নারী ইউপি সদস্য ও মায়ের ওপর বর্বর নির্যাতন

0
364
Print Friendly, PDF & Email

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার কালমেঘা ইউনিয়ন পরিষদের এক সংরক্ষিত নারী সদস্য ও তাঁর মাকে পিঠমোড়া করে বেধে, মারধর করে, মাথার চুল কেটে দেওয়া হয়েছে।

নির্যাতিত ওই নারী ইউপি সদস্য এবং তাঁর মা জানিয়েছেন, নারী সদস্যের স্বামী রিয়াজ হাওলাদার, তাঁর দুই ভাই ও বন্ধুরা তাদের ওপর নির্যাতন চালিয়েছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে একই ইউনিয়ন পরিষদের ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নারী ইউপি সদস্য পারভীন মিজান প্রথম আলোকে বলেন, ‘আজ সকালে ওই সংরক্ষিত নারী সদস্য কান্নাজড়িত কণ্ঠে মুঠোফোনে এ বর্বর ঘটনার কথা আমাকে জানান। বর্বর ঘটনা দেখে ও শুনে আমি বিস্মিত হয়েছি।’ ইউপি সদস্যের স্বামীই স্ত্রী ও শাশুড়ির ওপর এ নির্যাতন চালিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্যের মা জানিয়েছেন, স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া হওয়ায় তাঁর মেয়ে (ইউপি সদস্য) দুদিন আগে স্বামীর বাড়ি থেকে অন্য এক আত্মীয়ের বাড়িতে চলে যায়। গতকাল রোববার সকালে মেয়ে আমার বাড়িতে ফিরে আসে। ওইদিন সন্ধ্যায় মেয়েকে নিয়ে তিনি জামাতা রিয়াজের বাড়িতে যান। ওই বাড়িতে যাওয়ার পর রিয়াজ তার মেয়ের ওপর চড়াও হন। তার সামনেই মেয়েকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকেন। একপর্যায়ে রিয়াজের দুই ভাই ও কয়েকজন বন্ধু মিলে মেয়েকে পিঠমোড়া করে বেধে মারধর শুরু করে। রিয়াজ বিছানার নিচ থেকে কাঁচি বের করে মেয়ের মাথার চুল কেটে দেয়।

নির্যাতিত ইউপি সদস্যের মা আরও জানান, এ সময় প্রতিবাদ করতে গেলে রিয়াজের চাচাতো ভাই জুয়েল ও তার বন্ধু হাসিব তাঁর (মা) দুহাত ধরে রাখে। স্ত্রীর (ইউপি সদস্য) চুল কাটার পরে রিয়াজ তাঁর শাশুড়ির (ইউপি সদস্যের মা) মাথার চুলও কেটে দেয়।
মধ্য কালমেঘা গ্রামে নির্যাতিত ইউপি সদস্যের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, ওই ইউপি সদস্য লজ্জায়-অপমানে নিথর হয়ে আছেন। কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘এইটা আমার কপাল। জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমরা নারী নির্যাতনের বিচার-সালিশ করি। আইজ আমার ওপর এই অন্যায়ের বিচার কে করবে।’

এ ব্যাপারে নির্যাতিত ইউপি সদস্যের স্বামী রিয়াজ হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
কালমেঘা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূর আফরোজ জানান, তিনি ঘটনাটি শুনেছেন।
পাথরঘাটা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিএম শাহনেওয়াজ বলেছেন, ঘটনাটি শুনেছি এবং ভুক্তভোগীকে থানায় এসে মামলা করার পরামর্শ দিয়েছি।

শেয়ার করুন