রাজধানীতে কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে চার জনের অস্বাভাবিক মৃত্যু

0
103
Print Friendly, PDF & Email

রাজধানীতে কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে চার জনের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে বাসের ধাক্কায় অজ্ঞাত দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। লালবাগে রোগযন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে আনোয়ার হোসেন (২৫) নামে এক যুবক নিজের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এছাড়া সন্তান না হওয়ায় স্ত্রীর ওপর রাগ করে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছেন মিরপুর চিড়িয়াখানার ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী সমীর মজুমদার (৩০)। ময়না তদন্তের জন্য লাশগুলো ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
পুলিশ ও মেডিকেল সূত্র জানায়, গতকাল শুক্রবার সকাল ১১টায় যাত্রাবাড়ি চৌরাস্তায় বাসের ধাক্কায় গুরুতর আহত হয় অজ্ঞাত (২৫) এক যুবক। গুরুতর অবস্থায় পুলিশ তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। বিকেল ৩টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। নিহতের পরণে ছিল অ্যাশ কালার প্যান্ট এবং চেক শার্ট। গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত নিহতের পরিচয় মেলেনি। এর আগে গত বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় বায়তুল মোকাররম মসজিদের  দক্ষিণ গেটে গাড়ির ধাক্কায় আহত হন অজ্ঞাত (৪৫) ব্যক্তি। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। রাত ১টায় তিনি মারা যায়। পুলিশ গাড়িটিকে আটক করতে পারে নি।
এদিকে লালবাগের জে এন শাহা রোডের বাড়িতে বৃহস্পতিবার মধ্য রাতে নিজের শরীরে কেরেসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে আত্মহত্যা করেছে আনোয়ার হোসেন নামে এক যুবক। সে ইমিটেশন কারখানার শ্রমিক। নিহতের মা আনোয়ারা বেগম জানান, তার ছেলে দীর্ঘদিন ধরে কঠিন রোগ যন্ত্রণায় ভুগছিলেন। রোগ যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরেই সে আত্মহত্যা করেছ। নিহতের বাবার নাম আবদুস সামাদ।
এছাড়া বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত আড়াইটায় মিরপুর চিড়িয়াখানার পুরাতন স্টাফ কোয়ার্টার ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী সমীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে  শাহ আলী থানা পুলিশ।
নিহতের ভাই রাজীব মজুমদার জানান, দুই বছর আগে সমীরের সাথে শিউলি রানীর বিয়ে হয়। তাদের কোনো সন্তান নেই। সম্ভবত স্ত্রীর উপর অভিমান করে সমীর মজুমদার গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। নিহতের বাবার নাম বাদল মজুমদার। গ্রামের বাড়ি গাজীপুরের কাপাসিয়ায়। এসব ঘটনায় পৃথক পৃথক থানায় মামলা হয়েছে।

শেয়ার করুন