মাঠে সেনাবাহিনী, মধ্য রাত থেকে প্রচারণা বন্ধ

0
84
Print Friendly, PDF & Email

চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের পঞ্চম ধাপের ভোটগ্রহণ সোমবার। ইতোমধ্যে নির্বাচনের সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বাচনে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে সংশ্লিষ্ট এলাকায় মাঠে নেমেছে সেনাবাহিনী। শনিবার মধ্য রাত থেকে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে প্রচার-প্রচারণা। এছাড়া সব ধরনের যান্ত্রিক যান চলাচলের ওপরও নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হচ্ছে।
চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের পঞ্চম ধাপের নির্বাচনে দেশের ৩৫ জেলার ৭৩ উপজেলায় ভোটগ্রহণ করা হবে। নির্বাচন কমিশন পঞ্চম ধাপের ঘোষিত তফসিলের ৭৪টি উপজেলা থেকে টাঙ্গাইল-৮ আসনে উপ-নির্বাচনের কারণে বাসাইল উপজেলা এবং হাইকোর্টের আদেশে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাচন স্থগিত করে। এ ছাড়া তৃতীয় দফায় স্থগিত গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ এই দফার সঙ্গে হওয়ার কারণে সোমবার ৭৩টি উপজেলাতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
এসব উপজেলায় ভোটগ্রহণের জন্য নির্বাচন কমিশন (ইসি) ইতোমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। এসব উপজেলায় নির্বাচনী কাজে ব্যবহারের সকল মালামাল পাঠানোও সম্পন্ন করেছে কমিশন। নির্বাচনী এলাকায় ভোটগ্রহণ উপলক্ষে সোমবার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।
নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচনের ৩২ ঘণ্টা আগে সব ধরনের প্রচার-প্রচারণা বন্ধ থাকবে। তা অব্যাহত থাকবে নির্বাচনের পর ৬৪ ঘণ্টা পর্যন্ত। কেউ আইন ভঙ্গ করলে কারাদন্ড ও আর্থিক দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। এমনকি প্রার্থিতাও বাতিল হতে পারে।
এ ছাড়া নির্বাচনে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে সংশ্লিষ্ট এলাকায় শুক্রবার মধ্য রাত থেকে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে সেনাবাহিনী সদস্যরা মাঠে নেমেছেন। তাদের সঙ্গে রয়েছে পর্যাপ্ত সংখ্যক র‌্যাব, বিজিবি, পুলিশ, এপিবিএন ও আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্যরা। নির্বাচনের আগে দুদিন, নির্বাচনের দিন এবং পরে ২ দিন মোট ৫ দিন সেনা সদস্যরা মাঠে থাকবেন।
৭৩টি উপজেলায় মোট ১ হাজার ৬৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন ৩৬৪, ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ৪২০ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ২৭৯ জন। এ সব এলাকায় মোট ভোটার ১ কোটি ৪২ লাখ ৬০ হাজার ৬৬৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭১ লাখ ১৫ হাজার ৩৮০ এবং মহিলা ৭১ লাখ ৪৫ হাজার ২৮৩ জন।

শেয়ার করুন