‘দেড় কোটি কৃষককে উপকরণ সহায়তা দিয়েছে সরকার’

0
174
Print Friendly, PDF & Email

কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, দেড় কোটি কৃষককে উপকরণ সহায়তা কার্ড দিয়েছে সরকার। ১০ টাকা দিয়ে কৃষকদের ব্যাংক হিসাব খুলে দেয়া হয়েছে। মহাজনের হাত থেকে চিরদিনের জন্য মুক্তি পেয়েছে কৃষক। সার ও সেচকাজে ভর্তুকি অব্যাহত রাখা হয়েছে। গতকাল রবিবার বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) মিলনায়তনে ‘ফসল উত্পাদন বৃদ্ধিতে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে কৃষিখাত। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং উত্পাদন বাড়াতে হলে কৃষি গবেষণা ও প্রযুক্তি ব্যবহারের দক্ষতা বাড়ানোর বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, কৃষিকে সমৃদ্ধখাত হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে ব্যাপক কার্যক্রম হাতে নিয়েছে সরকার। এ কারণে গত ৫ বছরে অস্থিতিশীল পরিস্থিতির মধ্যেও দেশের মানুষ না খেয়ে থাকেনি। উত্পাদন অনেক বেড়েছে। এখন আর চাল আমদানি করতে হয় না।

মন্ত্রী আরো বলেন, প্রতি বছর কৃষি জমি কমছে। বছরে ২০ লাখ মানুষ বাড়ছে। তবুও ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যআয়ের দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ। মানুষকে খাওয়ানোর দায়িত্ব সরকারের। দেশে স্থিতিশীলতা থাকলে মানুষ ক্ষুধা থেকে মুক্তি পাবে।

তিনি বলেন, কৃষিবান্ধব নীতি গ্রহণের ফলে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। ১৯৯৬ সালের আগে অগোছালো কৃষিনীতির কারণে পকেটের পয়সা দিয়ে সার কিনতে গিয়ে কৃষককে জীবন দিতে হয়েছে। দেশে ২৮ থেকে ৩০ লাখ টন খাদ্য মজুদ রাখতে সরকার জোর দিয়েছে। এ জন্য অনেকগুলো আধুনিক খাদ্য গুদাম নির্মাণ করা হচ্ছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. এস,এম নাজমুল ইসলামের সভাপতিত্বে কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কৃষিবিদ আবু হানিফ মিয়া। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএআরসি নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. মো. কামাল উদ্দিন, বিএডিসির চেয়ারম্যান মো. জহির উদ্দিন আহমেদ, বারি মহাপরিচালক ড. মো.রফিকুল ইসলাম মণ্ডল, ড. জীবন কৃষ্ণ বিশ্বাস প্রমুখ।

শেয়ার করুন