অস্বস্তিতে পুলিশ

0
189
Print Friendly, PDF & Email

অস্বস্তিতে ভুগছেন পুলিশ কর্মকর্তারা। পেশাদারিত্ব বজায় রাখতে পারছেন না রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট পরিবর্তনের কারণে। সন্দেহ ও অবিশ্বাসের দোলাচলে সময় পার করছেন তারা। ঢাকা মহানগর পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স ও গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্রমতে, রাজধানীর রাজনৈতিক সহিংসতা দমনের জন্য কঠোর অবস্থানে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এক্ষেত্রে সারা দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি আমলে নিচ্ছেন না পুলিশের উচ্চ পর্যায়ের কর্তা-ব্যক্তিরা। বরং ঢাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতেই তারা ব্যস্ত। সেই মোতাবেক সরকারের তরফ থেকে পুলিশের উচ্চ পর্যায়ে কঠোর নজরদারি শুরু হয়েছে। সরকারের স্পর্শকাতর বিভাগসমূহে দায়িত্ব পালনকারী পুলিশ কর্মকর্তাদের ওপর সরকারের কয়েকটি গোয়েন্দা সংস্থা নজরদারি শুরু করেছে। আরোপিত দায়িত্ব পালনে বিব্রত হওয়ার তথ্য পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একজন অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনারকে প্রত্যাহার করে খাগড়াছড়ি জেলায় পাঠানো হয়েছে। এছাড়া, অনেক কর্মকর্তাকে গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে সরিয়ে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে। এরপর থেকেই পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা অস্বস্তির মুখে পড়েছেন। অনেক কর্মকর্তা হাওয়া বুঝে চুপচাপ রয়েছেন। আবার অনেক কর্মকর্তা রুটিন কাজ বাদ দিয়ে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ছেন। এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, পেশাদারিত্ব বজায় রেখে দায়িত্ব পালন সত্ত্বেও একে-অপরের প্রতি অবিশ্বাস তৈরি হয়েছে। বিএনপি-জামায়াতপন্থি চিহ্নিত করে নজরদারি শুরু হয়েছে। কারও সঙ্গে বিরোধী ১৮ দলীয় জোট নেতাদের কানেকশন আছে কিনা মনিটরিং করা হচ্ছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের একজন সহকারী কমিশনার বলেন, গত এক সপ্তাহে তার অধীনস্থ এলাকায় শতাধিক অপরাধ সংক্রান্ত মামলা জড়ো হয়েছে। উপর মহলের নির্দেশে একটি মামলারও তদন্ত করতে পারছেন না। এমনকি খুন, অপহরণ ও গুমের মামলার তদন্ত বাদ দিয়ে ১৮দলীয় জোটের নেতা-কর্মীদের পাকড়াও করার কাজে ব্যস্ত রয়েছেন। সূত্রমতে, ডিএমপি হেডকোয়ার্টারে উচ্চ পর্যায়ের একটি মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে। খোদ পুলিশ কমিশনার ওই সেলের তদারক করছেন। এই সেলের মূল কাজ হচ্ছে রাজধানীতে কর্মরত বিভিন্ন এলাকার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) থেকে শুরু করে উপ-পুলিশ কমিশনার পদধারী কর্মকর্তাদের কর্মকাণ্ড ও গতিবিধি নজরদারি করা- যাতে সরকারবিরোধী কিংবা বিরোধীদলীয় জোটপ্রীতি গড়ে তুলতে না পারে। সূত্রমতে, সামনের সম্ভাব্য রাজনৈতিক সংঘাত মোকাবিলায় ঢাকা মহানগর পুলিশের অনেক কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। কট্টর সরকারদলীয় হিসেবে পরিচিত ওই পুলিশ কর্মকর্তাদের বিশেষ পুরস্কারের বিনিময়ে দায়িত্ব পালনে উৎসাহিত করা হচ্ছে। এছাড়া, ঢাকার বাইরে থেকে অনেক কর্মকর্তাকে ডিএমপিতে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। যদিও বেশির ভাগ পুলিশ কর্মকর্তা সংঘাতমুখর রাজনৈতিক পরিস্থিতির মুখে ডিএমপির পোস্টিং বাতিলের জোর তদ্বির করেছেন বলে সূত্র জানিয়েছে। এছাড়া, অনেক কর্মকর্তা ঢাকার বাইরে থাকতেই সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় কর্মকর্তাদের খুশি রাখছেন। ঢাকা মহানগর পুলিশের একজন অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার বলেন, সরকার তার নির্ধারিত কৌশলেই এগুচ্ছে। ফের সরকার গঠনের লক্ষ্য নিয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের মনোবল চাঙ্গা রাখার চেষ্টা করছেন। তার আশঙ্কা- আগামী জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ বিভাগের অস্বস্তি আরও বেড়ে যাবে।

শেয়ার করুন