জামায়াত-শিবির দেখলেই পিটুনি ও পুলিশে দেয়ার ঘোষণা ছাত্রলীগের

0
45
Print Friendly, PDF & Email

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাহ মাখদুম হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি খলিলুর রহমান মামুন এবং চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার বার আউলিয়া কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহবুবুর রহমান বাপ্পি হত্যার প্রতিবাদে এবং এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত বিচার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে ছাত্রলীগ।

জামায়াত-শিবিরের মতো যুদ্ধাপরাধী দলের যেকোনো সদস্যকে যেখানেই দেখা যাবে মেরে পুলিশের হাতে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে দলটি।

শনিবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে একটি মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থান ঘুরে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে সমাবেশ করা হয়।

সভাপতির বক্তব্যে ছাত্রলীগ সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ বলেন, “আমরা এমন একটি সমাজে বাস করি যেখানে একজন মানুষকে ধরে পশুর মতো জবাই করে হত্যা করা হয়। এর মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনা আর হতে পারে না।”

তিনি বলেন, “জামায়াত-শিবির রক্ত পিপাশায় মেতে উঠেছে।”

সমাবেশে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম বলেন, “ছাত্রলীগ কর্মীদের ওপর একের পর এক সন্ত্রাসী হামলা করা হচ্ছে। এর আগেও কয়েকজন নেতা-কর্মীর হাত পায়ের রগ কেটে দিয়েছে ছাত্রদল-শিবিরের ক্যাডাররা। আমরা রাজাকারের দোসর ছাত্রদল-শিবিরকে উদ্দেশ্য করে বলতে চাই, চোরাগুপ্তা হামলা বাদ দিয়ে যদি সাহস থাকে সম্মুখযুদ্ধে এসো, কেমন শক্তি আছে দেখা যাবে।”

তিনি অবিলম্বে খলিলুর রহমান মামুন এবং বাপ্পীর হাত্যাকারীদের শাস্তিসহ জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি জানান।

ছাত্রলীগের সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলমের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি মেহেদী হাসান, সাধারণ সম্পাদক ওমর শরীফ। উপস্থিত ছিলেন সহসভাপতি জয়দেব নন্দি, যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, হাসানুজ্জামান তারেকসহ বিভিন্ন হল ও কলেজ শাখার নেতাকর্মীরা।

শেয়ার করুন