আইএলওর সহযোগিতায় তিন বছরের কর্মসূচি কারখানার নিরাপত্তার জন্য দুই কোটি ৪০ লাখ ডলার

0
94
Print Friendly, PDF & Email

দেশের তৈরি পোশাক কারখানার পরিবেশের মানোন্নয়নে সাড়ে তিন বছর মেয়াদি ‘তৈরি পোশাক শিল্পে কাজের পরিবেশের মানোন্নয়ন’ শীর্ষক একটি কর্মসূচি হাতে নিয়েছে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও)।

রাজধানীর একটি হোটেলে গতকাল মঙ্গলবার কর্মসূচির চুক্তি সই ও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা জানানো হয়। অনুষ্ঠানের যৌথ আয়োজক শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) এবং  আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও)।

সরকার ও আইএলও যৌথভাবে দুই কোটি ৪০ লাখ ১০ হাজার ডলারের এ কর্মসূচির যাত্রা শুরু করে গত ১ অক্টোবর। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে তা শেষ হবে।

প্রধান অতিথি হিসেবে কর্মসূচিটির উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। অনুষ্ঠানে তিন সম্মানিত অতিথি ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থানমন্ত্রী রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু, পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি এবং সফররত আইএলওর উপ-মহাপরিচালক গিলবার্ট ফঁসু হুংবো।

চুক্তিতে সই করেন আইএলওর আবাসিক পরিচালক শ্রীনিবাস রেড্ডি, বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট গিভসন, নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত গার্বেন ডি জং এবং ইআরডি সচিব আবুল কালাম আজাদ। বক্তব্য দেন যুক্তরাজ্যের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বিভাগের বাংলাদেশ প্রধান সারাহ কুক। অনুষ্ঠানে  ইআরডির অতিরিক্ত সচিব আসাদুল ইসলাম স্বাগত বক্তব্য দেন। সমাপনী বক্তব্য দেন শ্রমসচিব মিকাইল শিপার।

অর্থমন্ত্রী বলেন, কারখানায় নিরাপদ পরিবেশ তৈরির বিষয়টি মালিকদের বোঝা দরকার। পাশাপাশি শ্রমিক কল্যাণের বিষয়েও তাঁদের দায়িত্বশীল হতে হবে। সরকার দেখবে মূলত আইনি দিকগুলো।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, পোশাক কারখানার পরিবেশের মানোন্নয়নে ইতিমধ্যে গঠিত জাতীয় ত্রিপক্ষীয় কমিটিকে (এনটিসি) সহযোগিতা করা হবে এই কর্মসূচি থেকে। বুয়েটের পাশাপাশি আরও নয় সংস্থা ভবন ও অগ্নিনিরাপত্তার দিকগুলো নিয়ে কাজ করবে। এগুলোর মধ্যে সমন্বয়ে সহযোগিতা করা হবে। শ্রমিক, মালিক, কারখানার মধ্যম পর্যায়ের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

রানা প্লাজা ধস ও তাজরীন ফ্যাশনসে অগ্নিকাণ্ডের শিকার হয়ে পঙ্গুত্ববরণকারী শ্রমিকদের পুনর্বাসনেও অর্থায়ন করা হবে এই কর্মসূচি থেকে।

শেয়ার করুন