ফেনী রহনপুর চৌমুহনীতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী বিজয়ী

0
110
Print Friendly, PDF & Email

ফেনী পৌরসভায় মেয়র পদে হাজী আলাউদ্দিন, রহনপুরে গোলাম রাব্বানী এবং চৌমুহনীতে আকতার হোসেন ফয়সাল বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনজনই আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী। খবর ইত্তেফাক সংবাদদাতাদের।

পরশুরাম সংবাদদাতা জানান, ফেনী পৌরসভার মেয়র পদে শনিবার উপ-নির্বাচনে বিপুল ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী জাতীয় পার্টির নেতা ও স্টার লাইন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাজী আলাউদ্দিন।

ফেনী জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানায়, ৩০টি কেন্দ্রে হাজী আলাউদ্দিন আনারস প্রতীক নিয়ে ৪১ হাজার ১৪৫ ভোট পেয়েছেন এবং তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ১৯ দলীয় জোটের আলাল উদ্দিন আলাল দোয়াত কলম প্রতীক নিয়ে ৩ হাজার ৬৬০ ভোট পেয়েছেন। গত ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে ফেনী পৌরসভার মেয়র নিজাম উদ্দিন হাজারী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় ফেনী পৌরসভার মেয়র পদটি শূন্য হয়।

গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) সংবাদদাতা জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর পৌরসভার মেয়র পদে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা বিশ্বাসের ছোট ভাই গোলাম রাব্বানী বিশ্বাস (চশমা) ৭ হাজার ২৯১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রার্থী জামায়াত সমর্থিত মিজানুর রহমান (তালা) পেয়েছেন ৪ হাজার ৭৫০ ভোট। মেয়র গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস ৫ জানুয়ারি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় এ উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো।

চৌমুহনী (নোয়াখালী) সংবাদদাতা জানান, শনিবার চৌমুহনী পৌরসভার মেয়র পদে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৮টা থেকে একটানা বিকাল ৪ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে। কেন্দে র বাহিরে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। ১৮ টি কেন্দে র ফলাফলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আকতার হোসেন ফয়সল, বিএনপি নেতা জুলফিকার আলী ভুট্রোর চেয়ে ১০ হাজারের ভোট বেশি পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন। আকতার হোসেন ফয়সল পেয়েছেন ১৫ হাজার ৭৮৫ ভোট, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জুলফিকার আলী ভুট্রো পেয়েছেন ৫ হাজার ৫১২ ভোট।

চৌমুহনীতে ছয় প্রার্থীর নির্বাচন বর্জন

উপজেলার পৌর মেয়র পদে নির্বাচনের সময় শনিবার দুপুরে একযোগে ছয় প্রার্থী নির্বাচন বর্জন করেন। বিএনপির প্রার্থী জহির উদ্দিন হারুন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহফুজুল হক বেলাল, অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ, আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত প্রার্থী শেখ শহীদ উদ্দিন এস্কান্দর মঞ্জুরুল আজীম সুমন ও মোর্শেদুল আমীন ফয়সাল রিটার্নিং অফিসার ও বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ এনে ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখার আবেদন করেন। এ অবস্থায় চৌমুহনী পৌরসভার মেয়র পদে নির্বাচন সম্পন্ন হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে প্রার্থীরা চৌমুহনী পাবলিক হল চত্বরে একত্রিত হয়ে আজ রবিবার চৌমুহনীতে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল আহ্বান করেন।

স্থানীয় রিটার্নিং অফিসার জানান, কোন কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত রাখা হয়নি। কেন্দ্রের বাইরে কিছু বিছিন্ন ঘটনা ঘটলেও এতে ভোট গ্রহণে কোন বিঘ্ন সৃষ্টি হয়নি।

শেয়ার করুন