ইরাকে ঐক্যমত্যের সরকারে সম্মত নয় মালিকি

0
73
Print Friendly, PDF & Email

ইরাকে সুন্নি বিদ্রোহীদের আগ্রাসন মোকাবেলায় বিভিন্ন সম্প্রদায়কে নিয়ে জাতীয় ঐক্যের সরকার গঠনে পশ্চিমা দেশগুলোর চাপ কঠোর ভাষায়  প্রত্যাখ্যান করেছেন প্রধানমন্ত্রী নূরি আল মালিকি। তিনি বলেন, এ ধরনের সরকার ইরাকের সংবিধান বিরোধী এবং গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার পরিপন্থী।
 
ইরাকে আইএসআইএল বিদ্রোহীরা তাদের দখলদারি অভিযান শুরু করার পর থেকেই পশ্চিমা দেশগুলো প্রধানমন্ত্রী মালিকির সমালোচনা শুরু করেছে। তারা বলছেন, দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়গুলোর প্রতি তিনি যে অবহেলা দেখিয়েছেন সেটাই বর্তমান পরিস্থিতির জন্য দায়ি। ইরাকী প্রধানমন্ত্রী নুরী আল মালিকি বুধবার তার টিভি ভাষণে তাদের দাবি প্রত্যাখ্যান করে বলেন, জাতীয় ঐকমত্যের একটা সরকার গঠনের আহ্বান শুধু যে সংবিধান পরিপন্থী তাই নয়, এগারো বছর আগে সাদ্দাম হোসেনকে ক্ষমতা থেকে অপসারণের পর দেশটিতে যে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হয়েছে এই উদ্যোগ তা ধ্বংস করবে।
 
সংখ্যালঘু সুন্নি ও কুর্দী সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটা ব্যাপকভিত্তিক সরকার গঠনের জন্য মালিকির ওপর যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যান্য দেশ যে চাপ দিচ্ছে খুব কড়া ভাষায় তার সমালোচনা করেছেন  মালিকি । তিনি বলেন,‘যারা সংবিধানের বিরোধিতা করে তারা দেশের নতুন গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে চায় এটা পরিস্কার। জাতীয় ঐক্যের সরকার গঠন দেশের সংবিধান ও রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার বিরুদ্ধে একটা অভ্যুত্থান।’
 
ইসলামপন্থী জঙ্গী দল আইসিস দেশের একটা বড় অংশের দখল নেওয়ার পর থেকে পশ্চিমা দেশগুলো ইরাকি প্রধানমন্ত্রীর ওপর তাদের চাপ বাড়িয়েছে। তবে  মালিকি তাঁর ভাষণে এটা স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, তিনি তার পছন্দমত সরকার গঠন করবেন যেটা সংবিধানের আওতায় তারই অধিকার। মালিকি আগামী পহেলা জুলায়ের মধ্যে একটি নতুন সরকার গঠনেরও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।
 
প্রসঙ্গত, এপ্রিলের নির্বাচনে তার দলই সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়েছে। তবে সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে হলে তাকে অন্য দলের সমর্থন পেতে হবে। আগস্ট মাসের মধ্যেই তাকে সরকার গঠন করতে হবে। তবে তার এই বিবৃতি থেকে মনে হচ্ছে নতুন সরকার ব্যাপক প্রতিনিধিত্বমূলক হওয়ার সম্ভাবনা কম।

শেয়ার করুন