খালেদা জিয়ার মামলা প্রত্যাহার না করলে আন্দোলন নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না

0
74
Print Friendly, PDF & Email

বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলায় দেয়া চার্জ গঠন অবিলম্বে বাতিল না করলে সরকারকে করুণ পরিণতি ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে দলটির শীর্ষ নেতারা। তারা প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেছেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার না করলে বিএনপির আন্দোলন নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। গতকাল রোববার বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর বিএনপি আয়োজিত খালেদা জিয়ার নামে মিথ্যা মামলায় বেআইনিভাবে চার্জ গঠনের প্রতিবাদ মহানগর বিএনপি আয়োজিত সমাবেশে বক্তারা এ কথা বলেন।

বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান ঢাকা মহানগর বিএনপি’র আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকার সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া,  বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান শাহ্ মোয়াজ্জেম হোসেন। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএনপি’র প্রচার সম্পাদক জয়নুল আবেদিন ফারুক, মহিলা দলের সভানেত্রী নুরে আরা সাফা, যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সানাউল¬া মিয়া, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা শিরিন সুলতানা, ঢাকা বারের সভাপতি এ ভোকেট মহসিন মিয়া, বিএনপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক এম.এ কাইয়ুম, শ্রমিক দলের ঢাকা মহানগর সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নাসিম, সাবেক কমিশনার আব্দুল আলিম নকী, এম.এ মজিদ, আহসান উল্লাহ হাসান, নবী উল¬াহ নবী, আ.ন.ম সাইফুল ইসলাম, আতিকুল ইসলাম মতিন, ফেরদৌসি আহমেদ মিস্টি, আলী রেজাউল রিপনসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। সভা পরিচালনা ঢাকা মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক সাবেক কমিশনার বজলুল বাসিত আঞ্জু।

সংবিধানের ১৬৫ ধারা অনুযায়ী এই সরকার ও সংসদের কোনো বৈধতা নেই বলে মন্তব্য করে ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেছেন, বর্তমান সংসদ সরকার উভয়েই অবৈধ। এদের ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার নেই। তিনি বলেন, ওই ধারায় বলা আছে, ভোটারদের প্রত্যক্ষ ভোটে সংসদের সদস্য নির্বাচিত হবেন। আজকের সংসদে তা হয়নি। তাই আইন ও সংবিধানের ভিত্তিতে এই সংসদের কোনো বৈধতা নেই। তিনি অবিলম্বে খালেদা জিয়া-তারেক রহমানসহ বিএনপির নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান। অন্যথায় সরকারকে করুণ পরিণতি ভোগ করতে হবে বলে তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, এই সরকারের জনগণের উপর কোনো আস্থা নেই। তারা নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে এখন বিরোধী দলের ওপর নির্যাতন করছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিচ্ছে। বিশেষ করে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে আন্দোলনকে স্তিমিত করতে চায়। তিনি বলেন, মামলা-হামলা যত বেশি হবে সংগঠন ততই শক্ত হবে।

খালেদা জিয়ার নামে বেআইনিভাবে চার্জ গঠন করার ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সাবধান করেছেন বিএনপির ঢাকা মহানগরের আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকা। তিনি বলেন, অন্যায়ভাবে খালেদা জিয়ার নামে মামলা বন্ধ করেন। নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার বন্ধ করেন। এসব করে বিনএপির আন্দোলন নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে খোকা বলেন, যদি খালেদা জিয়াকে স্পর্শ করার চেষ্টা করেন তবে বিএনপির একজন নেতা-কর্মীও নীরব থাকবে না। হত্যা ও গুম করে তাদের থামানো যাবে না। তিনি বলেন, গণতন্ত্রকে লাথি মেরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লুণ্ঠন করে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আছে। তার পতন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। তিনি যেকোন সময় ধরাশায়ী হবেন। নিজ দলের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে খোকা বলেন, নিজেদের মধ্যে সকল বিভেদ ভুলে সামনের কঠোর পথ অতিক্রম করার জন্য প্রস্তুত হন। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক দিবেন।

শেয়ার করুন