পর্তুগালের বিষণ্ণ জয়

0
38
Print Friendly, PDF & Email

জয়ের পরও ম্যাচ শেষে বিষণ্ণতা ভর করলো রোনালদোর চোখে। সেই দৃশ্য হয়তো ছুঁয়ে গেল কোটি কোটি ভক্তের হৃদয়। দুরুহ এক সমীকরণ জয় করে পরবর্তী পর্বে যাবার যে স্বপ্ন বুকে নিয়ে মাঠে নেমেছিল পর্তুগাল তা পূরণ হলো না। ঘানার বিপক্ষে জয় নিয়েও উৎসব করা হলো না তাদের। পরবর্তী পর্বে পাড়ি জমানো হলো ঘানারও। বৃহস্পতিবার ব্রাসিলিয়ার এস্তাদিও ন্যাশনাল ডি ব্রাসিলিয়া স্টেডিয়ামে দুই দলের লড়াইটা থামল পর্তুগালের ২-১ ব্যবধানের বিষণ্ণ জয়ের মধ্যে দিয়েই।

অনাকাঙ্খিত হোক বা কাঙ্খিতই হোক, বিদায়তো বিষাদেরই। দ্বিতীয় পর্বে পাড়ি দেয়ার সমীকরণটা জটিল ছিল পর্তুগিজদের জন্য। তাই বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায়ের মুহূর্তটা বিষাদময় স্মৃতি হয়ে থাকবে সেলেসাও দ্যস কুইনাসদের জন্য। যদিও পুরো ম্যাচজুড়ে ছিলো পর্তুগিজদের আধিপত্য, তবুও হলো না। বিশেষ করে ম্যাচ শেষ হবার আগে জ্বলে উঠেছিলেন পর্তুগালের সেরা তারকা রোনালদো। কিন্তু তার চেষ্টা সফল হয় নি শেষ পর্যন্ত। অবশ্য ভাগ্য বিধাতাও এদিন সহায় হয়নি তাদের। গোলের পথে বাধা হয়েছিল গোলবারও। আর সমস্যা জর্জরিত ঘানাও গোলের সুযোগ তৈরি করেছে বারবার। তবে সফলতা পেয়েছে একবারই। তাই গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিল আসামোয়া গিয়যানরাও।

ম্যাচের ৬ মিনিটেই রোনালদোর নেয়া শট ঘানার গোলবারে লেগে ফিরে আসে। সেই দৃশ্যটাই যেন প্রতীকী হয়ে থাকল পর্তুগিজদের জন্য। তবে ৩১ মিনিটে এগিয়ে গিয়ে স্বপ্ন পূরণের আশা জাগিয়েছিল তারা। এসময় আত্মঘাতী গোলে ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে যায় ঘানা। ডি বক্সের ডান প্রান্ত থেকে পর্তুগিজ মিডফিল্ডা মিগুয়েল ভেলোসোর নেয়া শটে বল ঘানার ডিফেন্ডার জন বোয়ের পায়ে লেগে বার স্পর্শ করে জালে জড়ায়।

ম্যাচের ৫৭ মিনিটে আসামোয়া গিয়ানের গোলে সমতায় ফিরে ঘানা। এসময় বাঁ প্রান্ত থেকে কাওডু আসামোয়ার ক্রসে হেড নিয়ে পর্তুগালের জালে ছন্দ তোলেন গিয়ান। এই গোলে দ্বিতীয় পর্বে যাবার সম্ভাবনাটা উজ্জ্বল হয়েছিল ঘানার। তবে সে লক্ষ্য ছুঁতে পর্তুগালের জালে তাদেরকে গোল দিতে হতো আরও দুবার। কিন্তু তা আর হল না। উল্টো গোল হজম করতে হলো তাদের।

ম্যাচ শেষ হবার দশ মিনিট আগে জয়সূচক গোলটি পায় পর্তুগাল। ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো বিশ্বকাপে তার প্রথম গোলটি করলেন তৃতীয় ম্যাচে এসে। তবে রোনালদোর এই গোল পর্তুগালকে জয় এনে দিলেও উৎসবে মাতাতে পারলো না। কারণ জয়ের চেয়ে বেশি কিছু করে দেখানোর মিশন ছিল তাদের। কিন্তু সেটা আর হলো কই। শেষ দিকে বারবার ঘানার ডিফেন্স ভেঙ্গেও এদিন গোল পায়নি পর্তুগাল। পরবর্তী পর্বে পাড়ি দেয়ার জন্য আরও কয়েকটি গোলের প্রয়োজন ছিল পর্তুগালের। তাই যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সমান পয়েন্ট নিয়েও গোলব্যবধানে পিছিয়ে পড়ে তারা। আর সেই অপূর্ণতা নিয়ে শেষ হলো পতুগালের বিশ্বকাপ। আর রোনালদো দলকে এনে দিলেন এক বিষণ্ণ জয়।

শেয়ার করুন