সংগ্রাম কমিটি গঠন নিয়ে দ্বিধায় বিএনপির নেতারা

0
67
Print Friendly, PDF & Email

ভোটকেন্দ্রভিত্তিক সর্বদলীয় সংগ্রাম কমিটির কাঠামো কী হবে, তা নিয়ে স্পষ্ট কোনো ধারণা নেই বিএনপির নেতাদের। দলটির কেন্দ্রীয় একাধিক নেতা জানান, সংগ্রাম কমিটি গঠনের বিষয়ে এখন পর্যন্ত দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটিতে আলোচনা হয়নি।

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গত শনিবার সিলেটের জনসভায় ‘একতরফা নির্বাচন’ প্রতিহত করতে এখনই ভোটকেন্দ্রভিত্তিক সর্বদলীয় সংগ্রাম কমিটি গঠন করতে দলীয় নেতা-কর্মীদের নির্দেশ দেন। এটা দলীয় প্রধানের রাজনৈতিক বক্তব্য, নাকি সিদ্ধান্ত—এ বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছেন না কেন্দ্রীয় নেতারা।

দায়িত্বশীল একজন নেতা জানান, এ বিষয়ে দলীয় চেয়ারপারসনের সঙ্গে আলোচনা করে কমিটির কাঠামো চূড়ান্ত করার পর সাংগঠনিক শাখাগুলোকে চিঠি দিয়ে জানানো হবে।

এদিকে বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ভোট প্রতিহত করতে সংগ্রাম কমিটি গঠন নিয়ে দলটির নেতাদের মধ্যে দ্বিধাদ্বন্দ্বও আছে। ভোট প্রতিহত করতে আনুষ্ঠানিক কোনো কমিটি গঠন আইনের পরিপন্থী কি না, সেটাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তা ছাড়া এখনই এ ধরনের কমিটি করা হলে নেতা-কর্মীরা পুলিশি হয়রানির মুখে পড়তে পারেন বলে জেলা-উপজেলা পর্যায়ের নেতারা কেন্দ্রীয় নেতাদের জানিয়েছেন।

বিএনপির নেতারা বলছেন, হয়রানি এড়াতে পুলিশ ও প্রশাসনের ওপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ কমে গেলে তখন এ ধরনের কমিটি করা যেতে পারে। তার আগে নয়।

এদিকে দলটির দুজন সাংগঠনিক সম্পাদক বলেছেন, সংগ্রাম কমিটি হলে আপাতত এসব কমিটি সংশ্ল্লিষ্ট এলাকায় নির্দলীয় সরকারের দাবি আদায়ের আন্দোলনে নেতৃত্ব দেবে। তফসিল ঘোষণার পর এই কমিটিগুলো একতরফা ভোট রুখতে কাজ করবে।

বিএনপির চেয়ারপারসনের একজন উপদেষ্টা বলেছেন, বিরোধীদলীয় নেত্রী ভোট প্রতিহত করা বলতে সম্ভবত ভোটদানে বাধা দেওয়ার কথা বোঝাননি। তিনি সম্ভবত বলতে চেয়েছেন, সংগ্রাম কমিটি ভোট দেওয়া থেকে ভোটারদের বিরত রাখার জন্য জনমত তৈরি করবে। যেমনটা গাজীপুরের কাপাসিয়া উপনির্বাচনে করা হয়েছিল। তবে সেখানে স্থানীয় নেতারা কাজটি গোপনে করেছেন। জাতীয় নির্বাচনের সময় এটা প্রকাশ্যে করা হবে।

দলের একটি সূত্র বলেছে, কয়েক দিনের মধ্যে সংগ্রাম কমিটি গঠনের বিষয়টি নিয়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের আলোচনা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। এ নিয়ে ১৮ দলের নেতাদের সঙ্গেও খালেদা জিয়া পৃথক বৈঠক করবেন।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী প্রথম আলোকে বলেন, দলীয় চেয়ারপারসন শনিবার ঘোষণা দিয়েছেন। শিগগিরই এ নিয়ে তাঁর সঙ্গে আলোচনা করে কমিটির আকার ও কাঠামো চূড়ান্ত করা হবে। এরপর তা জানানো হবে।

বিএনপির নির্বাচন কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকেন স্থায়ী কমিটির এমন একজন সদস্য বলেছেন, জাতীয় নির্বাচনের সময় সাধারণত ৩৫-৪০ হাজার ভোটকেন্দ্র করা হয়। তাই ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের সংগ্রাম কমিটিতে রাখা হবে। তবে সমন্বয়কারী হিসেবে জেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে দায়িত্ব দেওয়া হবে।

শেয়ার করুন