আজই মহাজোট ছাড়ার ঘোষণা দেবেন এরশাদ!

0
52
Print Friendly, PDF & Email

ক্ষমতাসীন মহাজোট থেকে আজই বের হয়ে আসার ঘোষণা দিতে পারেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ-এমনটিই আশা করছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডির) সভাপতি আ স ম আব্দুর রব।

তিনি বলেন, “আমি আশা করছি আজকের মধ্যেই তিনি মহাজোট থেকে বের হওয়ার ঘোষণা দেবেন।”

তবে তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তি গঠনে এরশাদের সঙ্গে আলোচনা হয়নি বলেও জানান রব।

শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে এক গোলটেবিল আলোচনায় আ স ম রব এ কথা বলেন। ‘উত্তরোত্তর রাজনৈতিক সংকট ও নির্বাচনকালীন সরকারব্যবস্থা’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল।

এ ছাড়া নির্বাচনকালীন সরকারব্যবস্থা কী হবে এর একটি ফর্মুলা উপস্থাপন করেন রব। তিনি জানান, শিগগির রাজনৈতিক তৃতীয় শক্তি প্রকাশ করা হবে।

সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেন, বিকল্প ধারার সভাপতি সাবেক রাষ্ট্রপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরী, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, মাহমুদুর রহমান মান্নাসহ আরো অনেকে মিলে তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তি গঠন করছেন বলেও জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারি সুযোগ-সুবিধা নিয়ে নিজ দলের প্রচারণা চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ করে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলনকারী আ স ম আব্দুর রব বলেন, “তিনি (হাসিনা) বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, তিনি কোনো একটি দলের প্রধানমন্ত্রী নন। রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা নিয়ে তিনি নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারেন না।”

রব বলেন, “সর্বদলীয় সরকার আর স্বাভাবিক সরকার একই। যাহা লাউ তাহাই কদু।”

মন্ত্রীদের পদত্যাগপত্রে তারিখ না দেয়াকে জনগণের সঙ্গে ‘নাটক’ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

নির্বাচনকালীন সরকারের ফর্মুলায় রব বলেন, “চলমান জাতীয় সংসদ ‘উচ্চকক্ষ’ গঠনের আইন প্রণয়ন করবে। এরপর বিভিন্ন পেশার ও সুশীল সমাজের নেতৃস্থানীয় ও মেধাবী এমন ১০ জনকে উচ্চকক্ষের সদস্য নির্বাচিত করবে। সবার কাছে গ্রহণযোগ্য এমন একজন ব্যক্তিকে উচ্চকক্ষের চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করবে। এই উচ্চকক্ষের কাছে নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব অর্পণ করা হবে। উচ্চকক্ষের চেয়ারম্যানকে প্রধান ও ১০ জন সদস্যকে মন্ত্রী বা উপদেষ্টা করে নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভা গঠিত হবে।”

আলোচনা সভায় প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতন।

আলোচনায় অংশ নেন- বিকল্প ধারার সভাপতি সাবেক রাষ্ট্রপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরী, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড. তোফায়েল আহমেদ প্রমুখ।

শেয়ার করুন