বিশ্বকাপ সামনে রেখে টিভি বিক্রি বেড়েছে

0
29
Print Friendly, PDF & Email

বিশ্বকাপ ফুটবল আসরকে সামনে রেখে চাঙা হয়ে উঠেছে দেশের টেলিভিশন বাজার। ব্যাপক হারে বিক্রি হচ্ছে সিআরটি, এলসিডি ও এলইডি টেলিভিশন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে দেশীয় ব্র্যান্ডের টিভি। ক্রেতাদের চাহিদা পূরণে ওয়ালটন ও মার্সেলের মতো দেশীয় ব্র্যান্ডগুলো নিয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি।  
ক’দিন পরই ব্রাজিলে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবলের আসর। বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ টেলিভিশনের পর্দায় সরাসরি উপভোগ করবেন এই খেলা। পিছিয়ে নেই বাংলাদেশের ফুটবলপাগল মানুষও। খেলা দেখতে হবে, তাই যাদের বাসায় টিভি নেই, কিংবা টিভিটা পুরনো হয়ে গেছে, তারা ছুটছেন টেলিভিশনের দোকানে।
ফুটবল উন্মাদনায় টেলিভিশনের বাড়তি চাহিদা সামলাতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে টিভি উৎপাদনকরী ও বিক্রেতারা। উৎপাদন বাড়ানো হয়েছে কয়েক গুণ। স্বাভাবিকের চেয়ে মজুদ বাড়ানো হয়েছে। সেই সাথে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে দাম কমানোসহ নানা অফারও দেয়া হচ্ছে।
রাজধানীর কয়েকটি ইলেকট্রনিক পণ্যের বাজার ঘুরে দেখা যায়, ফুটবল বিশ্বকাপ সামনে রেখে অনেক ব্র্যান্ডের টেলিভিশনে ছাড় ও পুরস্কার দেয়া হচ্ছে। বিক্রেতারা জানান, স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে টিভি বিক্রি এখন দ্বিগুণেরও বেশি। জুন মাসের বেতন পেলে আরো বেশি সংখ্যক চাকরিজীবী ক্রেতা টিভি কিনবেন বলে তাদের প্রত্যাশা।
জানা গেছে, দেশের শীর্ষ টিভি উৎপাদন ও বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন টেলিভিশন উৎপাদন বাড়িয়ে দিয়েছে কয়েক গুণ। কারখানায় কাজ চলছে দিন-রাত। বাড়তি চাহিদা মেটাতে তাদের এই উদ্যোগ। উৎপাদন বৃদ্ধি পাওয়ায় ওভারহেড কস্ট কমে যাওয়ায় দামও কমিয়েছে ওয়ালটন। বেড়েছে পণ্যের গুণগত মানও। বিশেষ করে স্বল্প আয়ের মানুষের চাহিদার বিষয়টি মাথায় রেখে ওয়ালটন ব্যাপক হারে সিআরটি টিভি তৈরি করছে। ওয়ালটন সব ধরনের টিভিতে এনেছে নতুন নতুন মডেল।
বাংলাদেশ টিভি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা যায়, দেশে প্রতি বছর ১২ থেকে ১৩ লাখ টেলিভিশন উৎপাদন ও সংযোজন হয়। প্রায় দুই লাখ টেলিভিশন সরাসরি আমদানি হচ্ছে। ২০১২-১৩ অর্থবছরে দেশে টিভি বিক্রির পরিমাণ ছিল ১৪ লাখ ৪৪ হাজার। চলতি অর্থবছরে প্রথম ছয় মাসে বিক্রি হয়েছে সাত লাখ ৩৮ হাজার।
বাংলাদেশ টিভি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান বলেন, দেশে বর্তমানে শতাধিক উদ্যোক্তা টেলিভিশন কারখানা স্থাপন করেছেন। তিনি বলেন, সরকারের সহায়তা পেলে এ খাতের উন্নয়ন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।
আরবি গ্রুপের হেড অব মার্কেটিং এমদাদুল হক সরকার বলেন, ওয়ালটনের টেলিভিশন বিক্রি গত এপ্রিল মাসের তুলনায় মে মাসে ৪১ শতাংশ বেড়েছে। উৎপাদনক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি মজুদও বেড়েছে। আগে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টিভি মজুদ করা হতো। এবার এক লাখ ৭০ হাজার থেকে দুই লাখ টিভি মজুদ রেখেছি। তিনি আরো জানান, দাম ক্রেতাদের নাগালে রাখার পাশাপাশি মডেলে বৈচিত্র্যও আনা হয়েছে ওয়ালটন টেলিভিশনে।

শেয়ার করুন