সারাদেশে ব্যপোক ধরপাকড়

0
54
Print Friendly, PDF & Email

১৮ দলীয় জোটের আজকের হরতাল শুরুর আগেই সারাদেশে ব্যাপক ধরপাকড় করেছে পুলিশ। শুক্রবার রাতভর ও গতকাল শনিবার রাজধানীসহ সারাদেশে বিএনপি ও জামায়াতের নেতাকর্মীদের বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ-র্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। গ্রেফতার আতংকে অনেক নেতাই নিজের বাড়িতে থাকছেন না। তারা বিভিন্ন জায়গায় গা ঢাকা দিয়ে রয়েছেন বলে জানা গেছে। রাজধানীসহ সারা দেশে গ্রেফতার হয়েছে বিএনপি-জামায়াতের শতাধিক নেতাকর্মী। এ দিকে গতকাল রাজধানীতে হরতালের সমর্থনে ৮টি গাড়িতে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। সীতাকুণ্ডে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে দুই দফা প্রায় দুই শতাধিক ও সিলেটে প্রায় শতাধিক গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। সীতাকুণ্ডে ১০টি গাড়িতে আগুন দেয়া হয়েছে। শুক্রবার রাতে রাজশাহীর রাজপাড়া থানা ও জেলা পরিষদ প্রশাসকের বাসায় ককটেল হামলা চালানো হয়েছে। অন্যদিকে হরতালের সমর্থনে সারাদেশে বিক্ষোভ-মিছিল করে বিএনপি-জামায়াত। এসময় পুলিশের সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে প্রায় দুই শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। রাজধানীসহ সারাদেশে বিচ্ছিন্নভাবে হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। শাহবাগে পেট্টোল বোমায় এক যাত্রীর পা ঝলসে গেছে। গতকাল পুরনো ঢাকার আদালতে প্রবেশের প্রধান ফটকের পাশে পুলিশ ক্লাবের সামনে পরপর তিনটি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটে। এতে আদালত চত্বরে আতঙ্ক ছড়ালেও কেউ হতাহত হয়নি। এদিকে হরতাল উপলক্ষে গতকাল সন্ধ্যা থেকে রাজধানীসহ বিভিন্ন জায়গায় বিজিবি নামানো হয়েছে। বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেন, রাজধানীতে ২০ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

জানা গেছে, গতকাল সকাল সাড়ে নয়টার দিকে রাজধানীতে যাত্রাবাড়ীর কুতুবখালী এলাকায় বিআরটিসির একটি দোতলা বাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে বাসটির আগুন নেভায়। বাসটি পুরোপুরি পুড়ে গেছে। এ ঘটনায় কেউ হতাহত হননি। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন যাত্রাবাড়ী থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) শফিকুল ইসলাম। এছাড়া মহাখালীর তিতুমীর কলেজের সামনে বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বনানী থানার ওসি ভুঁইয়া মাহবুব হাসান জানান, দোতলা এই বাসটি বিআরটিসির। তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থীদের আনা নেয়া করত। যাত্রীবেশে দুর্বৃত্তরা বাসে চড়ে তিতুমীর কলেজের সামনে গিয়ে আগুন দেয়। এ সময় তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থীরা ধাওয়া দিয়ে আশিক নামের একজনকে ধরে ফেলে। পরে তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। আশিকের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে ভুঁইয়া মাহবুব হাসান জানান, তিতুমীর কলেজের ছাত্রদলের নেতা মেহেদী বাসে আগুন দিতে আশিককে ভাড়া করেন। মেহেদীকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলছে বলে ওসি জানান।

ফকিরেরপুলের পুলিশ হাসপাতালের সামনে দুপুর সোয়া ১২টার দিকে একটি প্রাইভেটকারে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা পৌঁছানোর আগেই স্থানীয় লোকজন আগুন নিভিয়ে ফেলেন। এ ঘটনায় হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। শান্তিনগরে রাজারবাগ পুলিশ লাইনের গেইটে পুলিশের রিক্যুইজিশন করা একটি মাইক্রোবাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। ঢাকা মহানগর পুলিশের জনসংযোগ বিভাগের সহকারী কমিশনার আবু ইউসুফের ব্যবহূত মাইক্রোবাসটি রাজারবাগে মেরামত শেষে মিন্টো রোডে ঢাকা মেট্টোপলিটন পুলিশের মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন শাখায় ফিরছিল। ঘটনার সময় গাড়িতে চালক ছাড়া আর কেউ ছিলেন না। গাড়িটিতে দুর্বৃত্তদের অগ্নিসংযোগের পর ফায়ার সার্ভিসের সদস্য ও স্থানীয় লোকজন আগুন নিভিয়ে ফেলেন। এছাড়া মালিবাগ চৌধুরী পাড়ায় দুপুর আড়াইটার দিকে যাত্রীবাহী বাসে, মতিঝিল টিএন্ডটি কলোনীর সামনে বেলা সোয়া ১২টার দিকে একটি সিএনজি অটোরিক্সায়, বিকাল সোয়া ৫টার দিকে গুলিস্তান গোলাপশাহ মাজারের কাছে রমনা টেলিফোন এক্সচেঞ্জ ভবনের পাশের ফুটপাতে দাঁড়িয়ে থাকা ঢাকা-দোহার রুটের একটি বাসে ও বঙ্গবাজার মোড়ে সন্ধ্যা ৬টার দিকে একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা।

এদিকে হরতাল শুরুর আগে রাজধানীর বিভিন্নস্থানে হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যা ৭টার দিকে শাহবাগ মোড়ে হরতাল সমর্থকরা মিরপুর-গুলিস্তান রুটের ইটিসি পরিবহনের একটি বাস লক্ষ্য করে পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে মারলে আবদুর রাজ্জাক মিঠু (২২) নামের এক যাত্রী অগ্নিদগ্ধ হয়। তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। তার দুই পায়ের হাঁটুর নিচের অংশ আগুনে ঝলসে গেছে। তিনি এলিফ্যান্ট রোডের মেঘনা লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানীর পিওন। তার বাড়ি কেরানীগঞ্জের ইকুরিয়ায়। সন্ধ্যা ৭টার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের পাশে ৮/১০টি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

শেয়ার করুন