গৃহবধূর শ্লীলতাহানীর করতে গিয়ে গণপিটুনি খেলো আ’লীগ নেতা

0
285
Print Friendly, PDF & Email

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে গৃহবধূকে শ্লীলতাহানীর চেষ্টার সময় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে বেধে রেখে গণপিটুনি দিয়েছে গ্রামবাসী। পরে বিচারের আশ্বাসে স্বজন ও অন্য নেতারা এসে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান। বুধবার সকালে উপজেলার ঝাঐল ইউনিয়নের কোনাবাড়ী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী গৃহবধূ অভিযোগ করে বলেন, আমার স্বামী রফিকুল ইসলাম প্রায় ৫ বছর যাবৎ বিদেশে অবস্থান করায় ৩ ছেলে-মেয়ে নিয়ে আমি শ্বশুরবাড়ীতে বসবাস করে আসছি।

স্বামী বিদেশ যাবার পর থেকেই পাশের বাড়ির বাসিন্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক লম্পট কামাল হোসেন ফটিক আমাকে নানাভাবে উত্যক্ত করে এবং বিভিন্ন লোকজনের কাছে আমার নামে কুৎসা রটাতে থাকে।

এ অবস্থায় সকালে কামাল বাড়িতে এসে আমার মোবাইল ফোনের নম্বর চায়। নম্বর দিতে রাজী না হওয়ায় একপর্যায়ে সে আমাকে ঝাপটে ধরে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। এসময় তার শার্টের কলার ধরে নাক-মুখে কিলঘুষি মারতে থাকি। পরে গ্রামবাসী ও স্বজনরা মিলে তাকে বেঁধে রেখে জুতা পেটা ও মারপিট করেন। এসময় লম্পট কামাল আমার হাতে-পায়ে ক্ষমা প্রার্থনা করতে থাকে।

পরে সংবাদ পেয়ে তার ভাই ওছিমুদ্দীন, শামসু মাস্টার, ঠান্ডু, মজিদ ও খলিল এসে বিচারের আশ্বাস দিয়ে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, ন্যায্য বিচার না পেলে আমি আইনের আশ্রয় নেব। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা কামাল হোসেন ফটিক বলেন, ওই গৃহবধু খুব খারাপ। সকালে রাস্তা দিয়ে যাবার সময় সে আমাকে দাঁড় করিয়ে উল্টা-পাল্টা কথা বলতে থাকে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আমি তাকে চর-থাপ্পড় দেই। সেও আমাকে কলার ধরে মারপিট করে। পরে স্বজনরা এসে আমাকে নিয়ে যায়। শুনেছি এ ঘটনার পর ওই গৃহবধু গ্রামের মাতব্বরদের কাছে বিচার চেয়েছেন।

শেয়ার করুন