অবিশ্বাস্য জয়ে সিরিজ শ্রীলঙ্কার

0
54
Print Friendly, PDF & Email

মাত্র এক বল বাকি থাকতে শেষ উইকেট তুলে নিয়ে নাটকীয় জয় পেয়েছে শ্রীলঙ্কা। লিডস টেস্টে ১০০ রানের জয়ে দুই ম্যাচের সিরিজটি ১-০ ব্যবধানে জিতেছে অতিথিরা
১৯৯৮ সালে এক ম্যাচের সিরিজ জেতার পর এটাই ইংল্যান্ডে শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্ট জয়।

৯৭তম ওভারে নবম উইকেট হারিয়েছিল ইংল্যান্ড। ম্যাচ বাঁচাতে এগারো নম্বর ব্যাটসম্যান জেমস অ্যান্ডারসনকে নিয়ে ২০ ওভার ২ বল কাটিয়ে দিতে হতো মঈনকে।

অসাধ্য সাধন করেই ফেলছিলেন মঈন-অ্যান্ডারসন। প্রথম শতকে পৌঁছানো মঈনকে দারুণ সঙ্গ দিয়েছিলেন অ্যান্ডারসন। কোনো রান না করলেও ৫৫ বল খেলেছিলেন তিনি। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি, টেস্ট শেষ হওয়ার মাত্র ১ বল আগে শামিন্দা এরাঙ্গার বলে রঙ্গনা হেরাথের ক্যাচে পরিণত হন অ্যান্ডারসন।

শূন্য রানের জন্য দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বল খেলেছেন অ্যান্ডারসন। ৭৭ বলে ০ রান করে রেকর্ডটি এখনও নিউ জিল্যান্ডের জিওফ অ্যালটের।

চতুর্থ ইনিংসে ৩৫০ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে চতুর্থ দিন ৫৭ রানেই হারিয়েছিল ৫ উইকেট। পঞ্চম দিন শেষ ওভার পর্যন্ত খেলা নিয়ে যাওয়ার কৃতিত্ব মঈন আলীর।

ষষ্ঠ উইকেটে জো রুটের সঙ্গে ৬৭ রানের জুটি গড়ে প্রতিরোধ গড়েন মঈন। রুটের বিদায়ের পর ম্যাট প্রায়র, ক্রিস জর্ডান ও স্টুয়ার্ট ব্রডের কাছ থেকে খুব একটা সহায়তা পাননি তিনি। তারপরও দারুণ একটা চেষ্টা করেছিলেন মঈন, কিন্তু ম্যাচ বাঁচাতে পারেননি।

দ্বিতীয় ইনিংসে ২৪৯ রানে অলআউট হয়ে যায় ইংল্যান্ড।

২৮১ বলে ১০৮ রানে অপরাজিত ছিলেন মঈন। তার ইনিংসে ছিল ১৭টি চার।

৫০ রানে ৫ উইকেট নিয়ে শ্রীলঙ্কার সেরা বোলার ধাম্মিকা প্রসাদ। রঙ্গনা হেরাথ ৩ উইকেট নেন ৫৯ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ২৫৭ (সাঙ্গাকারা ৭৯, চান্দিমাল ৪৫; প্লানকেট ৫/৬৪, ব্রড ৩/৪৬) ও ৪৫৭ (ম্যাথিউস ১৬০, জয়াবর্ধনে ৭৯, সাঙ্গাকারা ৫৫; প্লানকেট ৪/১১২, অ্যান্ডারসন ৩/৯১)

ইংল্যান্ড: ৩৬৫ (রবসন ১২৭, বেল ৬৪; ম্যাথিউস ৪/৪৪, এরাঙ্গা ৪/৯৩) ও ২৪৯ (রবসন ২৪, কুক ১৬, ব্যালান্স ০, বেল ৮, রুট ৩১, প্লানকেট ০, মঈন ১০৮*, প্রায়র ১০, জর্ডান ২১, ব্রড ০, অ্যান্ডারসন ০; ধাম্মিকা ৫/৫০, হেরাথ ৩/৫৯, এরাঙ্গা ১/৩৮, প্রদীপ ১/৫৫)

ম্যাচ সেরা: অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস।

সিরিজ সেরা: অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস (শ্রীলঙ্কা), জেমস অ্যান্ডারসন (ইংল্যান্ড)

শেয়ার করুন