সুসম্পর্কের সাত লক্ষণ

0
107
Print Friendly, PDF & Email

সম্পর্ক ভালো আপনাদের কিন্তু তার পরও কি সম্পর্ক নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন? মনে মনে ভাবছেন, সম্পর্কটা আর বেশি দিন ধরে রাখতে পারবেন কি না! কখনো ভেবে দেখেছেন কি দাম্পত্য বা প্রেমের জুটিতে কী কী উপাদান থাকলে সম্পর্কের বন্ধন অটুট থাকে, দৃঢ় হয়? ভালোবাসার সম্পর্কের এমন সাতটি গুণ-লক্ষণ নিয়ে এই প্রতিবেদন।

একে অপরের প্রতি বিশ্বাস
বিশ্বাসই পরস্পরের ভালো সম্পর্কের ভিত্তি। যেকোনো সম্পর্ক ভালোভাবে টিকিয়ে রাখার প্রথম শর্ত হলো বিশ্বাস। আপনি যদি নিজের আগের সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার ঘটনা বিশ্লেষণ করেন তাহলেও হয়তো অনুভব করতে পারবেন যে সেখানে বিশ্বাসের ঘাটতি ছিল কি না। আর সেটাই কি ছিল পারস্পরিক সংঘাতের মূল কারণ।

ব্যক্তিগত যোগাযোগে সাহায্য করুন
সুখী দম্পতিরা সব সময়ই তাঁদের ব্যক্তিগত মতামতের প্রাধান্য দেন। তাঁরা একসঙ্গে সময় কাটানোর পাশাপাশি এটাও বুঝতে পারেন, প্রত্যেকেরই নিজের জন্য আলাদা সময় থাকা উচিত। নিজেদের ভালোভাবে বুঝতে পারলে তাঁরা পরস্পরকে ব্যক্তিগত পরিসরের যোগাযোগ রক্ষায় সহায়তা করেন। দুজনেই আলাদাভাবে নিজেদের বন্ধু, সহকর্মী বা নিজস্ব ক্ষেত্রের মানুষদের সঙ্গে সময় কাটান।

যেকোনো বিষয়ে কথা বলুন
ভালো জুটি সব সময়ই যেকোনো বিষয়ে পরস্পরের সঙ্গে কথা বলতে পারেন। মনের কথা খোলাখুলি দুজন দুজনকে বলতে পারলে তাঁদের মধ্যে সমস্যা জিইয়ে থাকার কথা না। যাঁদের সম্পর্কের বন্ধন দৃঢ়, তাঁরা কখনোই কোনো বিষয়ে কথা বলা নিয়ে পিছপা হওয়ার কথা ভাবেন না, বিষয়টি অস্বস্তিকর হলেও না। তাই কথা চালিয়ে যান, সব সময়।

দুজন দুজনকে প্রেরণা জোগান
সুসম্পর্ক ধরে রাখার একটা গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ হলো পরস্পরকে প্রেরণা জোগাতে পারা। পারস্পরিক বোঝাপড়া থাকলেই একে অপরের কাজে উত্সাহ দেওয়া যায়। প্রিয়জন কঠিন কাজগুলোতে সাহস ও উত্সাহ দেবে, এটা কে না চায়। একজনের সাফল্যে অন্যজন খুশি হবেন, সুখী থাকবেন। কিন্তু সম্পর্কের ভিত্তি দুর্বল থাকলে এসব বিষয়েও একে অন্যকে হিংসা করতে পারেন কিংবা হীনমন্যতায় ভুগতে পারেন।

ভুলত্রুটিসহই তাঁকে গ্রহণ করুন
একটা সুসম্পর্কে প্রিয়জন অবশ্যই তাঁর সঙ্গীকে মন দিয়ে বুঝতে চাইবেন। সঙ্গীর ভুলত্রুটিগুলো বুঝে তাঁর সঙ্গে মানিয়ে চলতে চাইবেন। আর সংশোধনের জন্য সময় দেবেন। একে অন্যের ব্যক্তিত্বের নেতিবাচক দিকগুলোকে ধৈর্যের সঙ্গে মোকাবিলা করবেন, শান্ত হয়ে বুঝিয়ে তা সংশোধনের চেষ্টা চালাবেন। আর এমন কিছু বিষয় থাকে যা মেনে নিয়েই সবার চলতে হয়।

কঠিন সময়ে পাশে থাকুন
জীবনে উত্থানের চেয়ে পতনই হয়তো বেশি। অনেক প্রতিকূলতাই জীবনে অতিক্রম করতে হয়। অনাকাঙ্ক্ষিত সমস্যা কাটিয়ে উঠতে হলে পরস্পরের পাশে থাকতে হবে। আর কঠিন সময়েই কিন্তু প্রকৃত সম্পর্ক যাচাই হয়। বিপদের দিনে প্রিয়জন এগিয়ে এলেই বুঝতে পারবেন সঙ্গী নির্বাচনে আপনি ভুল করেননি। তেমনি সঙ্গীর বিপদের দিনে আপনি এগিয়ে না গেলে সেও আপনাকে নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

সবার জন্যই সুযোগ থাকা প্রয়োজন
জীবনে আমরা অনেক সময়ই নিজের জন্য বাড়তি কিছু চাই। হতে পারে কোনো বিষয়ে আপনি সঙ্গীর কাছ থেকে ছাড় চাইছেন, চাইছেন আপনার এই বিষয়টা সে মেনে নিক। আপনি হয়তো মনে মনে যুক্তি গড়ছেন, এই সুযোগ পাওয়াটা আপনার অধিকার। কখনো কখনো তা হতেই পারে। কিন্তু মনে রাখতে হবে, এমন বিষয়গুলো আপনার সঙ্গীও দাবি করতে পারেন এবং তখন তাঁকে সে সুযোগ দেওয়ার জন্য আপনাকেও প্রস্তুত থাকতে হবে।

শেয়ার করুন