খুন ও গুমের বছর ২০১৩

0
66
Print Friendly, PDF & Email

খুন, গুম, রাজনৈতিক হত্যা ও সহিংসতায় পার হলো ২০১৩ সাল। বছরজুড়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি ঘটে রাজধানীসহ সারাদেশে। বিশেষ করে রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড ও বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের খুন ও গুম হওয়ার ঘটনায় দেশজুড়ে আতঙ্কে ছিল সাধারণ মানুষ। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সরকার বিরোধী রাজনৈতিক কর্মসূচি প্রতিরোধ করেই বছর পার করে। এ সুযোগে বছরের শুরু থেকে দৈনন্দিন অপরাধে বেপরোয়া হয় সন্ত্রাসী গ্রুপগুলো।

বিশেষ করে রাজনৈতিক অপরাধ বেড়ে গেলেও লাগাম টেনে ধরতে পুরোপুরি ব্যর্থ ছিল পুলিশ, র‌্যাবসহ গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। বছরের শেষ সময়ে এসে পুলিশের গুলিতে রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের মৃত্যুর ঘটনা ছিল চোখে পড়ার মতো। একইসঙ্গে রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে তাণ্ডব, বোমা মেরে মানুষ হত্যার মতো নৃশংস ঘটনা প্রতিরোধ করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

রাজনৈতিক অস্থিরতায় পুলিশের বেপরোয়া গ্রেফতার বাণিজ্যে পড়ে নানামুখী হয়রানির শিকার হতে হয়েছে অনেককে। দলবাজ পুলিশ কর্মকর্তাদের হাতে পড়ে নাজেহাল হতে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। একইসঙ্গে রাজনৈতিক দাঙ্গা দমন করতে গিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর দফায় দফায় হামলার ঘটনা ছিল বছর জুড়ে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের প্রকাশ্যে পিটিয়ে হত্যার ঘটনা জনসাধারণকে ভীত করে। সাধারণ মানুষের নিরাপত্তায় দায়িত্বে থাকা পুলিশেরই নিরাপত্তা নেই- এমন প্রশ্নে উদ্বিগ্ন ছিল সাধারণ মানুষ।

২০১৩ সালে বেশ কয়েকটি চাঞ্চ্যলকর হত্যাকাণ্ড সারাদেশে আলোড়ন সৃষ্টি করে। কিছু ঘটনা দেশের সীমানা পেরিয়ে আলোচিত হয় বিদেশেও। মধ্যরাতে ফিল্মি স্টাইলে খুনের ঘটনা প্রত্যক্ষ করে দেশ-বিদেশের মানুষ। মাদকের ভয়াবহতায় মেয়ের হাতে সস্ত্রীক পুলিশ কর্মকর্তা খুনের ঘটনা নতুন করে ভাবিয়ে তোলে অভিভাবকদের। রাজধানীতে একসঙ্গে ছয় জনকে খুনের ঘটনা কিংবা বাবা-মায়ের সামনে ছেলে খুনের ঘটনা নগরবাসীর নিরাপত্তাহীনতার চিত্রটিকে ফুটিয়ে তোলে বেশ ভালোভাবেই। শুধু সাধারণ নাগরিকই নয়, ঘটে পুলিশ কর্মকর্তা খুনের ঘটনাও।

ব্লগার রাজীব হত্যাকাণ্ডে আগুনে ঘি ঢালে শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চে। রামপুরায় সাবেক গোয়েন্দা কর্মকর্তা ফজলুল করিমের খুনের ঘটনাও রাজধানীবাসীর নিরাপত্তার বিষয়টি সামনে নিয়ে আসে। পল্টনে ধর্ষণের পর নির্মমভাবে হত্যা করা হয় শিশু রিতুকে। মানুষের মনের গভীরে দাগ কাটে এ ঘটনাও। পরিবহন নেতা খায়রুল হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মানুষ আঁতকে উঠলেও এখন পর্যন্ত এ খুনের কোনো কুল কিনারা করতে পারেনি পুলিশ। ঠিকাদার ইউসুফ রায়হানকে খুন করে লাশ ছয় টুকরা করে টেলিভিশনের কার্টনে ভরে ফেলে দেওয়া হয়। পুলিশকে টাকা না দেওয়ায় তাদের হেফাজতে শামীম সরকার নামে এক যুবকের মৃত্যুর ঘটনা পুলিশের নৈতিকতাকে আবারও প্রশ্নের মুখোমুখি দাঁড় করায়। রামপুরায় প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে খুন করা হয় শ্রমিক লীগ নেতা মোক্তার হোসেনকে। কদমতলীতেও প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে মফিজুর রহমান খান সবুজ নামে এক ব্যবসায়ীকে খুন করে মাদকব্যবসায়ীরা। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের শেওড়াপাড়ায় ঘটে জোড়া খুনের ঘটনা।

পুলিশ হেডকোয়ার্টারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১২ সালের নভেম্বর থেকে চলতি বছরের নভেম্বর পর্যন্ত রাজধানীসহ সারাদেশে সাড়ে ৪ হাজারেরও বেশি ব্যক্তি খুন হন।এর মধ্যে ডাকাতির ঘটনায় খুন হয়েছেন ৩১ জন। এছাড়া ১০ হাজারের বেশি দস্যুতা ও ৬ ডাকাতি, ৮শ ১৮ ছিনতাইসহ যানবাহন চলাচলে বাধা, ক্ষতি, সরকারি ও বেসরকারি সম্পত্তি ভাঙচুর, ত্রাস সৃস্টি ও দায়িত্ব পালনে বাধাসহ ২ হাজার ১শ ১৮ টি অপরাধ হয়েছে।

ধর্ষণ, এসিড নিক্ষেপ, গুরুতর আহত, অন্যান্যসহ নারী নির্যাতন সংক্রান্ত ১৯ হাজার ৮শ ৪১টি অপরাধ হয়েছে। শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে ১৬শ ৫১ টি। অপহরণের ঘটনা ঘটেছে ৯২৬টি।বিভিন্ন ঘটনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৩০৯ জন পুলিশ। সিদেল চুরিসহ বিভিন্ন ঘটনায় মোট চুরি হয়েছে ৮ হাজার ৭৩৭টি। বিভিন্ন ঘটনায় মোট মামলা হয়েছে ১ লাখ ৯৫ হাজার ৩৮৭টি।

পুলিশ হেডকোয়াটার্সের তথ্য অনুযায়ী গত ১ বছরে রাজধানীতে খুন হয়েছেন প্রায় প্রায় ৪শ ব্যক্তি। এ বছরের জানুয়ারি মাসে মোট ৩৬১ জন খুন হয়েছেন। এর মধ্যে রাজধানীতে ১৮ জন।

স্বস্ত্রীক সিআইডি কর্মকর্তা হত্যা: গত ১৬ আগস্ট রাজধানীর চামেলীবাগের ২ নম্বর বাড়ির ৫ম তলার ৫/বি ফ্ল্যাটের বাথরুম থেকে পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) পরিদর্শক মাহফুজুর রহমান (৪৯) ও তার স্ত্রী স্বপ্না রহমানের (৪০) ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডের পর তাদের একমাত্র মেয়ে ধানমন্ডির অক্সফোর্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের ‘ও’ লেভেলের ছাত্রী ঐশী ছোট ভাই ওহি (৭) ও গৃহকর্মী সুমিকে নিয়ে পালিয়ে যায়। পরদিন দুপুরে পল্টন থানায় আত্মসমর্পন করে ঐশী। তার উশৃঙ্খল ও বেপরোয়া জীবন যাপনে অতিষ্ট হয়ে উঠেছিল তার বাবা-মা। মাদক গ্রহণ, ডিজে পার্টি, বখাটে বন্ধুদের সঙ্গে চলাফেরা, রাত করে বাসায় ফেরা এরকম বিভিন্ন কারণে এক মাস ধরে ঐশীকে কঠোর শাসনের মধ্যে রেখেছিল তার বাবা-মা। কিন্তু এরকম শাসনে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে ঐশী। ক্ষোভ থেকেই সে এই হত্যাকাণ্ড ঘটায়। বর্তমানে জেলে বন্দি আছে ঐশী ও কাজের মেয়ে সুমি। দেশ-বিদেশে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টিকারী এই ঘটনাটি একদিকে যেমন মাদকের ভয়াবহ দিকটি ফুটিয়ে তুলে তেমনি অভিভাবকদের কপালে চিন্তার ভাজ ফেলে।

গোপীবাগে ৬ জনকে জবাই করে হত্যা: বছরের শুরু থেকে খুন গুম অব্যাহত থাকলেও শেষে এসে ৬ জনকে নৃশংসভাবে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃস্টি হয়। রাজধানীর গোপীবাগের ৬৪/৬ আয়না নামের বাড়ির দ্বিতীয় তলায় হত্যা করা হয় ইমাম মাহাদীর প্রধান সেনাপতি দাবিদার কথিত পীর লুৎফর রহমান, ছেলে সারোয়ারুল ইসলাম ফারুক, ভক্ত মঞ্জুর আলম, শাহিন, রাসেল ও মজিবুল সরকারকে। ভক্ত সেজে বাসায় ঢুকে ১০ থেকে ১২ জনের একটি গ্রুপ হাত পা ও মুখ বেধে গলা কেটে তাদের হত্যা করে। হত্যার পর খুনীরা বাসা থেকে নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কারসহ বিপুল পরিমাণ মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। ধর্মীয় আদর্শিক বিরোধের কারণে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করলেও ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি তদন্ত সংশ্লিষ্ট গোয়েন্দারা।

যুবলীগ নেতা মিল্কী হত্যা: ২৯ জুলাই প্রকাশ্যে ফিল্মী স্টাইলে গুলি করে হত্যা করা হয় ঢাকা মহানগর যুবলীগ (দক্ষিণ) সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম খান মিল্কীকে। চাঁদাবাজি, আধিপত্য বিস্তারের ঘটনায় নিজ দলের প্রতিপক্ষ গ্রুপের হাতে মিল্লী হত্যার ঘটনা বছর জুড়ে আলোচনায় ছিল। ঘটনার পরদিনই কিলিং মিশনে অংশ নেওয়া যুবলীগ নেতা তারেক র‌্যাবের হাতে আটক হওয়ার পর ক্রসফায়ারে নিহত হন। এ ঘটনায় যুবলীগের আরেক নেতা চঞ্চলসহ কয়েকজনকে আসামী করে মামলা করা হলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজর এড়িয়ে পালিয়ে যান চঞ্চল। বছর পার হলে খুনের সঙ্গে জড়িতদের নাম প্রকাশ হয়নি। ক্লু উদঘাটন হয়নি গত ৫ মাসেও।

ব্লগার রাজিব হত্যা: যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে রাজধানীর শাহবাগ যখন উত্তাল ঠিক সেই সময় নৃশংসভাবে খুন করা হয় শাহবাগের গনজাগরণ মঞ্চের অন্যতম কর্মী আহম্মেদ রাজীব হায়দারকে। ১৬ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ৯টার দিকে শাহবাগের প্রজন্ম চত্বর থেকে তার মামার বাসা পল্লবীর কালশীতে যাওয়ার সময় পলাশনগরে এ ঘটনা ঘটে। তাকে জবাই করে হত্যার পর রাস্তায় ফেলে রাখা হয়। এ ঘটনা পর উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ে শাহবাগে। বিক্ষোভে ফেটে পড়ে সারা দেশ। কিন্তু এরপর ব্লগার রাজীবের ব্লগে ইসলাম বিদ্বেষী বিভিন্ন লেখা প্রকাশিত হতে থাকলে তাকে কেন্দ্র করে সৃষ্টি হয় তীব্র বিতর্ক ও সমালোচনা।

শেয়ার করুন