কলাপাড়ায় মাছের ঘের নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১০

0
341
Print Friendly, PDF & Email

মাছের ঘের নিয়ে বিরোধের জের ধরে সালাউদ্দিন নামে এক ছাত্রলীগ কর্মীর পায়ের রগ কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

এ ঘটনায় সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় মোটরসাইকেল ভাঙচুরসহ মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার চাকামইয়া ইউনিয়নের নিশানবাড়িয়া গ্রামে বৃহস্পতিবার দিনগত রাতে।

ডান পায়ের রগ কাটা অবস্থায় সালাউদ্দিনকে শুক্রবার সকালে গুরুতর অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্য আহতদের মধ্যে সাইফুর জমাদ্দার, আছিয়া বেগম, লাবনী আক্তার ও সাইদুর রহমানকে কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অপরদিকে, মোক্তার হোসেন, জব্বার হোসেন, রাসেল ও মাসুম খানকে পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, একই ইউনিয়নের মোকলেস খান ও বজলুর রহমান বদু তালুকদারের সঙ্গে প্রায় ১০ একর জমি নিয়ে দীর্ঘ ২০ বছর বিরোধ ও মামলা চলছিল। এই জমি দুই মাস আগে মোকলেস খানের কবল থেকে দখলে নেয় বদু তালুকদার। এরপর বৃহস্পতিবার গভীর রাতে মোকলেস ওই জমি দখলে নেওয়ার জন্য এ হামলা চালায়।

এব্যাপারে বজলুর রহমান বদু তালুকদার বাংলানিউজকে জানান, ২০ বছর আগে চাকামইয়ার নিশানবাড়িয়া গ্রামের সুনীল মণ্ডলের কাছ থেকে প্রায় ১০ একর জমি ক্রয় করি। সেই জমি এনিমি সম্পত্তি হওয়ার সুযোগে মোকলেস খান ডিসিআর কেটে দখলে নেয়। ওই জমি নিয়ে পটুয়াখালী জজ আদলতে মামলা চলছিল।

আদালতের রায়ের ভিত্তিতে প্রায় একমাস আগে জমিটি দখলে নিয়ে মাছের ঘের ও বসতি স্থাপন করি। এরপর বৃহস্পতিবার গভীর রাতে প্রতিপক্ষ সশস্ত্র অবস্থায় হামলা চালিয়ে বসতঘর ভাঙচুর, লুটপাট করে তার ছেলেকে হত্যার চেষ্টা চালায়।

এব্যাপারে মোকলেসুর রহমানের ভাই আ. ছত্তার বাংলানিউজকে জানান, ওই জমি আমরা প্রায় ৪০ বছর ধরে সরকারের কাছ থেকে ডিসিআর গ্রহণ করে ভোগ দখল করেছি। বদুল তালুকদার কিছুদিন আগে সন্ত্রাসীদের নিয়ে ওই জমি দখল করে নেয়। এঘটনার জের ধরে বৃহস্পতিবার রাতে উভয়পক্ষের মধ্যে সংর্ঘষ বাধে।

কলাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসএম মাসুদুজ্জামান বাংলানিউজকে জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ঘটনাস্থল পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন