শুরু হচ্ছে বিশেষ অভিযান

0
72
Print Friendly, PDF & Email

‘কম্বিং অপারেশন’-এর আদলে এ মাসেই সারাদেশে বিশেষ অভিযান শুরুর প্রস্তুতি নিয়েছে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী।

পুলিশ, র‌্যাব এবং বিজিবি’র সমন্বয়ে এ অভিযান পরিচালিত হবে বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র আভাস দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, নির্বচনের তফসিল ঘোষণার আগেই যেকোন দিন থেকেই শুরু হতে পারে এই অভিযান। প্রাথমিকভাবে এ অভিযানের মেয়াদকাল হবে মাত্র তিন সপ্তাহ। এজন্যে অপারেশনে অংশগ্রহণকারী আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী সংস্থার স্ব স্ব ইউনিটগুলোকেও প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

তাছাড়া, এই অভিযান পরিচালনা খবর যাতে ফাঁস না হয় এবং কোনো অজুহাতে শীর্ষস্থানীয় পদস্থ কর্মকর্তারা পক্ষপাতিত্ত্ব, অসহযোগিতা বা খামখেয়ালি আচরণ করতে না পারে তা মনিটরিং করতে রাখা হচ্ছে ইন্টারনাল ইন্টেলিজেন্স উইং।

প্রসঙ্গত, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যে রাজনৈতিক সংকট বা সহিংসতার আশংকা করা হচ্ছে তা প্রতিরোধ করার জন্যেই এই অভিযান হতে পারে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এছাড়া, গণতন্ত্রের নামে বিএনপি ও তার অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী,সমর্থক এবং জামায়াত-শিবির বা নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনের সদস্যদের তান্ডব, অংগ্নিসংযোগ, রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা, সহিংসতা, গুপ্ত হামলা, মানুষ খুন ও নাশকতামূলক কর্মকান্ড বন্ধ এবং জঙ্গি তৎপরতা রোধ ও পলাতক আসামিসহ সন্দেহভাজন দুর্বৃত্তদের আটক বা গ্রেফতার করাই এই অভিযানের লক্ষ্য। এর সঙ্গে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি জনস্বার্থ রক্ষার বিষয়গুলোও বিবেচনায় রাখা হয়েছে।

বিএনপির সহসভাপতি ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার বক্তব্যের প্রেক্ষিতে সরকার এ বিষয়ে আরো বেশি তৎপর। ধারণা করা হচ্ছে স্বাভাবিক ভাবে সরকার ২৪ অক্টোবর সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করলে বিরোধীদল, জামায়াত শিবির, জঙ্গি সংগঠন ও সন্ত্রাসীরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারে।

এতে করে দেশে সাধারন মানুষ নিরাপত্তাহীন হয়ে যেতে পারে। ক্ষতির সম্মুখিন হতে পারে বিভিন্ন শেণী পেশার মানুষ। এ প্রেক্ষিতে অভিযান জরুরী বলে মনে করেন ক্ষমতাসিন দলের সভাপতি মন্ডলীর একাধিক সদস্য।

এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষার স্বার্থে ও সাধারণ মানুষের নিরাপত্তার স্বার্থে সরকার যেকোন প্রকারের ব্যবস্থা নিতে পারে। তবে, বিরোধীদল আন্দোলনের নামে ফৌজদারী অপরাধ করলে কঠোর ব্যবস্থা নেবে সরকার।

এ ব্যাপারে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশারফ হোসেন রাইজিংবিডিকে বলেন, বিরোধীদল দমনে সরকার অনেক কিছুই করে আসছে। তারা একদলীয় নির্বাচন করতে অনেক ব্যবস্থাই নিতে পারে। তবে বিএনপি তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠার লক্ষে আন্দোলন অব্যাহত রাখবে।
উৎসঃ   রাইজিংবিডি

শেয়ার করুন