সঙ্কট নিরসনে দু’ দলকে চাপ সৃষ্টির আহ্বান

0
63
Print Friendly, PDF & Email

দেশের চলমান সঙ্কট নিরসনে দুই দল ঐক্যমতে পৌঁছাতে না পারলে তৃণমূল সংগঠনকে নিয়ে তৃতীয় শক্তিগঠন করে তাদের উপর চাপ সৃষ্টি করার আহ্বান জানিয়েছেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমান।

রাজধানীর রূপসী বাংলা হোটেলে শনিবার দুপুরে ‘চলমান রাজনীতি ও স্থানীয় শাসন’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এ আহ্বান জানান। মিউনিসিপ্যাল অ্যাসোনিয়েশন অব বাংলাদেশ (ম্যাব) এ গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে।

ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ‘সঙ্কট নিরসন না হলে দেশের অর্থনীতির চরম ক্ষতি হবে। দুইদল যদি চলমান সঙ্কটের সমাধান না করে তবে অর্থনীতির চরম মূল্য দিতে হবে।’

স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহাম্মদ বলেন, ‘সংবিধান জনগণের জন্য। তাই এখানে ভিন্ন মতামতকে গুরুত্ব দিতে হবে। কাউকে বাদ দিয়ে নির্বাচনে যাওয়া ঠিক হবে না।’

নির্বাচনী ইশতেহারে স্থানীয় সরকার, নারী নেতৃত্বের বিকাশ ও ক্ষমতায় এবং নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারের রূপরেখা নিয়ে মতামত দেয় ম্যাব।

এতে লিখিত বক্তব্যে সংগঠনের মহাসচিব অধ্যাপক শামীম আর রাজি বলেন, ‘আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থার প্রধান নিয়ে রাজনীতিকে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে স্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতি বাধাগ্রস্ত ও গণতন্ত্র হুমকির মধ্যে পড়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘একদিকে ক্ষমতাশীন আওয়ামী লীগ সর্বদলীয় সরকার, অন্যদিকে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার দাবিতে অনড় রয়েছে। দুই দলের এমন বিপরীতমুখী অবস্থানে দেশের চলমান সঙ্কট আরও বৃদ্ধি পাবে। এমতাবস্থায় আমরা চাই, দেশের নাগরিক সমাজসহ সকলে দুই দলকে একটি কার্যকর সংলাপের জন্য চাপ সৃষ্টি করুক।’

আসন্ন নির্বাচনে রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে ম্যাব ৯ দফা সুপারিশ পেশ করে।

সুপারিশগুলো হচ্ছে- স্বাধীন স্থানীয় সরকার কমিশন গঠন ও স্থানীয় সরকার দিবস ঘোষণা, জেলা বাজেট অথবা স্থানীয় সরকার বাজেট প্রণয়ন, জাতীয় সরকার কর্তৃক ক্ষমতা, দায়িত্ব ও সম্পদ স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের বিভিন্নস্তরে হস্তান্তর, সমন্বিত জাতীয় গণতান্ত্রিক বিকেন্দ্রীকরণ ও স্থানীয় সরকার নীতিমালা প্রণয়ন ও কার্যকর, জাতীয় নগর উন্নয়ন নীতিমালা প্রণয়ন এবং স্থানীয় সরকার সার্ভিস চালু, জাতীয় বাজেটে উন্নয়ন বাজেটের ৪০% অর্থ স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানে বরাদ্দ প্রদানসহ অর্থিক বণ্টন নীতিমালা প্রণয়ন, জাতীয় বাজেট ও স্থানীয় সরকারের মধ্যে সংরক্ষিত এবং হস্তান্তরিত সেবা ও কার্যক্রম বা বিষয়াদির সমবণ্টন, জাতীয় সংসদে নারী ও নির্বাচিত স্থানীয় প্রতিনিধিদের আসন সংরক্ষণ ও নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারের একটি স্থায়ী কাঠামো নির্ধারণ।

বৈঠকে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সংগঠনের উপদেষ্টা ও স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ অ্যাড. আজমত উল্ল্যাহ খান, অ্যাড. রোখসানা খন্দকার, ইউনিয়ন পরিষদ ফোরাম সভাপতি মাহাবুবুর রহমান টুলু, উপজেলা পরিষদ অ্যাসোসিয়েশন সভাপতি ফয়জুর রহমান ফকির প্রমুখ।

শেয়ার করুন