ক্রেস্ট্রের খাদ নিয়ে কিছু বলতে অপারগ মন্ত্রিপরিষদ সচিব

0
64
Print Friendly, PDF & Email

স্বাধীনতা সম্মাননা পুরস্কার সম্পর্কে কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভুইঞা।

সোমবার মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শেষে অনুষ্ঠিত এক বিফিংয়ে স্বাধীনতা পুরস্কারের ক্রেস্ট বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি এ অপারগতা প্রকাশ করেন।

ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকরা জানতে চান, স্বাধীনতা পুরস্কারের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সমন্বিতভাবে কাজ করেছে। যেহেতু মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সম্মাননা দেয়ার কাজে যুক্ত ছিল তাই সম্মাননা ক্রেস্টে ১২ আনাই খাদ হওয়ায় এর দায় দায়িত্ব মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ওপর কেন পড়বে না? জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এ বিষয়ে কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

মোশাররাফ হোসাইন ভুইঞা স্বীকার করেন, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সমন্বিতভাবে কাজটি করেছে। এ ক্ষেত্রে মন্ত্রিপরিষদ ব্ভিাগ শুধু দাওয়াতপত্র বিতরণ ও আসন বিন্যাসের কাজটি করেছে। এর বাইরে তার কিছু বলার নেই বলে জানান তিনি। অর্থাৎ তিনি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের কাজ সম্পর্কে বলতে পারবেন, অন্য কিছু নয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে উদ্বৃত্ত গণকর্মচারী আত্তীকরণ আইন ২০১৪ এর খসড়া ভেটিং সাপেক্ষে চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়। এই আইন সম্পর্কে বলা হয়েছে, অনেক সময় সরকারের বিভিন্ন দপ্তর অধিদপ্তর বিলুপ্ত হয়। তখন সেখানে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উদ্বৃত্ত হিসেবে গণ্য হয় এবং তাদের চাকরি সরাসরি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অধীনে ন্যাস্ত হয়। এই উদ্বৃত্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের তাদের প্রাপ্ত বেতনের স্কেল এবং পদমার্যাদা অনুযায়ী সরকারের প্রশাসনে (বিভিন্ন মন্ত্রণায়লয় ও দপ্তর অধিদপ্তর) আবার নিয়োগ দেয়ার জন্যই এই আইন করা হলো।

মন্ত্রিসভায় গত ৪ মার্চ মিয়ানমারে অনুষ্ঠিত ৩য় বিমসটেক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের অংশগ্রহণ সম্পর্কে অবহিত করা হয়।

শেয়ার করুন