শুক্রবার একমঞ্চে উঠতে পারেন এরশাদ-ফখরুল

0
57
Print Friendly, PDF & Email

নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহাল ও ভোট কারচুপি প্রতিরোধের দাবিতে আগামী শুক্রবার কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ টাঙ্গাইলের সফিপুরে উপজেলা মাঠে সমাবেশ করবে। ওই সমাবেশ মঞ্চে থাকতে পারেন জাতীয় পার্টি (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এই সমাবেশ থেকে সরকারবিরোধী যুগপত্ আন্দোলনের ঘোষণাও আসতে পারে সেদিন। বিএনপি, জাপা ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের একাধিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী গতকাল আমাদের সময়কে বলেন, আগামী শুক্রবারের সমাবেশে মহাজোটের আওয়ামী লীগ ছাড়া বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ সব রাজনৈতিক দলকে দাওয়াত করেছি। বিএনপি ও জাপা থেকে প্রতিনিধিদল সমাবেশে যোগ দেবে বলে আমি আশাবাদী।

তিনি বলেন, বিএনপি ও জাপার সঙ্গে আমাদের সম-দূরত্ব নেই। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের তৈরি সংকট নিরসনে ঐক্যের প্রয়োজন। আর এ ঐক্যই সমাধান আনতে পারে। এক প্রশ্নের জবাবে কাদের সিদ্দিকী বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার শুধু ১৮-দলীয় জোটের দাবি নয়, এটা আমাদেরও দাবি। দেশের মানুষেরও দাবি। গত সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী এবং বিকল্প ধারার মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল গুলশানে খালেদা জিয়ার বাসায় যান।

সেখানে প্রায় আধাঘণ্টা বেগম জিয়ার সঙ্গে তারা কথা বলেন। সূত্র জানায়, ওই বৈঠকে ১৮-দলীয় জোটনেত্রী খালেদা জিয়াকে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী শুক্রবারের সমাবেশের বিষয়টি জানান। ওই সমাবেশে বিএনপির পক্ষ থেকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে পাঠানোর জন্য অনুরোধ করেন তিনি। বিএনপির একটি সূত্র জানিয়েছে, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহালের দাবিতে অনুষ্ঠেয় সমাবেশে মির্জা ফখরুলকে পাঠানোর বিষয়ে আগ্রহী খালেদা জিয়া।

রাজনৈতিক পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে মির্জা ফখরুল ওই সমাবেশে যোগ দেবেন। জাপা সূত্র জানায়, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের এ সমাবেশে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদও। নির্বাচনকালীন সরকারব্যবস্থা নিয়ে চলমান সংকট নিরসনের জন্য এ সমাবেশকে মূল্যায়ন করছেন তিনি।

শেয়ার করুন