শেখ রেহানাকে প্রতীকী মূল্যে গুলশানে বাড়ি দেওয়া হচ্ছে

0
71
Print Friendly, PDF & Email

বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানাকে রাজধানীর গুলশানে একটি বাড়ি দেওয়া হচ্ছে। দেড় বিঘারও বেশি আয়তনের এ বাড়িটি প্রতীকী মূল্যে দেওয়া হচ্ছে। পূর্ত মন্ত্রণালয়ের তৈরি করা এ সংক্রান্ত সার-সংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিমধ্যেই অনুমোদন করেছেন। এখন প্রজ্ঞাপন জারির অপেক্ষায় রয়েছে। খবর সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য সূত্রের।

সূত্র জানায়, বাড়িটি গুলশান ৮৪ নম্বর রোডে অবস্থিত। এনইএল (২), বাড়ি নম্বর-১০, রোড নং ৮৪, গুলশানের এই বাড়িটি ৫৪.৫ শতাংশ জমির ওপর। শেখ রেহানাকে দেওয়ার জন্য এই বাড়ির প্রতীকী মূল্য ধরা হয়েছে ১০০১ টাকা। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারির পর শিগগিরই এ বাড়িটি শেখ রেহানাকে বুঝিয়ে দেওয়া হবে। ‘জাতির পিতার পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা আইন-২০০৯’ এর অধীনে শেখ রেহানাকে এই বাড়িটি দেওয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ’৯৬ এর আওয়ামী লীগ সরকারের শেষ মুহূর্তে ২০০১ সালে শেখ রেহানাকে ধানমণ্ডি ৬ নম্বর রোডে এক বিঘা আয়তনের একটি বাড়ি দেওয়া হয়েছিলো। এরপরই অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসে। শেখ রেহানা বাড়িটি বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারকে চিঠি দেন। তিনি বাড়িটি বুঝে নেওয়ার জন্য তার আত্মীয় মঞ্জিলা ফারুককে (বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল অফিসার-১ পদে আছেন) পাওয়ার অব এটর্নি দেন। কিন্তু, সরকার তখন সেই পাওয়ার অব এটর্নি গ্রহণ করেনি। এরই মধ্যে ধানমনন্ডি থানা স্থানান্তর করা হয় বাড়িটিতে।

শেখ রেহানা সরকারের ওই পদক্ষেপকে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট মামলা দায়ের করেন। মামলাটি দীর্ঘদিন ধরে অচল অবস্থায় পড়ে ছিলো। অবশেষে আওয়ামী লীগ এই দফায় ক্ষমতায় আসার পর ২০০৯ সালে শেখ রেহানা ওই মামলাটি প্রত্যাহারের আবেদন করেন এবং তিনি বাড়িটি সরকারকে ফেরত দেওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন। মামলা প্রত্যাহারের পর তিনি বাড়িটি সরকারকে রেজিস্ট্রি দলিলের মাধ্যমে ফেরত দেন। ২০০৯ সালেই জাতির পিতার পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা আইন জাতীয় সংসদে পাস হয়। এরপর ২০১০ সালে ধানমন্ডি ৫ নম্বর রোডের এক বিঘা আয়তনের একটি বাড়ি শেখ রেহানাকে দেওয়ার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়। কিন্তু, বাড়িটির মালিকানা নিয়ে মামলা বিচারাধীন থাকায় তা সম্ভব হয়ে উঠেনি।

শেয়ার করুন