ইসিকে ছেড়ে দেয়া যৌক্তিক হবে না, মামলার পরামর্শ

0
56
Print Friendly, PDF & Email

সাম্প্রতিক ভূমিকা বিচারে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) একদম ছেড়ে দেয়া যৌক্তিক হবে না বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রি. জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন।

রবিবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এক আলোচনায় প্রয়োজনে ইসির বিরুদ্ধে মামলার করারও পরামর্শ দেন তিনি।

সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা মাহমুদুর রহমান মান্নার নেতৃত্বাধীন নাগরিক ঐক্য ‘দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়- বিকল্প ভাবনা’ শীর্ষক এ গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করা হয়।

উপজেলা নির্বাচনে ইসির ভূমিকার সমালোচনা করে সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. শাহদীন বলেন, ‘বর্তমান কমিশনের পক্ষে দাঁড়ানোর সুযোগ এখন আর নেই।’

এ সময় উপজেলা নির্বাচনে জামায়াতের সফলতার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘জামায়াতের এই জয়যাত্রার জন্য প্রধানমন্ত্রী দায়ী থাকবেন। ভবিষ্যতে জামায়াত আবির্ভাবের যে ইতিহাস রচিত হবে সেখানে শেখ হাসিনাকে দায়ী করা হবে।

ইসি নিয়ে শাহদীন মালিকের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে এম সাখাওয়াত বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনকে একদম ছেড়ে দিলে চলবে না। কিছু একটাতো তাদের জন্য করতে হবে। আপনি চাইলে কমিশনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করতে পারেন।’

কমিশনের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আইন তৈরি নয়, বরং সঠিকভাবে প্রচলিত আইনের প্রয়োগ করতে হবে। অন্য দেশের আইনগুলো যে বেশি শক্তিশালী তা নয়। প্রচলিত ব্যবস্থার উপযুক্ত প্রয়োগ করতে হবে।’

সাবেক এই কমিশনার বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে যেকোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নির্বাচন কমিশন বরখাস্ত করার ক্ষমতা রাখে। এটি আগে থেকেই ছিল। এখন আইন তৈরি নয়, সঠিকভাবে সেগুলোর প্রয়োগ করতে হবে।

ভোটার পরিচয়পত্রে ছবি ব্যবহার করেও প্রতিকার না পাওয়ার বিষয়ে হতাশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘বেড়া যদি ক্ষেত খায়, তখন কিছু বলার থাকে না। যেখানে কেন্দ্র দখল হয়, সেখানে কোনো সিস্টেমই কাজ করে না।’

এছাড়া উপজেলা নির্বাচনের ফল প্রসঙ্গে এম সাখাওয়াত বলেন, ‘নির্বাচনে অধিকাংশ দল নেই, জাতীয় পার্টি নাই। এতো কিছুর পরেও ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের এতগুলো পদ কেন? আগামী ২০ বছর পরে যে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হবে না নিশ্চয়তা কোথায়?’

সত্য না বলা রাজনীতিবিদদের বৈশিষ্ট্য হয়ে গেছে মন্তব্য করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আমেনা মোহসীন বলেন, ‘যেকোনো বিষয়ে সত্য না বলার কী কারণ থাকতে পারে? সত্যি কি বলা যাবেই না?’

এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, বাংলাদেশের কম্যুনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবু জাফর আহমদ, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সংস্থার (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রেজওয়ানা হাসান, সাংবাদিক আশরাফ কায়সার প্রমুখ।

শেয়ার করুন