রাতারাতি পুলিশের চাঁদাবাজি বন্ধ হবে না

0
104
Print Friendly, PDF & Email

রাতারাতি পরিবহনে পুলিশের চাঁদাবাজি বন্ধ করা যাবে না। তবে এটি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব- এমনটাই মনে করছেন যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহনে জটিলতা নিরসনে পরিবহন মালিকপক্ষের সঙ্গে এক বৈঠক শেষে পরিবহনে পুলিশের চাঁজাবাজি প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এমন কথা বলেন মন্ত্রী।     

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘এ বিষয়ে শুধু পুলিশকে দোষ দিয়ে লাভ নেই। চাঁদাবাজি অনেকেই করে।’  

ময়মনসিংহ ও রাজশাহীতে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের ডাকা পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী।  

বৈঠকে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নৌমন্ত্রী শাজাহান খান, স্থানীয় সরকার, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী  মশিউর রহমান রাঙা।

সভা শেষে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, ‘জাতীয় ও আঞ্চলিক হাইওয়েতে অননুমোদিত কিছু পরিবহন চলাচল করে। এগুলো বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি করছে। বিশেষ করে- নসিমন, করিমন, ভটভটি, লাইসেন্সহীন সিএনজি অটোরিকশা ইত্যাদি।’

ওইসব পরিবহন বন্ধ করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘লাইসেন্সহীন সিএনজি অটোরিকশা, ভটভটি, নসিমন ইত্যাদির ক্ষুদ্রযন্ত্রাংশ আমদানি করা হচ্ছে। যার মাধ্যমে এ পরিবহন আরো গতিশীলভাবে চলছে। তাই অননুমোদিত এসব পরিবহন বন্ধের লক্ষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে বলা হবে ওইসব ক্ষুদ্রযন্ত্রাংশের আমদানি যেন বন্ধ করা হয়।’    

মন্ত্রী জানান, বিআরটিসি বাসে লিজ বন্ধ করার বিষয়ে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিআরটিসি এবং মালিক শ্রমিকদের সঙ্গে বৈঠক করে তাদের সমস্যার সমাধান করতে হবে।  

মোটরসাইকেল প্রসঙ্গে যোগাযোগমন্ত্রী বলেন, ‘নিবন্ধন ব্যতীত ও হেলমেট ছাড়া কেউ মোটরসাইকেল চালাতে পারবেন না।’

এছাড়া মহাসড়কগুলোতে যেসব অবৈধ বাজার রয়েছে সেগুলো উচ্ছেদে প্রশাসন ব্যবস্থা নেবে বলেও জানান মন্ত্রী।

শেয়ার করুন