোপ করা হবে। রেট্রোস্পেকটিভ বা পূর্বাপর ধারা অনুযায়ী, নতুন আইন চালু হওয়ার আগে যে সব জমি অধিগ্রহণের নোটিসই শুধু জারি হয়েছিল, কিন্তু প্যাকেজ ঘোষণা হয়নি, তারা নতুন আইন মোতাবেকই প্যাকেজ পাবে।

এদিকে এমন সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। তারা বলছে, পশ্চিমবঙ্গ নিজস্ব জমি নীতি তৈরি করেছে। সরকারি প্রকল্প হোক বা বেসরকারি প্রকল্প। জোর করে এক ছটাক জমিও অধিগ্রহণ করবে না তারা। তারা মনে করছে, এই ধারা বলবৎ থাকলে বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের জন্য রাজ্যের খরচ বাড়বে প্রায় ১০ হাজার কোটি রুপি। সে কারণে ওই ধারাটি বাতিল করতে চায় কেন্দ্র।

বর্তমান জমি আইনটি ভেঙে দিয়ে অধিগ্রহণ ও পুনর্বাসনের জন্য দু’টি আলাদা আইন প্রণয়নের কথাও ভাবা হচ্ছে। কিন্তু শিল্পমহলের দাবি সত্ত্বেও বর্তমান বিলে পুনর্বাসন ও ক্ষতিপূরণের যে শর্ত রয়েছে, তা প্রথমেই অনেকটা সহজ করার ঝুঁকি নিতে চাইছে না বিজেপি সরকার। এই সংশোধনীর ফলে রাজনৈতিক পরিস্থিতি যাতে গোলাটে না হয় সেজন্য মেপে পা ফেলতে চাইছেন মোদি। তাই আইনে সংশোধনের প্রস্তাব দিলেও ক্ষতিপূরণ প্যাকেজে যে কোনও বদল হবে না, তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন গডকড়ী। সূত্র: আনন্দবাজার

শেয়ার করুন