বগুড়া পল্লী বিদ্যুতে পরিচালক-লাইনম্যান মুখোমুখি

0
139
Print Friendly, PDF & Email

লাইনম্যান ও লাইন টেকনিশিয়ান বরখাস্ত করাকে কেন্দ্র করে বগুড়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পরিচালক ও লাইনম্যান-লাইন টেকনিশিয়ানরা। যেকোনো সময় বড় ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতির আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টা পর্যন্ত সরেজমিন ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

সূত্র জানায়, বগুড়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি অন্যান্য বছরের ন্যায় চলতি বছরের ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বাৎসরিক পিকনিক-ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পূরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

সেখানে বগুড়ার দুপচাচিয়া উপজেলা এলাকার পরিচালক জাহেদুল ইসলামকে গাবতলী জোনাল অফিসের লাইন টেকনিশিয়ান মো. মোতালেব হোসেন ও লাইনম্যান(গ্রেড-১) সাইদুর রহমান-৩ হুমকি-ধমকি দেন। এ সময় উপস্থিত অন্যান্য কর্মচারী ও পুলিশ সদস্যের সহযোগিতায় পরিস্থিতি নিয়স্ত্রণে আনা হয়।

পরবর্তীতে ৩০ মার্চ অসদাচারণসহ শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য তাদের দুইজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। একই সঙ্গে কেনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া করা হবে না –জানতে চেয়ে ৭ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

বরখাস্তদের পক্ষে মোতালেব হোসেন বাংলানিউজকে জানান, দুপচাচিয়া উপজেলার এলাকার পরিচালক জাহেদুল ইসলাম একজন মারাত্মক দূর্নীতিবাজ লোক। তার বিরুদ্ধে বগুড়া পল্লী বিদ্যুতে ক্ষমতার অপব্যাবহারসহ নানা অন্যায় দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে।

কেউ এর প্রতিবাদ করতো না। ২৬ মার্চে মঞ্চে বক্তব্যের সুযোগ পেয়ে তিনি (জাহেদুল ইসলাম) কর্মরত লাইন টেকনিশিয়ান ও লাইনম্যান সম্পর্কে অশোভন ও অন্যায় উক্তি করেন। উপস্থিত কর্মচারীরা তা‍ৎক্ষণিক ভাবে ক্ষিপ্ত হয়ে বক্তব্যের প্রতিবাদ করেন।

এ ঘটনায় সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজারকে পরিচালকরা ভুল বুঝিয়ে বরখাস্ত করার আদেশ করিয়ে নেন তাদের বিরুদ্ধে।

তবে এসব ঘটনার স্বীকার করেননি দুপচাচিয়া উপজেলা এলাকার পরিচালক জাহেদুল ইসলাম।

তিনি বাংলানিউজকে জানান, ২৬ মার্চ তার সঙ্গে কারো কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

বগুড়া পল্লী বিদ্যুৱ সমিতির সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী ডি এ জে শামসুদ্দিন বাংলানিউজকে জানান, কেউ অন্যায় করে থাকলে তার বিরুদ্ধে প্রশাসন আইনগত ব্যাবস্থা নেবে, এটাই স্বাভাবিক। এখানে কোনো রকম পক্ষপাত মূলক আচরণের সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, সাময়িক বরখাস্তকারীদের কারণ দর্শানো নোটিশের জবাব সন্তোষজনক হলে বরখাস্ত প্রত্যাহারের বিষয়টি বিবেচনা করা যেতে পারে, তবে চাপ দিয়ে বা অন্যায় ভাবে কিছু করা হলে আদেশের পরবর্তী পদক্ষেপটিও আইন অনুযায়ী গ্রহণ করা হবে।

বগুড়ার পুলিশ সুপার (এসপি) মোজাম্মেল হক বাংলানিউজকে বলেন, পল্লী বিদ্যুতের চলমান ঘটনা আমাদের নজরে রয়েছে। যেকোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সংশ্লিষ্ট ফাঁড়িকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন