খসড়া প্রস্তুত, সর্বদলীয় সরকারে জাপার ৩ মন্ত্রী

0
57
Print Friendly, PDF & Email

নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যেই নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারের খসড়া প্রস্তুত করা হয়ে গেছে। আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট নিয়ে দোটানায় থাকা জাতীয় পার্টিকে তিনটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, জাসদ, ওয়ার্কার্স পার্টি ও সাম্যবাদী দলের প্রতিনিধিদের নিয়ে ১৬ সদস্যের একটি মন্ত্রিসভার খসড়া তৈরি করেছেন প্রধানমন্ত্রী। বিএনপি আসলে এর আকার বাড়বে।

প্রধানমন্ত্রীর খসড়ায় স্থান পাওয়া মন্ত্রীরা হলেন- আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত, আবুল মাল আবদুল মুহিত, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, ওবায়দুল কাদের, আবদুল লতিফ সিদ্দিকী, ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, তথ্যমন্ত্রী ও জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু।

১৬ সদস্যের তালিকায় জাতীয় পার্টির তিনজনকে রাখা হয়েছে। তারা হলেন- প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বিমানমন্ত্রী জিএম কাদের, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার।

এর বাইরে বর্তমান সরকারের শিল্পমন্ত্রী ও সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়াও সর্বদলীয় সরকারে স্থান করে নিয়েছেন।

সূত্র জানায়, চলতি মাসের তৃতীয় সপ্তাহে এ সরকার গঠন করা হবে। এর মধ্যে বিএনপিকেও মন্ত্রিসভায় নিয়ে আসার জন্য চেষ্টা করা হবে। তবে এক্ষেত্রে বিএনপি সাড়া না দিলে বিএনপিকে বাদ দিয়েই সরকারের মন্ত্রিসভা ঘোষণা করবেন প্রধানমন্ত্রী।

শেষ মুহূর্তে সমঝোতার মধ্যদিয়ে বিএনপি যোগ দিলে ১৬ থেকে মন্ত্রিপরিষদের এ সংখ্যা বেড়ে ২০/২২ জন হতে পারে। কিন্তু যদি বিএনপি আরো বেশি মন্ত্রণালয় চায় তবে তাও বিবেচনা করা হবে।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরুল্লাহ আরটিএনএন- কে বলেন, ‘সর্বদলীয় সরকারের ড্রইং বোর্ড তৈরি করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বর্তমান মন্ত্রীরা তাদের পদত্যাগপত্র জমা দিচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী ১৭ নভেম্বর শ্রীলঙ্কা থেকে ফিরে এসে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবেন।’

বিরোধী দল বাদেই সর্বদলীয় সরকার হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমরা সংবিবধান অনুযায়ী নির্বাচন করব। এ নির্বাচনে যারা আসবে সংসদে প্রতিনিধত্বের বিচারে তাদের নিয়েই সর্বদলীয় সরকার গঠন হবে। বিএনপি এ সরকারে অংশ নিতে চাইলে তাদের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে সর্বদলীয় সরকারের মন্ত্রিত্ব দেওয়া হবে।’

জাতীয় পার্টির অবস্থান সম্পর্কে কাজী জাফরুল্লাহ বলেন, ‘জাতীয় পার্টির সঙ্গে আমাদের কথা হচ্ছে। তারা এখন পর্যন্ত আমাদের সঙ্গেই থাকার বিষয়ে একমত পোষণ করেছে।’

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত সপ্তাহে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে সর্বদলীয় সরকার গঠনের কথা জানান। এ সময় তিনি মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের পদত্যাগ করার জন্য বলেন।

এ সময় যাদের পদত্যাগপত্র গৃহিত হবে না তাদেরই সর্বদলীয় সরকারে রাখা হবে বলে তিনি জানান। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ মত মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা ইতোমধ্যে তাদের পদত্যাগপত্র জমা দিতে শুরু করেছেন।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ক্যাপ্টেন (অব.) এবি তাজুল ইসলাম, শিল্প প্রতিমন্ত্রী ওমর ফারুক চৌধুরী গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

এছাড়া আগামী শনিবার দপ্তর বিহীনমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত ও রবিবার যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের তাদের পদত্যাগপত্র জমা দেবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন

শেয়ার করুন