খালেদা জিয়াকে হত্যার পরিকল্পনার অভিযোগে আটক শীর্ষ নেতারা!

0
37
Print Friendly, PDF & Email

খালেদা জিয়াকে হত্যার ষড়যন্ত্রে জড়িত থাকার সন্দেহে বিএনপির স্থায়ী কমিটির তিন সদস্য-ব্যারিস্টার মওদুদ, এমকে আনোয়ার, রফিকুল ইসলাম মিয়াকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশের একাধিক সূত্র। একই কারণে, খালেদা জিয়ার বাসার কম্পিউটার অপারেটরকেও আটক করা হয়েছে।
সূত্রগুলো জানিয়েছে, প্রাথমিকভাবে শুধু জিজ্ঞাসাবাদ বা তথ্য যাচাই-বাছাই করার জন্যই তাদের আটক করা হয়েছিল। এই বিষয়ে আইনী পদক্ষেপ কী হবে তা এখনও স্পষ্ট হয়ে ওঠেনি।
কয়েকটি সূত্র বলছে, গত সাত নভেম্বরই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় খালেদা জিয়াকে হত্যাপরিকল্পনা করা হয়েছিল বলে পুলিশের কাছে কিছু তথ্য-প্রমাণ আছে। খালেদা জিয়াও আগে থেকেই এই আশঙ্কা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল ছিলেন বলেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় সেদিন সশরীরে হাজির হননি। একারণেই পূর্বনির্ধারিত সমাবেশে সশরীরে হাজির না হয়ে তিনি ভিডিও-কনফারেন্সের মাধ্যমে বক্তৃতা দেন।
তবে, খালেদা জিয়াকে হত্যার ষড়যন্ত্রের আশঙ্কা সম্পূর্ণভাবে নাকচ করে দিয়েছে বিএনপি। গ্রেফতার প্রসঙ্গে বিএনপির বক্তব্য, আন্দোলন দমন করার চেষ্টার অংশ হিসেবে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে।
পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, গত ৮ নভেম্বর প্রথম দফায় বিএনপির তিন নেতাকে গ্রেফতারের পর বেগম জিয়াকে হত্যা-পরিকল্পনার আশঙ্কা ফেসবুকেও চাউর হয়ে যায়। অনেককেই বলতে দেখা গেছে যে, খালেদা জিয়াকে হত্যার পরিকল্পনাটি আগে থেকে টের পেয়ে যাওয়ায় দেশ বড় একটি দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে গেল।
কথিত ‘হত্যা-পরিকল্পনা’ ছাড়াও হঠাৎ এই গ্রেফতারের কারণ প্রসঙ্গে গতকাল ফেসবুকে নানান মতামত ও সন্দেহ প্রকাশ হতে দেখা গেছে। অনেকেই বলছেন, শেখ হাসিনার অধীনে বিএনপিকে নির্বাচনে আনার কৌশল হিসেবে সরকার সংশ্লিষ্টদের ভয়-ভীতি দেখানর চেষ্টা করছে।
অনেকে ফেসবুক ব্যবহারকারী সন্দেহ প্রকাশ করে বলছেন, সরকারের সংগে মওদুদ আহমেদের বোঝাপড়ার অংশ হিসেবেই মওদুদ আহমেদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এরপর মওদুদ আহমেদকে নতুন রাজনৈতিক দল বিএনএফ-এর নেতৃত্বে দেখা গেলেও অবাক হাওয়ার কিছু নেই!
তবে, বিএনপির চলমান আন্দোলনকে দুর্বল করতে এই গ্রেফতার অভিযান চালান হয়েছে এমন বক্তব্যের পাশাপাশি ভিন্ন ভাবনাও খেলা করছে সাধারণ মানুষের মনে। কেউ কেউ বলছেন, বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ, এমকে আনোয়ার ও রফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে ডিবি অফিসে নেওয়ার পেছনে কথিত ‘সরকার পতন’ আন্দোলনকে ইচ্ছা করেই উসকে দেওয়ার ষড়যন্ত্রও থাকতে পারে।

শেয়ার করুন