১১ টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে যাবেন খালেদা জিয়া

0
70
Print Friendly, PDF & Email

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভায় যোগ দিতে
আজ শনিবার বেলা ১১টায় বিএনপি চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া জাতীয় প্রেস ক্লাবে যাবেন। সাংবাদিকদের এই সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেন

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভায় যোগ দিতে
আজ শনিবার বেলা ১১টায় বিএনপি চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া জাতীয় প্রেস ক্লাবে যাবেন। সাংবাদিকদের এই সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেনবাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভায় যোগ দিতে
আজ শনিবার বেলা ১১টায় বিএনপি চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া জাতীয় প্রেস ক্লাবে যাবেন। সাংবাদিকদের এই সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেনবাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভায় যোগ দিতে
আজ শনিবার বেলা ১১টায় বিএনপি চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া জাতীয় প্রেস ক্লাবে যাবেন। সাংবাদিকদের এই সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেনবাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভায় যোগ দিতে
আজ শনিবার বেলা ১১টায় বিএনপি চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া জাতীয় প্রেস ক্লাবে যাবেন। সাংবাদিকদের এই সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেনবাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভায় যোগ দিতে
আজ শনিবার বেলা ১১টায় বিএনপি চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া জাতীয় প্রেস ক্লাবে যাবেন। সাংবাদিকদের এই সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেনবাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভায় যোগ দিতে
আজ শনিবার বেলা ১১টায় বিএনপি চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া জাতীয় প্রেস ক্লাবে যাবেন। সাংবাদিকদের এই সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেনবাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভায় যোগ দিতে
আজ শনিবার বেলা ১১টায় বিএনপি চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া জাতীয় প্রেস ক্লাবে যাবেন। সাংবাদিকদের এই সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেনপানিসম্পদমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, এবার ভারতের কাছ থেকে পানি কম পাওয়া যাবে। ওদের নির্বাচনের পর এ সংক্রান্ত্রে কথা বলার সুযোগ তৈরি হবে। গতকাল মহাখালীর ব্র্যাক সেন্টার ইনের সম্মেলন কক্ষে ‘আসন্ন জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবসহ দক্ষিণ এশিয়ার বর্তমান পানি ব্যবস্থাপনায় সুযোগ ও চ্যালেঞ্জসমূহ মোকাবিলায় জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা বিনিময়’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি একথা বলেন।
এর আগে মন্ত্রী কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বলেন, টেকসই উন্নয়নের জন্য পানির পাশাপাশি আমাদের জমি ও পলি ব্যবস্থাপনার কথাও ভাবতে হবে। জমির নিরাপত্তা ও পলি ব্যবস্থাপনার কথা বাদ দিয়ে পানি ব্যবস্থাপনার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা কঠিন।
পানিবণ্টন, খাদ্য নিরাপত্তা, জমির নিরাপত্তা, পলি ও বন্যা নিয়ন্ত্রণসহ বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, এ অঞ্চলে বিরাজিত বহুমুখী সমস্যা কোনো একক দেশের পক্ষে সমাধান করা সম্ভব নয়। এসব সমস্যাকে সামনে নিয়ে এ অঞ্চলের এই দেশগুলোকে সমন্বিত উদ্যোগ নিয়ে এগোতে হবে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠান
বাংলাদেশ ওয়াটার পার্টনারশিপের সভাপতি শহিদুল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, শ্রীলঙ্কা গ্লোবাল ওয়াটার পার্টনারশিপের আঞ্চলিক সমন্বয়ক প্রিয়াংকা দেশানায়ক ও বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক প্রকৌশলী ম. সহিদুর রহমান। কর্মশালার ওপর ওভারভিউ উপস্থাপন করেন ইনস্টিটিউট অব ওয়াটার মডেলিংয়ের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. এম মনোয়ার হোসেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ওয়াটার পার্টনারশিপের ভাইস প্রেসিডেন্ট ড. খন্দকার আজহারুল হক এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন আবু সালেহ খান।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান ও ভুটানের বিশেষজ্ঞরা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। প্রবন্ধসমূহের মাধ্যমে উপস্থাপকরা নিজ নিজ দেশের পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনার সমস্যাগুলো তুলে ধরেন।
কর্মশালায় বলা হয়, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে অর্থনৈতিক ও জনসংখ্যা বৃদ্ধি, দ্রুত নগরায়ণ, ভূমি ও ভূতাপেক্ষ প্রভাবে নতুন চাপ যোগ হবে। বিদ্যমান প্রযুক্তি ও নীতি দক্ষিণ এশিয়ার ব-দ্বীপাঞ্চলের জনগোষ্ঠীর ক্রমাগত দারিদ্র্য জীবনমানের উন্নয়নে সাফল্য আনতে পারেনি।
কর্মশালায় আরও বলা হয়, জলবায়ু পরিবর্তনের মুখে প্রণীত বিনিয়োগ বিশেষ করে ডেল্টা অঞ্চলের জন্য নকশা পরিমিতির আরও পুনর্মূল্যায়ন করা দরকার। দক্ষিণ এশীয় ডেল্টাসমূহে (দ্বীপসমূহে) কার্যকর পানি ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন, ক্ষুধাহ্রাস ও উন্নয়নের জন্য সঠিক পথে এগোতে হবে। আঞ্চলিক সহযোগিতা ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমেই এই পথ খুঁজে পাওয়া সম্ভব।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ছাড়াও দু’দিনে ৫টি কারিগরি অধিবেশনে ওই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা শেষে সংশ্লিষ্টদের কাছে একটি সুপারিশমালা পাঠানো হবে। – See more at: http://www.dailyinqilab.com/2014/03/29/169325.php#sthash.uPFiDnnP.dpuf
শেয়ার করুন