শিল্পে গ্যাস-বিদ্যুৎ সরবরাহের দাবি

0
72
Print Friendly, PDF & Email

শিল্পকারখানায় নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস-বিদ্যুতের সরবরাহের দাবি জানিয়েছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ীরা। তাঁরা বলেছেন, নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস-বিদ্যুতের অভাবে শিল্পমালিকদের খরচ বাড়ছে। আবার নতুন শিল্প কারখানায় গ্যাস-বিদ্যুৎ মিলছে না। বিনিয়োগ পড়ে আছে।
ব্যবসায়ীরা আরও বলেন, আমদানি ও রপ্তানি-প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক উন্নয়নসহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ করতে হবে। এ ছাড়া বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে সুদের হার কমাতে হবে। রপ্তানি পণ্যের বৈচিত্র্যকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন তাঁরা।
গতকাল বুধবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয় গঠিত বাণিজ্য সহায়ক পরামর্শক কমিটির প্রথম সভায় ব্যবসায়ীরা এসব কথা বলেন। রাজধানীতে কারওয়ান বাজারের রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। এতে কমিটিতে থাকা দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ীরা অংশ নেন।
জিএসপি সুবিধাসহ অন্যান্য বাণিজ্যিক সুবিধা আদায় করতে সরকারের পক্ষ থেকে লবিস্ট নিয়োগের পাশাপাশি অর্থনৈতিক কূটনীতি বাড়ানোর পরামর্শ দেন ব্যবসায়ীরা।
এ ছাড়া দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে বিনিয়োগ বোর্ডে জমা পড়া প্রস্তাবগুলো দ্রুত সমাধানের তাগিদ দেন তাঁরা। এ ছাড়া আগামী রমজান মাসে তেল, চিনি, পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের দাম সহনীয় থাকবে বলে আশ্বাস দেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ মনে করেন, ২০২১ সালের আগেই বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হবে।
সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সৈয়দ মঞ্জুর এলাহী বলেন, শিল্পজমির সমস্যার কারণে বিনিয়োগ বোর্ডে অনেক প্রস্তাব জমা পড়ে আছে। তিনি জানান, ১১৮ কোটি ডলারের বেশ কিছু যৌথ বিনিয়োগের প্রস্তাব পড়ে আছে, যা দ্রুত সমাধান করা উচিত। এ ছাড়া তিনি প্রতিটি বৈঠকে আগের বৈঠকের সিদ্ধান্তগুলোর অগ্রগতি মূল্যায়নের পরামর্শ দেন।
মন্ত্রী ও সরকারি কর্মকর্তাদের উদ্দেশে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের সভাপতি তপন চৌধুরী বলেন, ‘আপনারা যদি ব্যবসা করতেন, তাহলে হয়রানি-ভোগান্তি বুঝতে পারতেন। আমরা দিনের পর দিন একই দাবি করে আসছি, কিন্তু কাজ হয় না। স্থানীয় বিনিয়োগকারীরা কেন বিনিয়োগ করছেন না, সেটাও বুঝতে হবে।’ বিদ্যুতের সমস্যার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোনো শিল্পমালিক ইচ্ছা করে জেনারেটর চালান না। কারণ, জেনারেটর চালালে খরচ বাড়ে।
ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি সালমান এফ রহমান বলেন, শুধু রাজনৈতিক অস্থিরতায় বিনিয়োগ হচ্ছে না, তা নয়। রাস্তাঘাট, অবকাঠামো, ব্যাংকঋণসহ বিভিন্ন খাতে সমস্যা রয়েছে।
এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতে, বিনিয়োগ বাড়াতে ব্যাংকঋণে সুদের হার কমাতে হবে। তিনি খাতভিত্তিক উপপরামর্শক কমিটি গঠনের প্রস্তাব দেন।
এফবিসিসিআইয়ের আরেক সাবেক সভাপতি মীর নাসির হোসেন বলেন, ‘আমরা পরিবেশ বাঁচাতে চাই, আবার শিল্পও করতে চাই। এখন শিল্প না পরিবেশ—এক জায়গা সমঝোতা করতেই হবে।’ তিনি বলেন, দেশে অপহরণ ও গুম হচ্ছে। এটা সবাইকে শঙ্কিত করছে। এটা রাজনৈতিক কারণে হতে পারে। সরকারকে ব্যক্তিগত নিরাপত্তায় আরও জোর দিতে হবে।
এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি আনিসুল হক জানান, অনেক শিল্পমালিক কারখানার জন্য শত শত কোটি টাকার যন্ত্রপাতি কিনে বসে আছেন। কিন্তু জ্বালানির সংযোগ না দেওয়ায় কারখানা চালু করতে পারছেন না। তিনি জিএসপি সুবিধাসহ অগ্রাধিকারমূলক বাজার সুবিধা পেতে লবিস্ট নিয়োগের পরামর্শ দেন।
তবে লবিস্ট নিয়োগের পরিবর্তে অর্থনৈতিক কূটনীতি বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন অ্যামচেমের সভাপতি আফতাব উল ইসলাম। এ ছাড়া তিনি সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে (পিপিপি) অবকাঠামো উন্নয়নের পরামর্শ দেন।
এফবিসিসিআইয়ের আরেক সাবেক সভাপতি এ কে আজাদ বলেন, ব্যাংকঋণ নিয়ে কেলেঙ্কারির ঘটনা কমাতে পারলে সুদের হার কমবে।
এফবিসিসিআইয়ের বর্তমান সভাপতি কাজী আকরাম আহমদের মতে, গত বছর রাজনৈতিক অস্থিরতা সত্ত্বেও ব্যবসায়ীরা ঐক্যবদ্ধ ছিলেন বলেই অর্থনীতিতে গতি রয়েছে।
সিটি গ্রুপের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান, মেঘনা গ্রুপের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল ও আবুল খায়ের গ্রুপের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম সভায় আশ্বাস দেন, আগামী রমজানে নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল থাকবে। সরবরাহ ব্যবস্থায় যথেষ্ট পণ্য রয়েছে।
ব্যবসায়ীদের বক্তব্য শেষে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, বর্তমান সরকার ব্যবসাবান্ধব। গ্যাস-বিদ্যুৎসহ অবকাঠামো সমস্যা সমাধানে সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ নিচ্ছে। তিনি বলেন, ‘আমরা চাই না, রানা প্লাজার মতো আর কোনো দুর্ঘটনা ঘটুক।’
সভায় আরও বক্তব্য দেন বাণিজ্যসচিব মাহবুব আহমেদ, তৈরি পোশাক কারখানার মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি আতিকুল ইসলাম, ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফআইসিসিআই) সভাপতি রূপালী চৌধুরী, ঢাকা চেম্বার সভাপতি শাহজাহান খান, রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি সালাম মুর্শেদী, বিটিএমএর সভাপতি জাহাঙ্গীর আলামিন, প্লাস্টিক পণ্য উৎপাদক সমিতির সভাপতি জসিম উদ্দিন, হিমায়িত পণ্য রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি আমিনউল্লাহ, উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি সঙ্গীতা আহমেদ প্রমুখ।

শেয়ার করুন