‘ফোনালাপ প্রকাশ আলোচনা বিঘ্নিত করেছে’

0
31
Print Friendly, PDF & Email

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিরোধী দলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়ার ফোনালাপ সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ সংলাপকে বাধাগ্রস্ত করেছে বলে মনে করেন বিএনপি নেতারা৷ আর আওয়ামী লীগ নেতারা মনে করেন, দুই নেত্রী রাজনৈতিক সংকট নিয়ে কী কথা বলেছেন তা দেশের মানুষের জানার অধিকার আছে৷

দুই নেত্রীর টেলিফোন সংলাপ সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ নিয়ে বিতর্ক অব্যাহত আছে৷ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই ফোনালাপ ফাঁসের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন৷ আর এনিয়ে হাইকোর্টে একটি রিটও হয়েছে৷

বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন দাবি করেছেন, তথ্য প্রযুক্তি আইনে ফোনালাপ প্রকাশ আইন বিরুদ্ধ৷ আর এর জন্য তিনি দায়ী করেছেন তথ্যমন্ত্রীকে৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘তথ্যমন্ত্রী দুপুরে বললেন ফোনালাপ প্রকাশের কথা আর রাতেই তা সংবাদ মাধ্যমে চলে গেল৷ এটাই বড় প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে৷” তিনি দাবি করেন, দুই নেত্রীর সংলাপ বাধাগ্রস্ত করতেই তথ্যমন্ত্রী কথোপকথনের অডিও ফাঁস করেছেন৷

বিএনপি’র এই নেতা বলেন, “এজন্য তারা এখনো কোনো আইনি ব্যবস্থা নেয়ার চিন্তা করছেন না৷ এই কথোপকথন প্রকাশ দেশের মানুষের জন্য ক্ষতিকর হয়েছে৷”

তবে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু আগেই দাবি করেছেন, এই ফোনালাপ প্রকাশের ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না৷ আর যদি কেউ রেকর্ড করে প্রকাশ করে থাকে তাদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে৷ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ অবশ্য বলেছেন, ‘‘দুই নেত্রীর ফোনালাপ কোন গোপন বিষয় নয়৷ তারা দেশের বর্তমান সংকট নিয়ে কী বলেছেন তা জানার অধিকার দেশের মানুষের আছে৷”

এদিকে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিম জানান, বাংলাদেশের প্রচলিত আইন এবং তথ্য প্রযুক্তি আইনে টেলিফোন সংলাপ রেকর্ড এবং তা প্রকাশে সরাসরি কোনো বাধা নেই।৷ তবে কেউ এতে ক্ষতিগ্রস্ত হলে আইনি প্রতিকার চাইতে পারেন৷

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন তথ্য প্রযুক্তিবিদ ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ভিন্ন তথ্য৷ তিনি বলেন, ‘‘আইনে ফোনালাপ রেকর্ড করার অধিকার আইনি কর্তৃপক্ষকে দেয়া আছে৷ আর তা প্রকাশের জন্য অনুমতির প্রয়োজন৷’

শেয়ার করুন