নারীরা নারীদের কাছেও নিরাপদ নন

0
108
Print Friendly, PDF & Email

নারীরা নারীদের কাছেও নিরাপদ নন। পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও প্রতিনিয়ত অন্য নারীদের নির্যাতন করছেন। যা নারীদের অগ্রগতিতে বিরাট বাধা। নারী উন্নয়নে আগে নারীদের ঠিক হতে হবে।

সোমবার দুপুরে সিরডাপ মিলনায়তনের কনফারেন্স রুমে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘের কর্মীরা।

সংগঠনটির আয়োজনে ‘নির্যাতিত নারীদের প্রতি সহযোগিতা জোরদার’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করা হয়।

কাজের মেয়ে আদুরীকে গৃহকর্তীর হাতে নির্যাতনের শিকার হতে হয় প্রসঙ্গ টেনে প্রধান অতিথি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাওনাইন বলেন, পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও নারীদের নির্যাতন করে থাকে। তবে যেই নারী নির্যাতন করুক না কেন, তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।

তিনি এ জন্য নারীদের আরো আত্মনির্ভরশীল হওয়ার প্রতি জোর দেন।

তিনি বলেন, অনেক নারী জানেন না তারা কিভাবে সরকারি বেসরকারি সংগঠন থেকে সহযোগিতা পাবেন। নারী ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে কিভাবে নারীরা সেবা পাবেন তা জানতে হবে। তাহলে নারীরা নিজেরাই যেকোনো বিপদ মোকাবেলা করতে পারবেন।

নারী উন্নয়নের জন্য যে সংস্থাগুলো নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তাদেরকে আরো বেশি সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, বর্তমানে ৬১ ভাগ নারী তার নিজের পরিবারে নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। স্বামীরা এখন স্ত্রীদের অভিনব কায়দায় নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছেন। যৌতুকের দায়ে নারীদের মেরে ঝুলিয়ে রাখা হয়। এজন্য নারীদের সোচ্চার হতে হবে। মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে।

তিনি বলেন, অধিকাংশ নারী এখনো স্বামীর হাতে মার খাওয়াকে আশীর্বাদ মনে করেন। তারা ভাবেন স্বামীর হাতে মার খেলে বেহেস্তে যাওয়া যায়। এরকম হলে নারীদের জন্য ইসলামে কোনো নামাজ রোজার বিধান থাকতো না।

নারী ও শিশু বিষায়ক মন্ত্রণালয়ের সহকারী পরিচালক শহীদুল ইসলাম নিজামী বলেন, মন্ত্রণালয় থেকে নারীদের জন্য অনেক সুযোগ সুবিধা দেওয়া হয়। এগুলো পেতে হলে নারীদের যোগ্য হয়ে উঠতে হবে। তাদেরকে শিক্ষিত হতে হবে। নারীদের শিক্ষিত করতে সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানের এগিয়ে আসা দরকার।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রোগ্রাম অফিসার হালিমা আক্তার, ঢাকা মেডিকেল ক্রাইসিস সেন্টারের সাব ইন্সপেক্টর টিপু সুলতান ও বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘের অন্যতম উদ্যোক্তা রোকেয়া কবীর প্রমুখ।

শেয়ার করুন