দেশের রাজনৈতিক সংকট, সংঘাতের আশঙ্কা : রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা

0
66
Print Friendly, PDF & Email

দেশের রাজনৈতিক সংকট নিয়ে সমাধান না হয়ে ঘনীভূত হচ্ছে সংঘাতের আশঙ্কায় । জনসাধারন মনে করছেন কি হতে পারে, রাজনৈতিক বিশ্লেষকরাও গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ নিয়ে রয়েছেন চরম অনিশ্চিয়তার মধ্যে।

আগামী ২৪ অক্টোবরের মধ্যে নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থা নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো রাজনৈতিক সমাধান না হলে তা দেশের ভবিষ্যত গণতন্ত্রকে চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে ফেলে দেবে বলে আশঙ্কা রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের। তারা বলছেন, নির্বাচন নিয়ে সরকার ও বিরোধীদল নানা বক্তব্য দিলেও মূল সমস্যা সমাধানে এখনো কোনো সমঝোতার উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

পর্যবেক্ষকদের অভিমত, এ পরিস্থিতিতে নির্বাচনের পথে দিন যত গড়াবে ততই বাড়তে থাকবে সহিংসতা। সবশেষ রোববার বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর অধীনে দেশে কোন নির্বাচন হতে দেয়া হবে না। আগামী ২৫ অক্টোবরের পর আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণার হুঁশিয়ারিও দেন তিনি।

খালেদা বলেন, ‘হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন হবেনা, হতে দেওয়া হবেনা।’ অন্যদিকে, বিরোধীদলীয় নেতাকে সংসদে এসে দাবি-দাওয়া পেশ করার আহ্বান জানিয়ে নিউইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দেশের এবং গণতন্ত্রের স্বার্থে তিনি যে কোনো ত্যাগ শিকারে রাজি।’

জানা গেছে, বর্তমানে সংবিধান অনুযায়ী আগামী ২৪ অক্টোবর থেকে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে বর্তমান সরকারের মেয়াদকালেই অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। তবে এ নিয়ে বিরোধী দলের রয়েছে ঘোর আপত্তি। এরকম রাজনৈতিক বাস্তবতায় প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক বক্তব্যে কিছুটা আশার আলো দেখছেন বিশ্লেষকদের কেউ কেউ।

এ প্রসঙ্গে রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ সময় সংবাদকে বলেন, নিউ ইয়র্কে বসে প্রধানমন্ত্রী স্পষ্ট বলেছেন, আমাকে ছাড়া বিরোধী দল সব মেনে নিয়েছে। একইভাবে আমি যদি খালেদা জিয়ার বক্তব্য শুনি, তাহলে হানসনাকে সরে দাড়াতে হবে। অন্যকথায় সব সরে দাড়াতে বলে হচ্ছেনা। প্রধানমন্ত্রী যদি সরে দাড়ান এবং সেখানে যদি একজন নির্দলীয় লোককে নিয়ে আসা হয় তাহলেই সব সমস্যার সমঅদান হয়ে যায়।’

তবে এব্যাপারে ভিন্ন মতও রয়েছে। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা আকবর আলী খান বলছেন, ‘রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের জন্য সরকার ও বিরোধী দলের পক্ষ থেকে নানারকম বক্তব্য আসলেও সমাধানের কোন উদ্যোগ এখনো দেখা যাচ্ছেনা।’

তিনি বলেন, ‘ সেগুলো বলা হচ্ছে সবই কিন্তু আমরা সত্যিকার অর্থে সমাধানের কোনো উদ্যোগ দেখছিনা। সমাধানের যে সময়-সীমা তা ক্রমশ সঙ্কুচিত হয়ে আসছে।’ রাজনিতীবিদরাই দেশকে অস্থিতিশীলতার দিকে নিয়ে যাচ্ছে মন্তব্য করে এ থেকে বেরিয়ে আসতেও রাজনীতিবিদদেরকেই পদক্ষেপ নিতে হবে বলে মন্তব্য করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের এ উপদেষ্টা।

শেয়ার করুন