এরশাদ না, ফললো আশরাফের কথা

0
70
Print Friendly, PDF & Email

বিএনপি নির্বাচনে এলে জাতীয় পার্টি মহাজোটের হয়ে আর না এলে আলাদা নির্বাচন করবে—আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফের এমন বক্তব্যকে ভিত্তিহীন বলে তা প্রত্যাহার করতে বলেছিলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। অথচ এখন আওয়ামী লীগ নেতার বক্তব্যের পথ ধরেই চলছে জাতীয় পার্টি।

বিএনপি এখন পর্যযন্ত নির্দলীয় সরকারের অধীনে ছাড়া নির্বাচনে না যাওয়ার ঘোষণায় অটল আছে। তবে বিএনপি না এলে নির্বাচনে না যাওয়ার কথা বললেও শেষ পর্যন্ত মহাজোট ছেড়ে আলাদা নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন এরশাদ। আর নির্বাচনকালীন সরকারে যোগ দিয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

জাতীয় পার্টি এখন পর্যন্ত আলাদা নির্বাচনের কথা বললেও এখনও জোটভিত্তিক নির্বাচনের চিন্তা বাদ দেয়নি আওয়ামী লীগ। বিএনপি নির্বাচনে আসলে জাতীয় পার্টিকে ২০০৮ সালের নির্বাচনের চেয়ে বেশি আসন দেয়ার বিষয়ে প্রাথমিকভাবে ভেবে রেখেছে সরকার দল।

আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো জানিয়েছে, আগামী নির্বাচনে শরিকদের জন্য ৮০টির মতো আসন প্রাথমিকভাবে বরাদ্দ রেখেছে সরকার। এর মধ্যে জাতীয় পার্টিকে দেয়া হতে পারে ৫০ থেকে ৭০টি আসন। তবে সব নির্ভর করছে বিএনপির নির্বাচনে আসা না আসার উপর।

আর এমনটি হলে গত ২০ অক্টোবর সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম যা বলেছিলেন, সে মোতাবেকই হচ্ছে সব কিছু। সেদিন গণভবনে প্রধানমন্তী শেখ হাসিনার সাথে এরশাদের বৈঠকের পর সৈয়দ আশরাফ বলেছিলেন, ‘বিএনপি নির্বাচন অংশ নিলে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি আবারও ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচন করবে। তবে বিএনপি যদি নির্বাচনে অংশ না নেয় তবে জাতীয় পার্টির এককভাবে নির্বাচনে অংশ নেবে’।

পরদিন বনানী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এরশাদ দাবি করেন, সৈয়দ আশরাফের বক্তব্য অসত্য। আওয়ামী লীগ নেতার এই বক্তব্যে স্তম্ভিত হয়ে যা্ওয়ার কথা জানিয়ে তা প্রত্যাহার করতে সৈয়দ আশরাফের প্রতি অনুরোধও জানান জাতীয় পার্টির সভাপতি। এর জবাব দিতে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন ডাকেন আশরাফও। তবে তা পরে স্থগিত করা হয়।

তবে গত ১৮ নভেম্বর নির্বাচনকালীন সরকারে যোগ দিয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারসহ পাঁচ নেতা। এর বাইরে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা হয়েছেন আরও একজন।

তাহলে তো নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এবং জাতীয় পার্টির কৌশল নিয়ে সৈয়দ আশরাফের কথাই তো ঠিক—এমন মন্তব্যের জবাবে এরশাদের প্রেস সচিব সুনীল শুভ রায় ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘না, আমাদের চেয়ারম্যানের কথাই ঠিক’।

কিন্তু বিএনপি না এলে জাতীয় পার্টি আলাদা নির্বাচন করবে-সৈয়দ আশরাফের এমন কথাই তো ফললো-এমন মন্তব্যের জবাবে জাতীয় পার্টির এই নেতা বলেন, ‘আমাদের চেয়ারম্যান বলেছেন, তিনি আওয়ামী লীগের সঙ্গে নাই। তিনি তাই করেছেন’।

বিএনপি নির্বাচনে এলে আওয়ামী লীগের জোটবদ্ধ নির্বাচনের প্রস্তুতির বিষয়ে জানতে চাইলে এরশাদের প্রেস সচিব বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ভাবতে পারে, তবে আমরা একাই নির্বাচন করবো। এরশাদ সাহেবও সে প্রস্তুতি নিয়েই জোট ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন।’

কিন্তু বিএনপিকে ছাড়া নির্বাচনে অংশ নেবেন না এরশাদের এই বক্তব্য তো আর ঠিক রইলো না- এমন প্রশ্নের জবাবে সুনীল শুভ রায় বলেন, ‘এটা সকলের সঙ্গে আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

শেয়ার করুন