বাতির নিচেই অন্ধকার! খোকসা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ডোবা ভরাট করে আড়াই কোটি টাকার জমি দখল ভূমিদসু্য খোদ ভূমি কর্মকর্তা শাহ নেওয়াজ

0
152
Print Friendly, PDF & Email

আশরাফুল ইসলাম অনিক , কুষ্টিয়া \\
খোকসায় ভূমি দসু্যচক্র উপজেলা সদরের ইউনিয়ন ভূমি অফিসের আড়াই কোটি টাকা মূল্যের জমিতে মাটি ভরাট করে দখল নিতে শুরম্ন করেছে৷ অফিসের তহশিলদারা অবশ্য দখল বন্ধের আশ্বাস দিলেন৷ খোদ ভূমি প্রশাসনের নাকের ডগায় উপজেলা সদরের কালীবাড়ি রোডে প্রায় ৭২ শতাংশ জমির উপর খোকসা ইউনিয়ন এর সাবেক ভূমি অফিসার শাহ নেওয়াজ৷ এ নিয়ে জনমনে ব্যাপক উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে বাতির নিচেই অন্ধকার! সরকারের “ক” তপশিল ভূক্ত এ জমির বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় আড়াই কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে স্থানীয়রা জানায়৷

সূত্রে জানা গেছে, এ অফিসেরই এক সাবেক তহশিলদার শাহ নেওয়াজের চোখ পড়ে মূল্যবান এ সম্পত্তির উপর৷ ইতোমধ্যেই এ জমি ঘেঁষে তিনি বাড়ি করে সরকারের জমির আংশিক দখল করে বাগান তৈরী করেছে৷ গত শুক্রবার থেকে বাড়ির সাথের ডোবায় মাটি ফেলে দখলতান্ডব শুরম্ন করেছেন৷ প্রভাবশালী এই চক্র তহশিল অফিস ভবনের পূর্বাংশে ১৮ শতক জমি তিন ভাগ করে নিজেদের উদ্যোগে মাটি ফেলে রাসত্মা তৈরী করেছে৷

এ ব্যাপারে শাহ নেওয়াজ বলেন, আমার বাড়ির পাড় ধসে যাওয়ায় আমি কিছু মাটি ফেলেছি৷ কর্তৃপৰের অনুমতি আছে কিনা এ প্রশ্ন করা হলে তিনি তার ভুল স্বীকার করেন৷ তবে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেনি৷

তহশিল কমপেস্নঙ্রে জমি জবর দখলের ঘটনায় ভূমি প্রশাসনের নীরবতা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্নের জন্ম নিয়েছে৷ তারা সুষ্ঠ তদনত্ম সাপেক্ষে ভূমি দসু্য শাহ নেওয়াজসহ সংশিস্নষ্টদের দৃষ্টানত্মমূলক শাসত্মির দাবিসহ দখল হওয়া সরকারি সম্পত্তি উদ্ধারের জোর দাবি করেছে৷

তহশিল কম্পাউন্ডের জমি দখলের ব্যাপারে ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহশিলদার আলাউদ্দিন শেখ বলেন, আমি ব্যপারটি প্রথমে অবগত ছিলাম না৷ কিন্তু পরবর্তীতে দেখি ভূমি অফিসের কমপেস্নঙ্রে ডোবাতে মাটি দিয়ে ভরাট করছে৷ আমি ব্যাপারটি আইনের আওতায় এনে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো৷

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হেনা মোঃ মুসত্মাফা কামাল বলেন, আমি ব্যাপারটি সম্পর্কে মোটেও অবগত নয়৷ যদি আমি অভিযোগ পাই তাহলে তদনত্মসাপেৰে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো৷ আমি এখনই খোকসা ভূমি অফিসের তহসিলদার আলাউদ্দিন শেখকে তলব করে ডেকে ব্যাপারটি জেনে নিচ্ছি৷

শেয়ার করুন