শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে আহত শতাধিক, কারখানা ছুটি

0
101
Print Friendly, PDF & Email

মজুরি বোর্ডের নির্ধারণ করা বেতন বাস্তবায়ন দাবিতে সাভারের আশুলিয়ায় ফের শ্রমিক অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। শ্রমিকরা বাইপাইল-আব্দুল্লাপুর সড়কে নেমে বিক্ষোভ করলে পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় শ্রমিকরা ইটপাটকেল নিক্ষোপ করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এতে শুরু হয় শ্রমিক পুলিশ সংঘর্ষ। এ সময় শতাধিক শ্রমিক আহত হয়েছেন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ টিয়ার শেল ও বেশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে। এ সময় শ্রমিকরা বিভিন্ন গলিতে ঢুকে পড়লে সংঘর্ষ আশপাশের এলাকায়ও ছড়িয়ে পড়ে।

মঙ্গলবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে জামগড়া এলাকায় সংঘর্ষ শুরু হয়। এখনো থেমে থেমে সংঘর্ষ চলছে বলে জানা গেছে।

এদিকে এ ঘটনায় প্রায় শতাধিক পোশাক কারখানা ছুটি ঘোষণা করেছে কতৃপক্ষ।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে আশুলিয়ার জামগড়ার নিশ্চিন্তপুর এলাকায় নীট এশিয়া কারখানার শ্রমিকরা এসে কাজ না করে সড়কে নেমে পড়ে। এ সময় শ্রমিকরা বাইপাইল-আব্দুল্লাপুর সড়কে অবস্থান নেয়। তাদের সঙ্গে আরো কয়েকটি কারখানার শ্রমিকরা যোগ দেয়। এসময় তারা ইটপাটকেল নিক্ষোপ করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এতে শুরু হয় শ্রমিক পুলিশ সংঘর্ষ। এসময় শতাধিক শ্রমিক আহত হয়েছেন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ টিয়ার শেল ও বেশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে। এ সময় শ্রমিকরা বিভিন্ন গলিতে ঢুকে পড়লে সংঘর্ষ আশপাশের এলাকায়ও ছড়িয়ে পড়ে।

সকাল থেকে একই ঘটনা ঘটে এলাকার নরসিংহপুর, দামপাড়া, ঘোষবাগ, শিমুলতলা এলাকার বিভিন্ন পোশাক কারখানায়। পরে প্রায় শতাধিক কারখানায় ছুটি ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ।

শিল্প পুলিশ-১এর পরিদর্শক আব্দুস সাত্তার জানান, এ ঘটনায় আশুলিয়ার শতাধিক পোশাক কারখানা বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ।

এর আগে সোমবার সকালে ২০টি পোশাক কারখানার শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ১০ শ্রমিক আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় এলাকায় শিল্প পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছিল। এ ঘটনায় আশুলিয়ার শতাধিককারখানায় ছুটি ঘোষণা করেছে কতৃপক্ষ।

রোববারও সাভারের উলাইল বাসস্ট্যান্ড এলাকার স্টান্ডার্ড গ্রুপের শ্রমিকরা নতুন মজুরি বাস্তবায়ন দাবিতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে বিক্ষোভ করেন। এসময় তারা ওই এলাকার এইচ আর, আল-মুসলিমসহ পার্শ্ববর্তী আরও চার পাঁচটি পোশাক কারখানায় ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে ভাঙচুর শুরু করেন।

খবর পেয়ে শিল্প পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে শ্রমিকদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দিতে লাঠিচার্জ শুরু করলে উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় আধা ঘণ্টাব্যাপী ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ এসে টিয়ারশেল, রাবার বুলেট ও লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

শেয়ার করুন