অমুসলিমদের তাড়াতেই সাম্প্রদায়িক হামলা

0
249
Print Friendly, PDF & Email

অমুসলিমদের এ দেশ থেকে তাড়ানোর জন্যই পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। এসব ঘটনায় অমুসলিমদের মধ্যে আস্থার অভাব সৃষ্টি হয়েছে। এসব সহিংসতা মোকাবিলায় রাষ্ট্র যথেষ্ট পদক্ষেপ নিচ্ছে না।
আজ মঙ্গলবার মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে ‘বাংলাদেশ রুখে দাঁড়াও’ সংগঠনের আয়োজনে এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা এসব অভিযোগ করেন।

গত ২৬ ও ২৭ এপ্রিল কুমিল্লার হোমনা উপজেলার চান্দেরচর ইউনিয়নের বাক সীতারামপুর গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের ৩০টি বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়। এ ঘটনা সরেজমিন তদন্ত করতে ১৭ মে সেখানে যায় ‘বাংলাদেশে রুখে দাঁড়াও’ সংগঠনের একটি দল। সেই তদন্তে পাওয়া তথ্য জানাতে আজ এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, ২০১১ সাল থেকে বাংলাদেশে নতুন করে সাম্প্রদায়িক আক্রমণের ঘটনা ঘটছে। প্রথম দিকে উপাসনালয়, বিগ্রহের মতো স্থাপনায় হামলা চালানো হলেও এখন তা বাড়িঘরে পৌঁছেছে। ধীরে ধীরে আক্রমণের ক্ষেত্র বাড়ছে। অমুসলিমদের মধ্যে অনাস্থার ভাব সৃষ্টি হয়েছে। এটা ভয়ংকর ব্যাপার। এ ধরনের সহিংসতা প্রতিরোধে রাষ্ট্র যা করছে, তা যথেষ্ট নয়।

আনিসুজ্জামান বলেন, এ ধরনের সহিংসতার ঘটনা প্রতিরোধে নাগরিক সমাজ তেমন এগিয়ে আসে না। তবে হোমনার ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসন ও নাগরিক সমাজ এগিয়ে এসেছে, যা কিছুটা ইতিবাচক।

ফেসবুকের পোস্ট নিয়ে যাচাই-বাছাই না করেই এসব ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। এগুলো আসলে পরিকল্পনামাফিক করা হচ্ছে। অমুসলিমদের এ দেশ থেকে বিতাড়িত করার জন্য এ ধরনের হামলা চালানো হচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন, এ ধরনের সহিংসতা মোকাবিলায় রাষ্ট্র সক্রিয় হবে। নাগরিক সমাজ এগিয়ে আসবে।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির আহ্বায়ক সুলতানা কামাল বলেন, এটি একটি পরিকল্পিত ঘটনা। একসঙ্গে তিন দিক থেকে আক্রমণ করা হয়। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার অজুহাতে তাত্ক্ষণিক প্রতিক্রিয়ার অংশ হিসেবে এ ঘটনা ঘটেনি।

সুলতানা কামাল বলেন, রাষ্ট্রযন্ত্রকে যথাযথ দায়িত্বশীল আচরণ করতে হবে। সাম্প্রদায়িক সহিংতার ঘটনায় রাষ্ট্র যে পদক্ষেপ নিচ্ছে, তা এখন পর্যন্ত যথেষ্ট নয় বলে তিনি অভিযোগ করেন।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের এই উপদেষ্টা তদন্তে পাওয়া তথ্য জানাতে গিয়ে বলেন, যার ফেসবুকের পোস্ট নিয়ে এই ঘটনা ঘটেছে, সেই ব্যক্তির ফেসবুক পাসওয়ার্ড ঘটনার কয়েক দিন আগে হ্যাক হয়। তখন তিনি নজরুল নামের একজনের কাছে গিয়ে বিষয়টি জানালে নজরুল তা ঠিক করে দিয়ে নতুন পাসওয়ার্ড দেন। ওই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে নজরুল নিজেই ওই ব্যক্তির ফেসবুক পেজে ওই পোস্ট দিয়ে থাকতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ছাড়া ফেসবুকে যা লেখা হয়েছে, সেখানে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার মতো কিছু হয়নি বলে দাবি করেন সুলতানা কামাল।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান জিয়াউদ্দিন তারেক আলী। সেখানে দ্রুত পুলিশি তদন্ত শেষ করে অপরাধীদের শাস্তি দিয়ে অমুসলিমদের মধ্যে স্বস্তি ফিরিয়ে আনার দাবি জানানো হয়। একই সঙ্গে সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে স্থানীয় জনসাধারণের মধ্যে জনপ্রতিরোধ গড়ে তুলতে প্রশাসনকে উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাওয়ার আলী, এম এম আকাশ প্রমুখ।

হোমনায় হিন্দুদের ৩০টি বাড়িঘর ভাঙচুর লুটপাট

সর্বস্ব হারিয়ে দিশেহারা তাঁরা

শেয়ার করুন