বিশ্বকাপের সেরা পাঁচ পেনাল্টি

0
27
Print Friendly, PDF & Email

বিশ্বকাপের উন্মাদনায় কাঁপছে পুরো বিশ্ব। স্নায়ুর চাপটা আরও বেড়ে যায়, যখন পেনাল্টি শুট-আউটের ওপর নির্ভর করে ম্যাচের ভাগ্য। মাঠের ফুটবলারাও যেমন কেঁপে ওঠেন উত্তেজনায়, তেমনি বিশ্ব জুড়ে কোটি ভক্তের চোখের পলক পরেনা সেই পেনাল্টি শুটের মূহুর্তগুলোতে। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এমনি সেরা ৫টি পেনাল্টি শুট-আউটের দৃশ্য নিয়ে চলুন দেখে আসি সময়ের বিশেষ রিপোর্ট। যার ওপর নির্ভর করেই সৃষ্টি হয়েছিলো নতুন ইতিহাসের।

মাঠের ফুটবলাররা স্থির। ভেতরে কাজ করছে চাপা উত্তেজনা। সেই সাথে মাঠের দর্শক কিংবা মাঠের বাইরে থাকা সমর্থকরাও প্রিয় দলের সমর্থনে যেন প্রার্থনায় মত্ত। গোলটা মিস হলেই হাত থেকে ফসকে যাবে স্বপ্নের বিশ্বকাপ।

উত্তেজনায় ঠাসা আর স্নায়ুর চাপে ভোগানো বিশ্বকাপ ইতিহাসের সেরা ৫টি পেনাল্টি শুট আউটের মধ্যে ৫ম স্থানে রয়েছে ৯৪ এর বিশ্বকাপে নাইজেরিয়ার বিপক্ষে রবার্তো ব্যাজিওর পেনাল্টি শটের সেই গোলটি। যা ইতালিকে পাইয়ে দেয় কোয়ার্টার ফাইনালের ঠিকানা।এ গোলটি না হলে হয়তো সেবারই বিশ্বকাপ মিশন ওখানেই শেষ হয়ে যেত আজ্জুরিদের। ৯০ এর আসরের ফাইনালে জার্মানদের হয়ে করা ব্রেহমের গোলটি আর্জেন্টাইনদের কাঁদিয়ে তাদের এনে দেয় বিশ্বকাপ ট্রফি। যা রয়েছে তালিকার ৪ নম্বরে।

দাঁতে দাতে কামড় বসিয়ে দেয়া মুহূর্তের সৃষ্টি করা আরও দূর্দান্ত পেনাল্টি শটটি করেন ২০০৬ এর বিশ্বকাপে ইতালির ফ্যাবিও গ্রোসো। ফাইনালে ফ্রান্সের বিপক্ষে টাইব্রেকে তার দূর্দান্ত গোলেই ইতালি জিতে নেয় তাদের ইতিহাসের ৪র্থ শিরোপা। তালিকার এই শটটির অবস্থান ৩ নম্বরে। ১৯৮২ এর আসরে ফ্রান্সের মিচেল প্লাতিনির পা থেকে আসে তালিকায় ২য় স্থানে থাকা পেনাল্টি শটটি। তার সেই গোলেই জার্মানদের বিপক্ষে এগিয়ে গেলেও শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকে হেরে সেবারের মত বিশ্বকাপ স্বপ্ন ধুলিসাৎ হয় তাদের।

তালিকায় সবার ওপরে রয়েছে ২০০৬ এর আসরের ফাইনালে পেনাল্টি শটে করা জিদানের সেই ধোয়াশাছন্ন গোলটি। ইতালির বিপক্ষে ম্যাচের মাত্র ৭ মিনিটেই তার দেয়া গোলে এগিয়ে যায় ফ্রান্স। আর স্বপ্ন দেখতে শুরু করে স্বপ্নের বিশ্বকাপ জয়ের। যদিও শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকে হেরে সেবারের মত সেই স্বপ্ন জলাঞ্জলি দিতে হয় তাদের।

হৃদযন্ত্রে বিট বাড়িয়ে দেয়া এই গোলগুলো আসলেই।

শেয়ার করুন